রাউজানে উত্তেজনা মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির অনুসারীদের গ্রেপ্তার ও তাদের আয়ের উৎস খুজতে প্রশাসনের নিকট আওয়ামীলীগের জোর দাবী

রাউজানে উত্তেজনা মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির অনুসারীদের গ্রেপ্তার ও তাদের আয়ের উৎস খুজতে প্রশাসনের নিকট আওয়ামীলীগের জোর দাবী
শাহাদাত হোসেন , রাউজান :: আওয়ামীলীগ নেতা মোজাম্মেল হকের (৪০) উপর হামলার ঘটনায় রাউজান উপজেলা জুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করতে দেখা যায় । এ হামলার ঘটনায় জড়িত মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির বিরুদ্ধে ১৯ এপ্রিল শুক্রবার সরকার দলীয় নেতা কর্মীরা মুন্সিরঘাটা দলীয় কার্যালয় সহ রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান নিয়ে প্রতিবাদ করেন । আওয়ামীলীগের পাশাপাশি সাধারণ মানুষও তাদের প্রতিবাদে সমর্থন দিতে দেখা গেছে। রাউজান থানার একাধিক পুলিশের দল রাউজানের বিভিন্ন স্থানে টহল দিতে দেখা যায়। আওয়ামী নেতা মোজাম্মেল হকের উপর হামলার ঘটনায় জড়িত মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির অনুসারীদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। হামলার ঘটনায় আরো একটি মামলা করেছে হাশরার শিকার হাফেজ মাওলানা নুরুল আবছার। রাউজানের মোহাম্মদপুর এলাকার বাসিন্দা হাফেজ মাওলানা নুরুল আবছার জানান তার উপর হমালার ঘটনার ব্যাপারে ১৩ জনকে আসামী করে রাউজান থানায় মামলা দায়ের করেছে । এ পর্যন্ত থানায় দুইটি মামলা দায়ের হয়েছে। মামলা দু”টিতে ২৪ জনকে চিহ্নিত এবং ৭০ জনকে অজ্ঞাত আসামী করা হয়েছে। এসব হামলার ঘটনায় জড়িত দুইজন গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির কর্মকর্তা রাউজানের মোহাম্মদপুর এলাকার মরহুম আনোয়ার মিয়ার পুত্র দু ভাই মোঃ মাসুদ ও আবু মোসলেম। দুজনকে গতকাল আদালতে সোর্পদ করা হয়েছে বলে পুলিশ সুত্রে জানা গেছে।
আওয়ামী লীগ নেতা মোজাম্মের হকের উপর হামলার ঘটনার প্রতিবাদে গত ১৭ এপ্রিল থেকে গত ১৮ এপ্রিল আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল করেছে । আওয়ামীলীগ, ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের সাথে রাউজানের সর্বস্তরের সাধারণ মানুষ মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। আন্দোলন কারীরা দুইটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক অবরোধ করতে দেখা যায় । চট্টগ্রাম রাঙ্গামাটি ও কাপ্তাই সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে দলীয় নেতাকর্মী ও সাধারণ জনগণ। বিক্ষোভকারীরা সড়ককে টায়ার জ্বালিয়ে মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির বিরুদ্ধে ও কাগতিয়ার ভণ্ড পীরের বিরুদ্ধে প্রকাশ্য স্লোগান দিয়ে সড়ক প্রদক্ষিণ করে । চট্টগ্রাম রাঙ্গামাটি ও কাপ্তাই সড়ক প্রায় ৬ ঘণ্টা অবরোধ করে রাখ হয়। এতে সড়ককে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেলে সাধারণ যাত্রীর গন্তব্য পৌঁছাতে কিছূটা সমস্যা সৃষ্টি হয়। সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত এই অবস্থা ছিল। সন্ধ্যা ৬টার পরে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। এই হামলার ঘটনার সাথে জড়িতদের ২৪ ঘন্টার মধ্যে গ্রেফতার পুর্বক দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি প্রদানের দাবী জানান আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী রাউজান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রাউজান পৌরসভার ২য় প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ । আওয়ামীলীগ নেতা মোজাম্মেল হকের উপর হামলাকারীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণ করার আশ্বাস দেন উপজেলা প্রশাসন। রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীম হোসেন রেজা ও রাউজান থানার ওসি কেপায়েত উল্লাহ্ এই আশ্বাস দিলে আন্দোলনকারীরা গত ১৮ এপ্রিল বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টার সময় সড়ক অবরোধ প্রত্যাহর করে নেয় । কয়েকজন সাধারণ জনগণ জানান – মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির অনুসারীরা ত্বরিকত সংগঠনের নাম ব্যবহার করে সন্ত্রাসী ও জঙ্গি কর্মকাণ্ড চালাচ্ছেন। ধ্বংস করতেছে যুব সমাজ। রাউজানে আরো অনেক ত্বরিকার মানুষ রয়েছে। এরকম সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড তাঁরা তো করছে না ।