পেকুয়ায় চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম, ভাইস-চেয়ারম্যান,আজিজুল হক,মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান মিনু নির্বাচিত

পেকুয়ায় চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম, ভাইস-চেয়ারম্যান,আজিজুল হক,মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান মিনু নির্বাচিত

মোঃ নাজমুল সাঈদ সোহেলকক্সবাজার প্রতিনিধি :কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন  ততৃীয় ধাপে রোববার (২৪ মার্চ) অনুষ্ঠিত হয়েছে । সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পযর্ন্ত চলে ভোট গ্রহণ। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর অবস্থানে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। নির্বাচনে সর্বশেষ ফলাফলে মোট ৪০টি ভোট কেন্দ্রে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী পেকুয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম। তিনি দোয়াত কলম প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৭২২৮ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীকে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম পেয়েছেন ১৫২৫৯ ভোট এবং অপর বিদ্রোহী প্রার্থী জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য এসএম গিয়াস উদ্দিন আনারস প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ৮৩০৬ ভোট। বিজয়ী প্রার্থীর সাথে দ্বিতীয় স্থানে থাকা নৌকা প্রতিকের মধ্যে ব্যবধান রয়েছে ১৯৬৯ ভোট। নির্বাচন চলাকালে মগনামা, টৈটং, পূর্বউজানটিয়া, শিলখালী, মেহেরনামাসহ বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে চাইলেও প্রশাসনের কঠোরতায় মুহুর্তের মধ্যেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন আইনশৃঙ্কলা বাহিনী।এছাড়াও পেকুয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন চশমা প্রতীক নিয়ে মো: আজিজুল হক ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন ফুটবল প্রতিক নিয়ে জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য নারী নেত্রী উম্মে কুলছুম মিনু।পেকুয়া উপজেলা সহকারী রিটানিং ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো.শহিদুল ইসলাম বলেন, নিরপেক্ষ ভোট আদায় সবব্যবস্থাই তারা (নির্বাচন কমিশন ও উপজেলা প্রশাসন) করেছেন। উপজেলার সবকটি কেন্দ্রেকেই ‘গুরুত্বপূর্ণ’ (ঝুঁিকপুর্ণ) ভেবেই প্রস্তুতি রাখা ছিল।এদিকে পেকুয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে অবাধ, সুষ্টু,নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা হাতে নেওয়া হয়। নির্বাচনে একজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, সাতজন ৭জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, বিশ সদস্য করে একশত সদস্য নিয়ে ৫ প্লাটুন বিজিবি ও পুলিশের ১৬৮ সদস্য দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও ৪০টি ভোট কেন্দ্রের ২৫০টি বুথে ৪ শতাধিক আনসার সদস্য নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করেন। নির্বাচন চলাকালে প্রতিটি কেন্দ্রে পুলিশের দুই সদস্য ও আানসারের টিম কাজ করেন। এছাড়া ৯ সদস্য করে তিনটি পুলিশের টিম স্ট্রাইকিং ও ১০টি মোবাইল টিম মাঠে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে ছিলেন। পেকুয়া সদর ইউনিয়ন, রাজাখালী, টেইটং, বারবাকিয়া, শীলখালী, উজানটিয়া ও মগনামাসহ সাতটি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত পেকুয়া উপজেলার মোটর ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৬ হাজার ২৮৯ জন। তন্মধ্যে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন ৪১ হাজার ভোটার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*