বুড়িচংয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে ৩ সন্তানের জননী গৃহবধূর আতœহত্যা

বুড়িচংয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে ৩ সন্তানের জননী গৃহবধূর আতœহত্যা
সাকিব আল হেলাল।। কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নের কন্ঠনগর গ্রামের শরাফত আলীর ছেলে আমিনুল ইসলামের ৩ সন্তানের জননী স্ত্রী মোসাঃ আয়শা বেগম(৩০) মঙ্গলবার(২২ মে) দিবাগত রাতে ঘরের তীরের সাথে ঝুঁলে গলায় ফাঁস দিয়ে আতœহত্যা করেছেন বলে জানা যায়।
স্থাণীয় সূত্রে জানা যায়,জেলার বুড়িচং উপজেলার পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নের কন্ঠনগর গ্রামের শরাফত আলীর ছেলে অমিনুল ইসলামের ৩ সন্তানের জননী স্ত্রী আয়শা বেগম ঘরের তীরের সাথে ঝুলে গলায় ফাঁস দিয়ে আতœহত্যা করেছে।খবর পেয়ে বুড়িচং থানার এস আই পুষ্প বরন চাকমা সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল তৈরি করে ময়না তদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করেন।
যেহুতু নিহতের স্বামী ও শাশুড়ি পলাতক তবে এটা হত্যা না আতœহত্যা এটা নিয়ে আছে অনেকের মনে প্রশ্ন ?
নিহত আয়শা বেগম বুড়িচং উপজেলার ষোলনল ইউনিয়নের পয়াত গ্রামের আব্দুল মান্নানের মেয়ে।১৫ বছর পূর্বে বুড়িচং উপজেলার পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নের কন্ঠনগর গ্রামের শারাফত আলীর ছেলে আমিনুল ইসলামের সাথে বিয়ে হয়েছিল।নিহত আয়শা বেগমের ইসরাফিল,আতিক ও আকরাম নামে ৩ সন্তান রয়েছে।স্বামী আমিনুল ইসলাম ইলেক্ট্রিকের কাজ করেন বলে জানা যায়।
নিহতের বাবা আব্দুল মান্নান বলেন,আমার মেয়ের স্বামী আমিনুল ইসলাম ও শাশুড়ি প্রায় সময় শারিরিক নির্যাতন করতো।প্রায় সময় স্বামী আমিনুণ ইসলাম নির্যাতন করার সময় বলতো ,বাপের বাড়ি চলে যায়,তুই চলে গেলে আবার বিয়ে করতে পারবো ” বলেই নিহতের বাবা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।
এ ব্যাপারে বুড়িচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মনোজ কুমার দে বলেন,আমরা লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল তৈরি করে ময়না তদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে প্রেরেন করেছি।ময়না তদন্তের প্রতিবেদন হাতে আসার আগ পর্যন্ত কিছুই বলতে পারছি না”।।তবে নিহতের ভাই আল আমিন বুড়িচং থানাতে একটি অপমৃত্যুর মামলা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*