চট্টগ্রাম মহানগরীর পাহাড়তলী থানাধীন হাজী কালামিয়া বাই লেন এলাকা ২,৪৩৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব-৭

চট্টগ্রাম মহানগরীর পাহাড়তলী থানাধীন হাজী কালামিয়া বাই লেন এলাকা ২,৪৩৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব-৭

আবদুর রাজ্জাক,বিশেষ প্রতিনিধি: র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারে যে, চট্টগ্রাম মহানগরীর পাহাড়তলী থানাধীন হাজী কালামিয়া বাই লেইন, পশ্চিম নাছিরাবাদস্থ জনাব শাহেদের বাড়ির সামনে পাকা রাস্তার উপর কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে অবস্থান করছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে অদ্য ০১ জুন ২০১৯ ইং তারিখ ০৭৫০ ঘটিকা সময় র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল বর্ণিত স্থানে অভিযান পরিচালনা করলে র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে পালানোর চেষ্টাকালে আসামী নুর আলম (৩৯), পিতা- ছেরাজল হক, গ্রাম- শ্রীপুর (সাহেব বাড়ি), পোঃ- বাইশগাও, থানা- মনোহরগঞ্জ, জেলা- কুমিল্লা, বর্তমান ঠিকানা- হাজী কালামিয়া বাই লেইন, পশ্চিম নাছিরাবাদ (জনাব শাহেদের ভাড়াটিয়া), গ্রাম- পশ্চিম নাছিরাবাদ, সিএমপি চট্টগ্রাম’কে আটক করে। পরবর্তীতে উপস্থিতি সাক্ষীদের সম্মুখে আটককৃত আসামীর সাথে থাকা শপিং ব্যাগ তল্লাশী করে ২,৪৩৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধারসহ আসামীকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন মাদক চক্রের সাথে যোগসাজশে ইয়াবা ট্যাবলেট ক্রয় বিক্রয় করে আসছে। উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্যের আনুমানিক মূল্য ১২ লক্ষ ১৭ হাজার ৫০০ টাকা। গ্রেফতারকৃত আসামী এবং উদ্ধারকৃত মালামাল সংক্রান্তে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নিমিত্তে চট্টগ্রাম মহানগরীর পাহাড়তলী থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।
উল্লেখ্য,র‌্যাব প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধ এর উৎস উদ্ঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতারসহ আইন শৃংখলার সামগ্রিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। র‌্যাবের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে ধর্ষক, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী, ডাকাত, খুনি, বিপুল পরিমান অবৈধ অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার, মাদক উদ্ধার, দস্যু, ছিনতাইকারী, অপহরণকারী ও প্রতারকদের গ্রেফতারের ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করায় সাধারণ জনগনের মনে আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম ০১ জানুয়ারি ২০১৮ হতে অদ্য ০১ জুন ২০১৯ ইং তারিখ পর্যন্ত সর্বমোট ৩৯৮ টি বিভিন্ন ধরনের অস্ত্রসহ মোট ৬১ টি ম্যাগাজিন এবং ১০,৯৬৭ রাউন্ড বিভিন্ন ধরনের গুলি/কার্তুজ উদ্ধারের পাশাপাশি ৬১ লক্ষ ৪৬ হাজার ৮৫৯ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ২৭ হাজার ৯০০ বোতল ফেন্সিডিল, ৭,৫৬১ বোতল বিদেশী মদ ও বিয়ার, ০৯ লক্ষ ৮৮ হাজার ৯৪৭ লিটার দেশীয় তৈরী মদ, ১,৩২৮ কেজি ২১৬ গ্রাম গাঁজা, ০৭ কেজি ২৫০ গ্রাম আফিম এবং ০২ কেজি হেরোইন উদ্ধার করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*