রাউজানে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে গরু, হাঁস-মুরগীসহ ৩ বসতঘর পুড়ে ছাই

রাউজানে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে গরু, হাঁস-মুরগীসহ ৩ বসতঘর পুড়ে ছাই

শাহাদাত হোসেন , রাউজান প্রতিনিধি ;; রাউজানে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে পুড়ে ছাঁই হয়েছে ৩ বসতঘর। মঙ্গলবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে রাউজান উপজেলার ডাবুয়া ইউনিয়নের পশ্চিম ডাবুয়া ২নং ওয়ার্ডের মনুহাজীর বাড়িতে এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার দিবাগত রাত দেড়টা দিকে বৈদ্যুতি শর্ট সার্কিট কিংবা রান্নাঘরের চুলা থেকে অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হয়ে আগুনের লেলিহান শিখা দ্রুত চারদিকে ছড়িয়ে পড়লে ৩ বসতঘর পুড়ে ছাই হয়ে যায়। ক্ষতিগ্রস্তরা হলেন নুরুল ইসলাম, নুর মোহাম্মদ, জহুরুল ইসলাম প্রকাশ কালু । এতে ৩ বসতঘরে থাকা নগদ টাকা, স্বার্ণালংকার, ফার্ণিসার, শিক্ষার্থীদের বই, আসবাবপত্র, গরু, হাঁস-মুরগীসহ ও প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র পুড়ে প্রায় ৮ লক্ষ টাকার ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো। তবে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত নুরু ইসলামের গরু, ও জহুরুল ইসলাম প্রকাশ কালুর, দুই মেয়ের বই পুড়ে ছাই হয়ে যাওয়ায় কাঁদছেন ৫ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী সায়মা আকতার ও ২য় শ্রেণীর ছাত্রী নাঈমা আকতার । স্থানীয়রা জানান, রাউজান ফায়ার সার্ভিসকে এ অগ্নিকান্ডে খবর জানানো হলে ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা খবর পেয়ে একটি গাড়ি নিয়ে আসলে ওই এলাকায় বন্যায় একটি ব্রীজ ভেঙে যাওয়ায় কারণে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি এলাকায় প্রবেশ করতে পারেনি। পরে মসজিদে মাইকিং এর্লান করা হলে স্থানীয়রা এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। এবিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য মোঃ জাহাঈীর আলম মেম্বার বলেন – স্থানীয় লোকজন আমাকে ফোন করে অগ্নিকান্ডের বিষয়ে অবহিত করেন । আজ সকালে আমি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান চৌধুরীকে নিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারদের দেখতে যায়। ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান চৌধুরী লালুর পক্ষ থেকে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত তিন পরিবারকে ২০ হাজার টাকা প্রদান করা হয়। তিনি আরো জানান সাংসদ এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপির নির্দেশে রাউজান উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত প্রত্যেক পরিবারকে ৫ হাজার টাকা করে মোট ১৫ হাজার টাকা ও ২ টি করে ৬টি কম্বল দেওয়া হয় । অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্র পরিবার গুলো বর্তমানে খোলা আকাশের নিচে মানবতার জীবন- যাপন করছেন। ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে এগিয়ে আসার জন্য বিত্তশালীদের কাছে এমনটাই প্রত্যাশা এলাকাবাসীর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*