ডুয়েট কর্মচারী ইউনিয়ন, আমাদের ব্রজলাল

ডুয়েট কর্মচারী ইউনিয়ন, আমাদের ব্রজলাল
———————-পুলক কান্তি বড়ুয়া 
ডুয়েট এর সাথে আমার সম্পর্ক আত্নিক।এই আমি কখনোই আমি হয়ে স্বপ্নবাজ পাখোয়াজ হতে পারতাম না, যদি না ডুয়েট আন্দোলন, ডুয়েট জীবন,
ডুয়েট শিক্ষা,ডুয়েট ক্রিয়া,ডুয়েট সংস্কৃতি,ধারন করতে না পারতাম।এই প্রতিসঠান আমায় যা দিয়েছে, সারা জীবন দিয়ে দিলেও এর ঋৃন। শোধ হবে না। এই প্রতিসঠানের সকল শিক্ষক,ছাত্র,কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা আমার পরম চেতনার নিবীর ভালোবাসায় লুকিয়ে থাকা অনুপম ফাগুন।গত ১৮ বছর একটি প্রতিসঠানের সাথে আমি সম্পৃক্ত থেকেছি,থাকতে পেরেছি এবং প্রতিসঠানটি আমায় মনে রেখেছে, ভালোবেসেছে এটা যে কোন মুল্যেই বাংলাদেশের ক্রমাগত রাজনৈতিক,সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক পরিবর্তন এর স্রোতধারায় বিরল বিষয়।একজন মানুষ শতভাগ পুর্ন নয়,তাকে সবাই পছন্দ করবে এটাও বাস্তব নয়। আমার খেত্রেও এর ব্যতিক্রম নয়।কিন্তু সিংহভাগ ডুয়েট পরিবারের ভালোবাসা আমি টের পাই,বুঝতে পারি।যেদিন থেকে ডুয়েট আন্দোলনের নেতা হয়েছিলাম,সেদিন থেকেই ডুয়েট কেন্দ্রিক সকল প্রতিদন্দ্বিতাপুর্ন সাংগঠনিক ও রাজনৈতিক কর্মকান্ড, আই ই বি এর প্রকৌশল রাজনীতির সাথে জড়াই নি।বরং জাতীয় পর্যায়ে ভিন্ন একটি শক্তিশালী অবস্থান তৈরি করার নিরন্তর সামাজিক,আন্তর্জাতিক ও জাতীয় পর্যায়ে ভুমিকা রেখে, ক্রিয়েটিভ” উন্নয়ন ও রাজনীতি “অর্থনৈতিক মুক্তি,চাকরি নেবো না দেবো, উদ্যোক্তা প্রকৌশলী হয়ে ডুয়েট ব্রেন্ড তৈরি করতেই পথ চলেছি।পথ কখনো সরল নয়,পথ থাকে পথের মতো, কখনো চড়াই,কখনো উৎরাই,কখনো আঁকাবাকা। পথিক তার পথ কে তার মতোই করে নে। আমিও চলেছি সেই পথে পথেই,কখনো আনন্দে কখনও বিষাদে কখনো ভালোবাসায়। আজ শেয়ার করলাম তেমনি এক ভালোবাসার ছবি।ডুয়েটের কর্মচারীরা, যাদের হাতে আমরা মা বাবা পরিবার বিহীন ডুয়েটে শিক্ষাকালীন সেবা নিয়েছিলাম।এরা সকলেই রবিন্দ্রনাথের ব্রজলাল এর মতো এক একটি চরিত্র।কেউ ড্রাইভার, কেউ পিয়ন,কেউ,সুপারভাইজার,কেউ গার্ড, কেউ গেটম্যান। এরাই ছিল আমাদের আস্রয়।এরা প্রতি বছর পিকনিক করে, এটাই সারা বছরে তাদের একমাত্র নিজস্ব বিনোদনের অংশ। প্রতি বছর এরা আমাকে নিমন্ত্রণ করে, আমি অংশ নেই, এতেই এরা খুশী।এবার স্ত্যাটাস লিখছি কারন এবার যেতে পারবো না, একুশে মেলা পরিষদের সদস্য সচিব, যাওয়ার কোন সুযোগ নেই। তাই লিখে কস্ট লাঘব।তারা দল বেধে নিতুন নির্বাচিত নেতারা রব্বানীর নেতৃত্বে এসেছিল।প্রতিবছরই ভালোবেসে কিছু না কিছু উপহার দেই,অর্থ দেই, সবি একান্ত ভালোবাসায়।যেখানে দায় নেই, সবার্থ নেই, প্র‍য়োজনও নেই,আছে মায়া।বড় মায়া।শুভ কামনা সবার জন্যে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*