ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন উদ্বোধন করেন- মেয়র নাছির

ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন উদ্বোধন করেন- মেয়র নাছির

কুতুব উদ্দিন রাজু,চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন একটি শিশুকে ভিটামিন “এ” ক্যাপসুল খাইয়ে দিয়ে ভিটাািমন “এ” প্লাস ক্যাম্পেইন এর উদ্বোধন করেন।
তিনি আজ শনিবার সকালে আকবরশাহ কৈবল্যধামস্থ নগর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে এ কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন আয়োজিত স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর জহুরুল আলম জসিম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর মিসেস আবিদা আজাদ, বিশিষ্ট সমাজ সেবক শামীম আহমদ সুমন বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। মঞ্চে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক কমিশনার এস এম আলমগীর, সমাজসেবক জামাল উদ্দিন, ইলিয়াছ খান, জাচমা বেগম, খন্দকার মোহাম্মদ হোসেন, মো. ফারুক, স্বপন দাশ ও মো. ইব্রাহিম উপস্থিত ছিলেন। চসিক প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আকতার চৌধুরী শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। সভা সঞ্চালনায় ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আলী। প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিটি মেয়র বলেন ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী প্রতিটি শিশুকে একটি নীল রঙের ও ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী প্রতিটি শিশুকে একটি লাল রঙের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। এই ক্যাম্পেইনের উদ্দেশ্য হল শিশু মৃত্যুর ঝুঁকি ও ভিটামিন ‘এ’ এর অভাবজনিত শিশুর অন্ধত্ব প্রতিরোধ করা ও পুষ্টি বিষয়ক অন্যান্য কর্মসূচি সমন্বিতভাবে বাস্তবায়ন করা। উক্ত কর্মসূচি সফলভাবে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে যা অবশ্যই পালন করতে হবে তা হল ৬ মাস বয়সী শিশুকে মায়ের দুধের পাশাপাশি ঘরে তৈরি সুষম খাবার খাওয়ানোর বিষয়ে পুষ্টি বার্তা প্রচার এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া চিকিৎসার জন্য মনিটরিং টিম গঠন করা, আইপিসি সম্পন্ন করা ও ওয়ার্ড ভিত্তিক উদ্দিষ্ট শিশুর তালিকা সংরক্ষন করার উপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডে স্থায়ী/অস্থায়ী ১২৮৮ কেন্দ্রে ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী প্রায় ৮০ হাজার শিশুকে ১টি করে নীল রঙের ও ও ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী সাড়ে ৪ লাখ শিশুকে একটি লাল রঙের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। মেয়র বলেন, নগরীর ৪১জন ওয়ার্ড কাউন্সিলর, ১৪জন মহিলা কাউন্সিলরের নেতৃত্বে স্কুল শিক্ষক স্বেচ্ছাসেবক ও বিভিন্ন স্তরের জনগণ এই কর্মসূচীতে অংশগ্রহণ করছে। যার ফলে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের বিগত সময়ে যে সাফল্যের স্বাক্ষর রেখেছে এবারও তার ব্যতিক্রম হবে না বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। নগরীর ৫ বছরের কম বয়সী সকল শিশু যাতে এই কর্মসূচীর আওতাভুক্ত হয় সেই ব্যাপারে আরো দায়িত্বশীল হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানান মেয়র। চিকিৎসকের নিরন্তন প্রচেষ্টার কথা উল্লেখ করে মেয়র বলেন বিশ্বে মানুষের গড় আয়ু যেখানে ৬৯ বছর। সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ৭৩ বছর। এই সাফল্য আমাদের এবং দেশের চিকিৎসক সমাজের। ইহা ধরে রাখতে হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, চট্টগ্রাম মহানগরীর বিশাল জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্য সেবা বিষয়টিকে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন মৌলিক দায়িত্ব হিসেবে গ্রহণ করেছে। চসিক পরিচালিত স্বাস্থ্যকেন্দ্র সমূহ নগরীর ৬০ লক্ষ জনগণের স্বাস্থ্য সেবা সুনিশ্চিত করার লক্ষ্যে বিশেষ করে প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা জনগণের দোড় গোড়ায় পৌছে দেয়ার জন্য নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডে নগর স্বাস্থ্য, চক্ষু পরিচর্যা কেন্দ্র, ভিসিটি সেখার ও নগর মাতৃসদন চালু রয়েছে। এই সকল স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র ও মাতৃসদন হাসপাতালে দক্ষ ও অভিজ্ঞ চিকিৎসক দ্বারা নিয়মিত চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে। মেয়র বলেন, এ সকল নগর স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র ও মাতৃসদন হাসপাতলের রোগীদের সাধারণ রোগীদের চিকিৎসার পাশাপাশি টিকাদান কর্মসূচী, পরিবার পরিকল্পনা সেবা, স্বাস্থ্য শিক্ষা কর্মসূচী ও স্বল্প মূল্যে নিদিষ্ট প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষা-নিরিক্ষা ও গর্ভবতী মায়েদের স্বাস্থ্য পরিচর্যার সকল সুযোগ-সুবিধা ও পরামর্শ প্রদান করে থাকে। কর্পোরেশন এলাকায় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন সফলভাবে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। এই ক্যাম্পেইন সফল বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সকাল ৮ টা হতে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে চলছে। চসিকের সম্মানিত কাউন্সিলর, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলরগণের সার্বিক সহযোগিতা ছাড়াও নগরে অবস্থিত সকল-সরকারি-বেসরকারি সংস্থার কর্মকর্তাগণ ছাড়াও প্রায় ৪ হাজার স্বেচ্ছাসেবক, সকল জোনাল অফিসার, মেডিকেল অফিসার, ইপিআই টেকনিশিয়ান, সুপারভাইজার, স্বাস্থ্য সহকারী, টিকাদান ও স্বাস্থ্যকর্মী এ কাজে নিয়োজিত আছে। এ ছাড়াও ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন সফলভাবে বাস্তবায়নে সচেতন নাগরিক, বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক, শিক্ষক, প্রকৌশলী, ইমাম, পুরোহিত ও অন্যান্য পেশাজীবীদের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। এ জন্য কর্পোরেশন জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় প্রচারের জন্য বিশেষ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ, স্বেচ্ছাসেবকদের আপ্যায়নের জন্য মেয়রের পক্ষ থেকে বিশেষ বরাদ্দ প্রদান, জনসাধারণের সহযোগিতা চেয়ে মসজিদে জুমার নামাজের খুতবায় মুসল্লিদের অবহিত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। মেয়র ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাপসুল সফলভাবে বাস্তবায়নে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করার জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, ইপিআই সদর দপ্তর, জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠান, সিভিল সার্জন, চট্টগ্রাম বিশ্বস্বাস্থ্য ও ইউনিসেফ সহ সকল সরকারী-বেসরকারী সংস্থাকে ধন্যবাদ জানান। পূর্বে সিটি মেয়র প্রায় ৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন পরিচালিত দাতব্য চিকিৎসালয় সংস্থা, সৌন্দর্যবর্ধনসহ সীমানা প্রাচীর নির্মাণ উদ্বোধন করেন। পরে দেশ জাতির সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*