বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রচিত গান কাটা মানে মুক্তিযুদ্ধ ও জাতির পিতাকে অবমাননা করা

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রচিত গান কাটা মানে মুক্তিযুদ্ধ ও জাতির পিতাকে অবমাননা করা
নিজস্ব প্রতিবেদক:- বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের জেনারেল ম্যানাজার নিতাই কুমার ভট্টচার্য্য ও কতিপয় কর্মকর্তাদের বিভিন্ন অনিয়ম স্বজনপ্রীতি নিয়ে ্আওয়ামীলীগ মনা চট্টগ্রামের সর্বস্থরের কবি, শিল্পী, গীতিকার ও সংগীত পরিচালকদের সমন্বয়ে গঠিত বাংলাদেশ বেতার, টেলিভিশন ও মঞ্চ সাংস্কৃতিক পরিষদ, চট্টগ্রাম এর উদ্যোগে প্রতিবাদ সম্প্রতি বীর মুক্তিযোদ্ধা, লোক ও গণসংগীত শিল্পী যদু গোপাল বৈষ্ণবের সভাপতিত্বে নগরীর মোমিন রোডস্থ কদমমোবারক এম. ওয়াই উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় বক্তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তথ্যমন্ত্রী গণমাধ্যম বান্ধব। বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের উন্নয়নেও বর্তমান সরকার অনেক কাজ করছেন। সম্প্রতি চট্টগ্রাম কেন্দ্র ৯ ঘন্টা সম্প্রচার হওয়ায় চট্টগ্রামের আওয়ামীমনা সাংস্কৃতিক কর্মীরা আশান্বিত হলেও অদক্ষ জিএম নিতাই কুমার ভট্টচার্য্য বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রে যোগদানের পর থেকে বিভিন্ অনিয়ম,দূণীতি ও অব্যবস্থাপনার কারনে চট্টগ্রামবাসীর স্বপ্ন ভেস্তে যাচ্ছে। এর ফলে ক্রমাগতভাবে বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্র দশর্কস্রোতা শূন্য সম্প্রচার কেন্দ্রে পরিণত হতে চলেছে। বক্তারা আরো বলেন, ২০১৮ সালের ১৩ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রচিত গান কেটে জাতির পিতাকে অবমাননা করেছে যে প্রযোজক তার কাছ থেকে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা নিয়ে তাকে রক্ষা করার জন্য জিএম নিতাই কুমার ভট্টচার্য্য ও তার পিএ সাইফুল ও সুকুমার বিটিভি মহাপরিচালকের দপ্তরে দেন দরবার চালিয়ে যাচ্ছেন। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রচিত গান কাটার দু:সাহস দেখিয়ে জাতির পিতাকে যেমন অবমাননা করা হয়েছে তেমনি মুক্তিযুদ্ধকে অবমাননা করা হয়েছে। এদিকে জেনারেল ম্যানাজার নিতাই কুমার ভট্টচার্য্যসহ সকল অপরাধ সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় গত ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ রাত ৮ টার সংবাদের পর প্রয়াতশিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাকে নিয়ে বিনোদন দুনিয়া নামক অনুষ্ঠানে বিএনপির দলীয় সংগীত আমার প্রথম বাংলাদেশ ও আমার শেষ বাংলাদেশ গানটি প্রচার করা হয়। প্রয়াতশিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লার অনেক গান থাকার পরও তথ্য মন্ত্রণালয় ও বিটিভি কর্তৃক নিষিদ্ধ বিএনপির দলীয় গান প্রচার করায় আওয়ামীমনা সাংস্কৃতিক কর্মীদের ব্যাথিত ও হতাশ করে। উক্ত গানটি বিটিভির মনিটরিং সেলে সংরক্ষিত থাকায় নিজেদের অপরাধ ডাকতে দূর্ণীতিবাজ কর্মকর্তারা গানটি মুছে ফেলতে অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।
আওয়ামীলীগের নাম বিক্রি করে যারা বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা গ্রহণ করছেন তারা জেনারেল ম্যানাজার নিতাই কুমার ভট্টচার্য্যসহ অপরাধ সিন্ডিকেটের এহেন কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে কোন প্রতিবাদ করেননি এবং টেলিভিশনের অনুষ্ঠানও বর্জন করেননি। জেনারেল ম্যানাজার নিতাই কুমার ভট্টচার্য্যসহ ও সিন্ডিকেট চক্রের বিরুদ্ধে প্রকৃত আওয়ামীমনা সাংস্কৃৃতিক কর্মীরা প্রতিবাদ করলে জেনারেল ম্যানাজার নিতাই কুমার ভট্টচার্য্য বিভিন্ন চক্রান্ত করে তাদেরকে টেলিভিশনের ঢুকতেও দিচ্ছেন না এবং তাদের প্রাপ্য অনুষ্ঠান থেকে বঞ্চিত করছে। সাংস্কৃতিক বান্ধব বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের ব্যাপক সাফল্য ম্লান করে দিচ্ছেন জেনারেল ম্যানাজার নিতাই কুমার ভট্টচার্য্যসহ সিন্ডিকেটচক্র। আমরা বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের জেনারেল ম্যানাজার নিতাই কুমার ভট্টচার্য্য ও কতিপয় কর্মকর্তাদের দ্রুত অপসারণের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, তথ্যমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবী জানাচ্ছি। আওয়ামীমনা সাংস্কৃতিক কর্মীদের দাবী বিটিভি চট্টগ্রাম কেন্দ্রকে জনবান্ধব সম্প্রচার কেন্দ্রে পরিণত করার জন্য মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের আওয়ামীলীগ মনা দীর্ঘদিনের অনুষ্ঠান সম্পর্কে অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ব্যক্তি যেমন বরকত উল্লাহ, রেজাউল করিম ও মনোজ সেনগুপ্তের মত জেনারেল ম্যানাজার বিটিভি চট্টগ্রাম কেন্দ্রে নিয়োগ দিলে আওয়ামীলীগ সরকারের সুনাম বৃদ্ধি পাবে। উক্ত প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও লেখক রাখাল চন্দ্র ঘোষ, চট্টগ্রাম সাহিত্য পাঠ চক্রের সভাপতি শিক্ষক বাবুল কান্তি দাশ, সংগীত পরিচালক ও কণ্ঠ শিল্পী স্বপন কুমার দাশ, কবি স্বপন বড়–য়া, বেতার ও টেলিভিশন সংগীত পরিচালক অচিন্ত কুমার দাশ, কণ্ঠশিল্পী দেবরাজ দত্ত ডেভিড, সাংবাদিক আবদুর রাজ্জাক, সংগীত শিল্পী ছবি দাশ, সংগীত শিল্পী আনন্দ প্রকৃতি, আবৃত্তি শিল্পী ফারিয়া খানম, সংগীত শিল্পী বিনা পানি চক্রবর্তী, সংগীত শিল্পী হ্যাপি দাশ, সংগীত শিল্পী রেখা বড়–য়া, সুরাজ শীল, রেজাউল করিম, লাভলী দাশ প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*