কাপ্তাই এ ৭ দিনে ভ্রাম্যমান আদালতে ১৪৬ টি যানবাহন এর বিরুদ্ধে মামলা, জব্দ- ৬ টি যানবাহন : বিআরটিআই এর বিরুদ্ধে গাড়ীর কাগজপত্র তৈরী করতে চালকদের হয়রানির অভিযোগ

কাপ্তাই এ ৭ দিনে ভ্রাম্যমান আদালতে ১৪৬ টি যানবাহন এর বিরুদ্ধে মামলা, জব্দ- ৬ টি যানবাহন : বিআরটিআই এর বিরুদ্ধে গাড়ীর কাগজপত্র তৈরী করতে চালকদের হয়রানির অভিযোগ

ঝুলন দত্ত, কাপ্তাই।। বাংলাদেশ পুলিশের বিশেষ ট্রাফিক সপ্তাহের অংশ হিসাবে কাপ্তাই উপজেলায় গত ৭ দিনে ১৪৬ টি বিভিন্ন যানবাহন এর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। এছাড়া কোন রকম কাগজপত্র দেখাতে না পারায় ৬ টি গাড়ী জব্দ করা হয় এবং১৩ হাজার ১ শত টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুহুল আমীন এই ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। কাপ্তাই ট্রাফিক বিভাগের টিআই তারক চন্দ্র পাল এবং কাপ্তাই ট্রাফিক পুলিশ ও থানা পুলিশ ভ্রাম্যমান আদালতকে সহায়তা করেন। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনাকারী কাপ্তাই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুহুল আমীন এই প্রতিবেদককে জানান, মোটারযান অধ্যাদেশ ১৯৮৩ এর বিভিন্ন ধারায় বৈধ কাগজপত্র বিহীন যানবাহন এবং ড্রাইভিং লাইসেন্সবিহীন চালকদের বিরুদ্ধে এই মামলা দেওয়া হয়। কাপ্তাই ট্রাফিক বিভাগের টিআই তারক চন্দ্র পাল জানান, ট্রাফিক সপ্তাহের অংশ হিসাবে গত রবিবার হতে কাপ্তাই সড়কের লগগেইট, চিৎমরম, সীতাঘাট, শিলছড়ি,বড়ইছড়ি, এবং রেশম বাগান এলাকায় এই অভিযান পরিচালিত হয়। এছাড়াও ট্রাফিক বিভাগের আওতাধীন রাইখালী এবং বাংগালহালিয়া বাজারেও বিভিন্ন কাগজপত্র বিহীন বিভিন্ন যানবাহন এর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। এদিকে কাপ্তাই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুহুল আমীন জানান কাপ্তাই সড়কে চলাচলকারী ৯০% গাড়ীর কোন বৈধ কাগজপত্র নাই নেই কোন ড্রাইভিং লাইসেন্স অধিকাংশ সিএনজি চালিত অটোরিক্সার নাই নাম্বার প্লেট। কাপ্তাই সড়কে চলাচলকারী অনেক সিএনজি চালক জানান, তারা ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য বিআরটিতে আবেদন করলেও এক শ্রেনীর দূর্নিতীবাজ কর্মকর্তা অতিরিক্ত টাকা দাবি করে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র এবং ড্রাইভিং লাইসেন্স দিতে বিলম্ব করে, এছাড়া দালালদের উৎপাতও আছে বিআরটিএ অফিসে। ফলে বছরের পর বছর চালকদের হয়রানি হতে হয় এই দপ্তরে। ট্রাফিক সপ্তাহে প্রশাসন এবং পুলিশের পাশাপাশি কাপ্তাই নৌ স্কাউটস্ লিডার এম জাহাঙ্গীর আলম এর নেতৃত্বে ২১ জন নৌ স্কাউটকে চালকদের সচেতন করতে দেখা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*