আগ্রাবাদ সংযোগ সড়ক ও পোর্ট কানেকটিং সড়কে চলমান ১৫০ কোটি টাকা উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন করেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন

আগ্রাবাদ সংযোগ সড়ক ও পোর্ট কানেকটিং সড়কে চলমান ১৫০ কোটি টাকা
উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন করেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন
যীশু সেন, স্টাফ রিপোর্টার ঃ  নগরীর ব্যস্ততম সড়ক হিসেবে খ্যাত আগ্রাবাদ সংযোগ সড়ক ও পোর্ট কানেকটিং সড়কে চলমান ১৫০ কোটি টাকা উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন করলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন। আজ বুধবার দুপুরে তিনি এ প্রকল্প সমূহের কাজ পরিদর্শন করেন। এই সময় সিটি মেয়রের সাথে চসিক কাউন্সিলর এইচ এম সোহেল, প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্ণেল মহিউদ্দিন আহমদ, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম,তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আবু ছালেহ, নিবার্হী প্রকৌশলী আবু সাদাত মোঃ তৈয়ব, বিল্পব দাশ, সহকারী প্রকৌশলী মজিবুল হায়দার ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। এই প্রকল্পের আওতায় দুই পর্যায়ে (৫০ +৫০)বা ১০০ কোটি টাকা ব্যয়ে নিমতলা পোর্ট কানেকটিং থেকে বড়পুল,বড়পুল থেকে নয়াবাজার পর্যন্ত এবং আগ্রাবাদ বাদামতলী থেকে বড়পুল নয়াবাজার পর্যন্ত ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে এ উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়িত হচ্ছে। একই প্রকল্পের আওতায় রাস্তার দুইপাশে আর সিসি ড্রেন ও ফুটপাত নির্মাণ, রাস্তার মাঝখানে ৮ ফুট দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট মিডিয়ান নির্মাণ, এলইডি আলোকায়ন ব্যবস্থা থাকবে। ছয় লেনে ১২০ ফুট প্রশস্ত বিশিষ্ট পোর্ট কানেকটিং রোডের মোট দৈর্ঘ্য ২ কি.মি। অপরদিকে একই প্রকল্পে আগ্রাবাদ এক্সেস রোডও ২ কি.মি পর্যন্ত উন্নয়ন বাস্তবায়ন করা হবে। জাইকার অর্থায়নে এই উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ গত জানুয়ারী-২০১৮ ইংরেজী থেকে শুরু হয় এবং ১৯শে মে-২০১৯ সালে এই প্রকল্প সমূহের কাজ শেষ হবার দিনক্ষণ ধার্য আছে। পরিদর্শনকালে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, আগামী ২ বছরের মধ্যে নগরের সকল সড়কসমূহে শতভাগ কার্পেটিং বাস্তবায়ন করা হবে। চট্টগ্রাম বন্দরের পণ্য পরিবহনে নিমতলা পোর্ট কানেকটিং রোড এবং আগ্রাবাদ এক্সেস রোড গুরুত্বপূর্ণ। এই সড়ক দিয়েই বন্দর থেকে পণ্য বা কন্টেইনার বাহী পরিবহন ঢাকাসহ দেশের নানাপ্রান্তে যাতায়াত করে। দীর্ঘদিন ধরে এই সড়কের বেহাল অবস্থার কারণে বন্দরের পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টদেরকে দুর্ভোগ এবং হয়রানি পোহাতে হচ্ছে। ছয় লেন বিশিষ্ট পোর্ট কানেকটিং রোড এবং আগ্রাবাদ এক্সেস রোড উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়িত হলে বন্দরের পণ্য পরিবহনে গতিশীলতা ফিরে আসবে। তিনি উন্নয়ন কাজ চলাকালীন সময়ে সড়কগুলোতে অবৈধ পার্কিং এর কারণে যানজট সৃষ্ঠির জন্য ক্ষোভ প্রকাশ করেন । এই প্রসংগে তিনি ট্রাফিক প্রশাসনকে যথাযথ দায়িত্ব পালনের আহবান জানান ।
এর পূর্বে মেয়র গত তিন দিনের অবিরাম টানা বর্ষণে চট্টগ্রাম বাটালি হিল মিঠা পাহাড়ের কিছু অংশ ধসে পড়ে পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের বিন্না ঘাস প্রদর্শনী প্লটের কিছু অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তিনি এ ক্ষতিগ্রস্ত প্রদর্শনী প্লট পরিদর্শন করেন। মেয়র বিন্না ঘাস প্রদর্শনী প্লটে রোপন করা চারাগুলোর বর্তমান অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*