প্রবাসীর স্ত্রী কারাগারে:ঘুমধুমে অবুঝ ৫ শিশু সন্তানের ক্রন্দনে বাতাসও কাঁদছে!

প্রবাসীর স্ত্রী কারাগারে:ঘুমধুমে অবুঝ ৫ শিশু সন্তানের ক্রন্দনে বাতাসও কাঁদছে!
উখিয়া(কক্সবাজার)প্রতিনিধি :: মাত্র ৫ হাজার টাকার লোভে পড়ে প্রতিবেশী যুবকের ইয়াবার চালান বাড়ি থেকে বহন করে রাস্তায় নিয়ে যেতেই র‍্যাব এর হাতে আটকা পড়ে কারাগারে যায় প্রবাসীর স্ত্রী।ঘরে নেই বাবা।বাবা গত কয়েক বছর ধরে সৌদিআরব প্রবাসী।এরই মধ্যে গর্ভধারিণী মাতা মাত্র ৫ হাজার টাকার লোভে পড়ে কক্সবাজারের কারাগারে অন্ধকার প্রকোষ্টে।বাবা-মাতাহীন অবুঝ ৫ সন্তান প্রতি দিবারাত্রি ‘মা’মা’মা’ শব্দে আর্তনাদ করছে ঘুমধুমের নোয়াপাড়া গ্রামে।সন্তানদের আহাজারিতে এলাকার বাতাস ভারী হয়ে আছে।কোন-কোন রাতে ছোট অবুঝ শিশু সন্তানদের ক্রন্দনে রাতের ঘুমে আচ্ছন্ন মানুষের ঘুম ভেঙ্গে যায়।হ্নদয়বিদারক এমন ঘটনা নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড নোয়াপাড়া গ্রামে নিত্যদিনের যেন।
জানাগেছে কক্সবাজারস্থ র‌্যাব-৭ ৪ জানুয়ারি সন্ধ্যার সাড়ে ৫টার দিকে নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ইউনিয়নের নোয়াপাড়া গ্রামের জাফর আলমের ছেলে মোহাম্মদ সুলতান (২৮) ও একই পাড়ার সৌদিআরব প্রবাসীনুরুল আমিনের স্ত্রী ফাতেমা বেগম (৪০)কে ১১ হাজার ৯ শত ইয়াবাসহ আটক করে।র‌্যাব-৭ কক্সবাজার ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মেজর মেহেদী হাসান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।তিনি জানান,ইয়াবা বেচা-কেনার জন্য কিছু ব্যবসায়ী উল্লেখিত এলাকায় অবস্থান করছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে এসব ইয়াবাসহ তাদের আটক করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা শেষে উখিয়া থানায় হস্তান্তর পূর্বক  জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।উখিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক(তদন্ত) মো:নুরুল ইসলাম মজুমদার র‍্যাব এর হাতে ইয়াবাসহ দুইজন আটক হওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তাদেরকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
আটক ফাতেমা খাতুনের ভাই শাহাবুদ্দিন ও শ্বাশুরী জানান, মাত্র ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে সুলতান নামক প্রতিবেশী যুবক একটি তালাবন্ধ ব্রিফকেস বাড়িতে রাখতে দিয়ে চলে যায়।যেকোন সময় মোবাইল কল করলে যেখানে নিতে বলবে,সেখানে পৌছে দিতে বিনিময়ে ৫ হাজার টাকা দেওয়ার কথা বলে।কথামত ওইদিন (৪ জানুয়ারী)সন্ধ্যায় ব্রিফকেসটি নিয়ে উখিয়ার বালুখালী ব্রীজ সংলগ্ন যেতেই র‍্যাব এর হাতে আটকে যায় ফাতেমা খাতুন।উক্ত ইয়াবার প্রকৃত মালিক মোহাম্মদ সুলতান।সে পেশাদার ইয়াবা ব্যবসায়ী।তাঁর আরেক ছোট ভাই নুরুল কবির ইয়াবাসহ আটক হয়ে বর্তমানে কারাগারে রয়েছে।সুলতানের বাবা ও প্রথম স্ত্রী ব্যতিত পরিবাররের সকলেই ইয়াবা কারবারে জড়িত।সুলতানের একাধিক স্ত্রী রয়েছে।প্রথম স্ত্রীর অনুমতি ছাড়া জোসনা আকতার নামের আরেক নারীকে বিয়ে করায় পারিবারিক বিরোধ নিয়ে বান্দরবান কোর্টে মামলা করেছে প্রথম স্ত্রী।এ নিয়ে বিগত ৬/৭ মাস ধরে প্রথম স্ত্রীর সহিত বনিবনা নেই সুলতানের।সুলতান প্রতিবেশী হওয়ায় তার কথামত মাত্র ৫ হাজার টাকার লোভে ইয়াবা বহন করতে গিয়ে আটকে যায় প্রবাসীর স্ত্রী ফাতেমা খাতুন। ফাতেমার স্বামী নুরুল আমিন সৌদিআরব প্রবাসে।ফাতেমা খাতুন লোভে পড়ে জেলে।
ঘরে কন্যা সুফিয়া (১৭)উখিয়া কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী,সুমা  ৯ ম শ্রেনীর স্কুলছাত্রী,সানী ৬ ষ্ট শ্রেনীর স্কুলছাত্রী,শিশু ছেলে রিয়াদ(৬)প্রথম শ্রেনীর ছাত্র ও জিহাদ(আড়াই বছর) ‘মা’মা’মা’ বলে কেঁদে চোঁখের জল ভাসিয়ে বেড়াচ্ছে।তাদের কান্নাকাটিতে এলাকার মানুষদেরও আবেগী করে তুলছে। কেঁদে-কেঁদে দিনরাত কাটছে এই শিশুদের। ৫ শিশু আত্নীয়- স্বজন দেখলে অপলক দৃষ্টিতে শুধু চেয়ে থাকে আর বলতে শোনা যায় আমাদের “মা”কে এনে দাও।”মা”কে পুলিশ নিয়ে গেছে,এমন আবেগী কথায় যে কারো মনে নাঁড়া দিয়ে উঠে।এদিকে ফাতেমা খাতুনের পারিবারিক সদস্যরা,এলাকার মানুষ মানবিক বিবেচনায়,অবুঝ সন্তানদের দিকে থেকে জামিন পেতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তথা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের আশু পদক্ষেপ কামনা করেছেন।ছোট ৫ সন্তানের ক্রন্দনে এলাকার বাতাসও কাঁদছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*