রাউজান ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন হিরু জানান – গত ১৭ এপ্রিল আওয়ামীলীগ নেতা মোজাম্মেল হক রমজান আলী হাট থেকে মোটরসাইকেল যোগে বাড়ী ফেরার পথে মনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির অনুসারী ৩০ থেকে ৪০ জন যুবক তার উপর হামলা চালায় । হামলাকারীরা হাতে লাটিসোটা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মোজাম্মেল হককে ব্যাপক মারধর করে । পরে স্থানীয় জনগণ তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে রাউজান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে নগরীর একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে । আহত মোজাম্মেল হক রাউজান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং মোহাম্মদপুর মুহিউল উলুম এতিমখানার সাধারণ সম্পাদক ও রাউজান গহিরা শান্তির দ্বীপ কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির চেয়ারম্যান। এঘটনায় বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে উপজেলা, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। ঘটনার প্রতিবাদে ঘটনার দিন রাত ৯টায় দলের পক্ষ থেকে রমজান আলী হাটে প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করা হয়েছে। এতে উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। তারা মোজাম্মেল হকের উপর হামলার ঘটনার জন্য মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির স্থানীয় অনুসারীদের দায়ী করে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেছে। আহত মোজাম্মেল হককে উদ্ধার করতে স্থানীয় এক মুক্তিযোদ্ধা ছুটে আসলে হামলা কারীরা তার উপরও হামলা চালায় । রাউজান উপজেলার মোহাম্মদপুর গ্রামের বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্বা শফিকুল আনোয়ার জানান, আহত মোজাম্মেলকে উদ্ধার করতে গেলে মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির অনুসারীরা তার উপর ও হামলা করে। রাউজান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রাউজান পৌরসভার ২য় প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ বলেন আওয়ামী লীগ নেতা
মোজাম্মেল হক, মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল আনোয়ার, হাফেজ মাওলানা নুরুল আবছার, দরিদ্র রিক্সা চালক শামশুল আলমের হামলাকারী মনিরিয়া যুব তবলীগ কমিটির অনুসারীদের গ্রেফতার করার জন্য আমরা প্রশাসনকে ২৪ ঘন্টা সময় দিয়েছে । ২৪ ঘন্টার মধ্যে দুজনকে গ্রেফতার করা হলে ও হামলার নেতৃত্বদানকারীদের পুলিশ এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি । হামলাকারীদের গ্রেফতার করতে ব্যর্থ হলে আবারো কঠোর কর্মসুচি দিতে বাধ্য হব ।
রাউজান শান্তির জনপদে পরিণত করেছে সাংসদ এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী । শান্তির জনপদ রাউজানে তরিকত্বের নাম দিয়ে কেউ সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালালে তার প্রতিরোধ করবে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা ।
