বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে জনস্রোত

বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে জনস্রোত

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঈদ-উল-ফিতরের ছুটিতে শিক্ষানগরী ও উত্তরের বিভাগীয় শহর রাজশাহী এখন প্রায় ফাঁকা। ঈদের তৃতীয় দিনেও চিরচেনা প্রাণচাঞ্চল্য একেবারে অনুপস্থিত। রাজশাহী মহানগরজুড়ে এখন পুরোদমে চলছে ঈদের ছুটির আমেজ। তবে দুপুরের পরেই জমে উঠছে নগরীর বিনোদন কেন্দ্রগুলো।

ঈদের ছুটিতে অনেকটা পাল্টে গেছে কোলাহল আর যানবাহনে ঠাসা এই ছোট্ট মহানগরের চেহারা। ঈদ জামাতের পর থেকে আজও আকাশে কখন রোদ, কখনও মেঘ। এক মাস সিয়াম সাধনার পর এমন আবহাওয়ায় যোনো সব ক্লান্তি ভর করেছে রোজদারদের শরীরে। এর পরও সকাল থেকেই অনেকে ঘর থেকে বেরিয়ে পড়েছেন। এমন রোদ-বৃষ্টির মধ্যেই বিনোদন পিপাসুদের আটকানো যায়নি।

আর দুপুর গড়িয়ে বিকেলের সূর্য পশ্চিমাকাশে নামার পর থেকেই রাজশাহী মহানগরের বিনোদন স্পটগুলিতে মানুষের ঢল নেমেছে। বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে যেনো তিল ধারণের ঠাঁই নেই। ঈদের দিন বাড়িতে আত্মীয় স্বজন থাকাতে রান্নার বাড়তি চাপে যারা বেড়াতে পারেননি আজ যেন ভীড় জমিয়েছেন বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে। মিলেমিশে ঈদ আনন্দ উপভোগের জন্য সবাই একযোগে বেরিয়ে পড়েছেন। আর তাই রিকশার মহানগরে বেড়ানোর অন্যতম বাহন চার্জার রিকশার কদর এখন তুঙ্গে।

এই সুযোগে রিকশা ও অটোরিকশা চালকরা মানুষের কাছ থেকে দ্বিগুণেরও বেশি ভাড়া হাঁকাচ্ছেন। তবে আজ সেই যানজট কারও দুর্ভোগের কারণ হয়নি। ঈদের দ্বিতীয় দিনে মহানগরের শহীদ কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানা, শহীদ জিয়া শিশু পার্ক, আই ও টি-বাঁধ, বড়কুঠি, শিমলা পার্ক, পদ্মা গার্ডেন, ভাদ্রা পার্কসহ বিভিন্ন বিনোদন স্পট বিনোদন পিপাসুদের কোলাহলে মুখরিত হয়ে উঠেছে। ভ্রাতৃত্ব আর সৌহার্দের বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে সবাই প্রাণভরে উপভোগ করেছেন ঈদের খুশি, ঈদের অনাবিল আনন্দ।

বিনোদন পিপাসুদের ঈদের বাড়তি আনন্দের মাত্রা বৃদ্ধি করে চলেছে সেলফি। বন্ধু-বান্ধব ও পরিচিত এবং শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিদের পেলেই স্মৃতির ফ্রেমে অনবদ্ধ করে রাখতে চাইছেন তারা। এমনকি বিনোদন স্পটে মা-বাবা ভাই-বোনদেরসহ দম্পতিরাও অংশ নিচ্ছেন সেলফিতে। আর টিন এজের তরুন-তরুনীরা তো আরো একধাপ এগিয়ে।

নওহাটা থেকে রাজশাহীর শহীদ জিয়া শিশু পার্কে বেড়াতে আসা সাইদুর রহমান ও সীমা বেগম দম্পতি বলেন, তারা একজন গৃহিনী ও ব্যবসায়ী। তাই ইট-পাথরের নগরজীবনে শিশুদের একটু বিনোদন দিতে আজ বিকেলে পার্কে আসা। তাদের ৪ বছরের শিশুকন্যা মহিমা ও পাঁচ বছরের ছেলে সিয়াম এতে বেজায় খুশি। দু’জনেই মজা করছে বিভিন্ন রাইডে। তাদের মত পার্কে আসা অনেক বাবা-মা’র ঈদ আনন্দের একই প্রায় অনুভূতি।

এদিকে শহীদ কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানায় বেড়াতে এসেছেন চাকুরীজীবি শহিদুল ইসলাম দম্পতি। বৌয়ের সঙ্গে এবারে ঈদ করছেন শ্বশুর বাড়িতে। শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘গতবছর এই নগরীতে আমার বিয়ে হয়েছে। গত ঈদে নিজবাড়ি নওগাঁর আত্রাইয়ের কুলা কাসুন্দাতে ঈদ করেছি। এবারে রাজশাহী নগরীতে ঈদ করছি। এই সুযোগে নগরীর স্পটগুলো ঘুরে ঘুরে দেখাও হচ্ছে আবার তার আবদার ও মনের ইচ্ছাপূরণ হচ্ছে। সব মিলিয়ে ঈদের আনন্দ উপভোগ করছি’।
অপরদিকে পদ্মার পাড় টি-বাধে কথা হয় জেলার মোহনপুর উপজেলার মৌগাছি এলাকার আরিফ দম্পতির সাথে। আরিফ’র বয়স প্রায় ষাট বছর। তিনি বলেন,‘আমার ছেলে ও বৌ ঢাকার বাসিন্দা। ছেলে ও ছেলে এবং নাতি-নাকতি আমাদের সাথে প্রায় ঈদ করে থাকে। নাতি-নাততির আবদার মেটাতে এখানে আসা। তবে তাদের সাথে আমরা বুড়ো-বুড়িও একটু আনন্দ পেতেই এসেছি’।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*