দুর্নীতিবাজ ও বিএনপি’র প্রেতাত্মা নুরুল আজম পবনকে দ্রুত অপসারণপূর্বক বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রকে সাংস্কৃতিক প্রাণকেন্দ্রে পরিণত করতে হবে

মানববন্ধনে বক্তাদের দাবী
দুর্নীতিবাজ ও বিএনপি’র প্রেতাত্মা নুরুল আজম পবনকে দ্রুত অপসারণপূর্বক বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রকে সাংস্কৃতিক প্রাণকেন্দ্রে পরিণত করতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্র এখন দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও বিএনপি’র প্রেতাত্মা নুরুল আজম পবনের দূর্নীতি, অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতা, স্বজনপ্রীতি ও অদক্ষ ব্যবস্থাপনায় মানহীন অনুষ্ঠান সম্প্রচারের কারণে রাষ্ট্রীয় সম্পদ ক্রমাগত দুর্নীতির আখড়া এবং দর্শক-শ্রোতা শূন্য সম্প্রচার কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। অবিলম্বে দুর্নীতিবাজ বিএনপির প্রেতাত্মা নুরুল আজম পবন ও অদক্ষ কর্মকর্তাদের দ্রুত অপসারণ করে বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্র কে দুর্নীতিমুক্ত এবং দর্শক-শ্রোতাদের প্রিয় সম্প্রচার কেন্দ্রে পরিণত করতে হবে। চট্টগ্রাম নগরীর চেরাগী পাহাড় চত্বরে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, চট্টগ্রাম আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তারা এ দাবি জানান।
বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, চট্টগ্রামের উদ্যোগে আজ ২১ জানুয়ারি ২০১৯ খ্রি: সোমবার বিকাল ৪ টায় নগরীর চেরাগী মোড় চত্ত্বরে সংগঠনের সহ সভাপতি, বিশিষ্ট শিক্ষক ও প্রাবন্ধিক কবি স্বপন বড়–য়া সভাপতিত্বে বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের দুর্নীতিবাজ ও বিএনপি-জামায়াতের প্রেতাত্মা কর্মকর্তাদের দ্রুত অপসারণ ও নানা অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধের দাবিতে প্রতিবাদী মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
এ মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্র উন্নয়নে বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দায়িত্বশীল ভূমিকা নিয়ে আধুনিকায়ন, সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা এবং উন্নয়নের মাধ্যমে দর্শক-শ্রোতা নন্দিত নান্দনিক সম্প্রচার কেন্দ্র করলেও কতিপয় দুর্নীতিবাজ, সরকার বিরোধী-বিএনপি-জামায়াতের প্রেতাত্মাদের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ হতে চলেছে।
বক্তারা আরো বলেন, বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের সংশ্লিষ্ট প্রোগ্রাম ম্যানেজার নুরুল আজম পবন সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ও দুর্নীতিবাজ তারেক রহমানের একান্ত আপনজন হওয়ার পরও কিভাবে এবং কার ইঙ্গিতে দীর্ঘদিন যাবত সিটিভিতে কর্মরত অবস্থায় রয়েছে তা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার মানুষদের অবাক করেছে। বক্তারা আরো বলেন, সরকার এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিল্পীদের সম্মানী ৫০% বর্ধিত করলেও অনিয়মতান্ত্রিকভাবে অদৃশ্য আঙ্গুলির ইশারায় দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা শিল্পী সম্মানী কর্তন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুনামকে ক্ষুন্ন করার অপচেষ্টায় লিপ্ত। দ্রুত এসব দুর্নীতিবাজ ও অদক্ষ কর্মকর্তাদের অপসারণ করে বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রকে সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জ্বলপূর্বক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুনাম রক্ষার উদাত্ত আহ্বান জানান।
মানববন্ধনে বক্তারা আরো বলেন, দুর্নীতিবাজ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বঙ্গবন্ধুর গান কর্তন করার দু:সাহস দেখিয়েছে। যা জাতির জন্য অত্যন্ত দু:খজনক এবং নিন্দনীয়। এ বিষয়ে বাংলাদেশ টেলিভিশনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা তদন্ত করলেও নানা অদৃশ্য কারণে সংশ্লিষ্ট দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা স্বপদে বহাল থেকে এখনও নানা অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন।
মানববন্ধনে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা কবি জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী, রাজনীতিবিদ মো: জসিম উদ্দিন চৌধুরী, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আব্দুল মান্নান, শিল্পী অচিন্ত্য কুমার দাস, শিক্ষিকা পপি বড়–য়া, শিক্ষিকা শাহনাজ বেগম, বীমা কর্মকর্তা মোতাহারা বেগম, সাবেক সরকারি কর্মকর্তা মো: আব্দুর রাজ্জাক ভূইয়া, রতন বড়–য়া, সংগঠক ওসমান ফারুকী, তন্দ্রা দাশগুপ্তা, ডা: মো: জামাল উদ্দিন, নুসরাত জাহান, সঞ্চিতা দে, শিল্পী অভি নাথ, সাংবাদিক রোকন উদ্দিন আহমদ, কবি জান্নাতুল ফেরদৌস সোনিয়া, শিল্পী হ্যাপি গুহ, সাংবাদিক কুতুব উদ্দিন রাজু, রোজী চৌধুরী, সংগঠক বাবর মুনাফ, জেসমিন আক্তার, রাজু দে, রতন ঘোষ, মধুমিতা চৌধুরী, কাকলী দে প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*