গতকাল ১৯ এপ্রিল শুক্রবার বিকালে রাউজান উপজেলা সদরে হামলাকারীদের গ্রেফতারের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল করে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা । বিক্ষোভ মিছিলটি রাউজান উপজেলা সদর প্রদিক্ষনকরে । বিক্ষোভ মিছিল শেষে রাউজান মুন্সির ঘাটায় উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় সামনে প্রতিবাদ সভা করে দলীয় নেতাকর্মী রা । প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কামাল উদ্দিন আহম্মদ, সহ সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সম্পাদক রাউজান পৌরসভার প্যানেল মেয়র বশির উদ্দিন খান, আওয়ামী লীগ নেতা কাজী ইকবাল, জসিম উদ্দিন চৌধুরী, নজুরুল ইসলাম চৌধুরী, শওকত হাসান চৌধুরী, রাউজান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রাউজান পৌরসভার প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ, উপজেলা যুবলীগের সহ সভাপতি সুমন দে, চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন হিরু । মুনিরীয়ার অনৈতিক কর্মকান্ড ও মোজাম্মেল হককে পিটিয়ে হত্যা চেষ্টায় আন্দোলন কারীদের পক্ষের মুখপাত্র ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি জমির উদ্দিন পারভেজ দলীয় কার্যালয়ে সন্ধ্যায় প্রতিবাদ সভায় সাংবাদিকদের জানান রাউজানে বিভিন্ন ত্বরিকত রয়েছে।কিন্তুু মুনিরীয়া কমিটির সন্ত্রাসী কর্মকান্ড বন্ধ করারর জন্য আমাদের আন্দোলন।তিনি বলেন মুনিরীয়াদের দখলে থাকা অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও তাদের আয়ের উৎস খুজে বের করতে প্রশাসনের নিকট জোর দাবী জানাচ্ছি।নাহলে আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্য প্রশাসন ব্যাবস্থা না নিলে আমরা কঠোর থেকে কঠোরত আন্দোলন করে মুনিরীয়াদের উৎখাৎ করতে বাধ্য হব।তিনি বলেন সাধারন মানুষ শান্তি চায়। রাউজান উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি আনোয়ার ইসলাম বলেন- মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির প্রতিষ্ঠাতা একসময় রাজাকার ছিল। আজকে তার মুনিরীয়া যুব তবলীগ ত্বরিকত সংগঠন নাম দেন। ত্বরিকত সংগঠনের নাম দিয়ে গড়ে তুলছে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসীর আস্তানা। রাউজান থানার ওসি কেপায়েত উল্লাহ বলেন,আওয়ামী লীগ নেতা মোজাম্মেল হকের উপর হামলার ঘটনায় জড়িত দুজনকে গ্রেফতার করে আদালতে সোর্পদ করা হয়েছে । হামলার ঘটনার সাথে জড়িত অপর আসামীদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশ প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে । হাফেজ মাওলানা নুরুল আবছারের উপর হামলার ঘটনায় হাফেজ মাওলানা নুরুল আবছার বাদী হয়ে রাউজান থানায় গত ১৮ এপ্রিল বৃহস্পতিবার রাতে মুনিরিয়া যুব তবলীগ কমিটির অনুসারীদের আসামী করে মামলা দায়ের করে । এবিষয়ে রাউজান থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই নুরুন্নবী জানান- আওয়ামীলীগ নেতা উপর হামলার ঘটরার মুনিরীয়া অনুসারী গ্রেফতার করার জন্য রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে ।
তিনি আরো জানান- রাউজান থানায় একের পর এক মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির অনুসারীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আসতেছে। রাউজান পৌরসভার প্যানেল মেয়র আলহাজ্ব বশির উদ্দিন খান বলেন- রাউজান শান্তির জানপদ। রাউজান শান্তির জনপদে পরিণত করেছে সাংসদ এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী । শান্তির জনপদ রাউজানে ত্বরিকতের নাম দিয়ে কেউ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে অশান্তি সৃষ্টি করে তার প্রতিরোধ কারা হবে। আওয়ামীলীগ নেতা মোজাম্মেল হকের উপর হামলার ঘটনায় জড়িত মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির অনুসারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানান তিনি। হামলার ঘটনায় জড়িত মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির অনুসারীদের বিরুদ্ধে প্রশাসন কোন ব্যবস্থা না নিলে আরো কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*