চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্য্যালয়ের বেহাল দশা!দেখার কেউ নেই

চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্য্যালয়ের বেহাল দশা! দেখার কেউ নেই
মোঃ নাজমুল সাঈদ সোহেল , কক্সবাজার  প্রতিনিধি :
” ঘরের ছিন্নি পরে হার
হোছনী হদ্দা লই বেরার”
এ উপপাদ্যটি যেন চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগ
কার্য্যালয়ের অফিসটা অবিকল মিল।দীর্ঘকাল সরকারী দলে থাকা একটি উপজেলার রাজনৈতিক  কার্যলায় দেশের ককোথাও আছে বলে মনে হয়না।বেহাল ও করুণ অবস্তা।
চকরিয়া উপজেলায় বড় বড় নেতাদের যে বক্তব্য তৃনমুলের নেতা কর্মিদের  সামনে রাখেন তা চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের অফিস দেখলেই বুঝা যায় বাস্তবতা কত কঠিন। তৃণমুল নেতৃবৃন্দ ঢাকা যাবেন শুধু গাড়িতে আরাম করলে চলবেনা  চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের কার্যালয়সহ এলাকার নানান সমস্যা  কথা  সভানেএীর কাছে তুলে ধরবেন।  সিনিয়র নেতারা নমিনেশন নিয়ে ব্যস্ত থাকবে  তাদের আওয়ামীলীগ কার্যালয় নিয়ে কথা বলার সময় হয়তো হবেনা।আজ আওয়ামী ব্যানারে নেতার নাম ভাঙিয়ে কোটি কোটি টাকার মালিক হচ্ছেন অথছ একবারও কি ভেবেছেন আপনারা যে সাইনবোর্ড নিজস্বার্থে লগু হিসেবে ব্যাবহার করে চলছেন সেই লঘুটি আজ কতটা জরাজীর্ণ? বৃষ্টি জন্য অফিসের ভিতরে বসা যায় না,রোদ্রসময়ে খরা তাপ গায়ে লাগার কারণে স্বস্থিতে বসা যায় না।তবে আপনারা বুঝবেন কি করে বছরে একবারও তো উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্য্যালয়ে ঢোকেন না।ঢোকবেনই বা কি করে এখন আপনাদের সভা সেমিনার তো হয় আপন কমিউনিটি সেন্টারের মত বিলাস স্থানে।আজকের উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্য্যালয়ের বেহাল দশা দেখে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণকরছি নির্লোভ,নিস্বার্থভাবে সারাজীবন যিনি অবিভক্ত চকরিয়া উপজেলা আওয়ামিলীগ জমাত বি এন পি অধ্যুসিত মেঠোপথ চলে দলকে সুসংগঠিত করেছেন তিনি হচ্ছেন নুরুল কাদের বি কম।তিনিই নিজের পকেটের টাকা দিয়ে বর্তমান উপজেলা আওয়ামীলীগ
কার্য্যালয়টি প্রতিষ্টিত করছিলেন। বিনিময়ে তিনি পেয়েছেন তাঁর একমাত্র সন্তানকে আওয়ামী কতৃক প্রজেক্ট ডাকাতি আসামীর পুরস্কার। আজ তিনি যেমন বয়সের ভারে জরাজীর্ণ অবস্থা ঠিক তেমনি উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্য্যালয়টি ও আজ জরাজীর্ণ। ১৯৯৬সাল থেকে এপর্যন্ত
উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্য্যালয়টি সংস্কার কাজে হাত দেয়নি।সবাই দলের হায়ব্রীড নেতাদের নিয়ে আঁখের গোছা গোছাতে ব্যাস্থ। বর্তমান চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগ
কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দীন চৌধুরী  সাবেক যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী এপি এস সালাউদ্দিনের আস্থাভাজন ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আজিজুল হক চেয়ারম্যানের সাথে যৌথ ব্যাবসায়ী  পার্টনার হয়ে নিজস্বার্থে ব্যাস্থ। দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের দুঃখ দূর্দশা খবর নেয়ার মত সময় থাকে না।পক্ষান্তরে চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জাফর আলম এম এ কক্সবাজার ১ আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচনে মরিয়া হওয়ায় নিজের স্বার্থে বৃহৎ লক্ষে জমাত ও হাইব্রীড নেতারা এখন অতি আস্থাভাজন হওয়ায় সুফল ভোগ করছে। আজ দলের দুঃসময়ে হালধরা ত্যাগী নেতাকর্মীরা সুফলভোগ করা তো দূরের কথা কাছে ভিড়ানোর সুযোগ ও হয় না।মুজিব কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা তৃণমূল নেতাকর্মীদের নিয়ে মতবিনিময় করতে যাচ্ছেন।এমতাবস্থায় তৃণমূল নেতাকর্মীদের আকুল আবেদন সুফল ভোগ করতে না পারলেও অন্তত দলের দুঃসময়ে তাদের লৌহমূর্ষ আত্নত্যাগের ঘামটি যেন বৃথা না হয়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*