দুদকের অর্থায়নে যশোরের শার্শায় ৭৬ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিতর্ক,রচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত

দুদকের অর্থায়নে যশোরের শার্শায় ৭৬ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিতর্ক,রচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত

মোঃ আয়ুব হোসেন পক্ষী,বেনাপোল(যশোর)প্রতিনিধি: দুর্ণীতির বিরুদ্ধে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রাথমিক পর্যায়ে স্কুল,কলেজ এবং মাদ্রাসাগুলোয় ব্যাপক কর্মসুচী গ্রহন করেছে দুর্ণীতি দমন কমিশন(দুদক)। এ পর্যায়ে দুদকের যশোর জেলা সমন্বয় কর্তৃপক্ষ শার্শা উপজেলার ৭৬ টি স্কুল,কলেজ এবং মাদ্রাসাগুলোয় শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিতর্ক,রচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান প্রতিযোগীতার কর্মসুচী চালু করেছে। ৯/৭/২০১৯ ইং হতে ১১/৭/২০১৯ ইং ৩(তিন) দিন ব্যাপী এ সব কর্মসুচী চলবে। এ সকল কর্মসুচীতে অংশ নিতে বুধবার(১০/৭/২০১৯ ইং) তারিখ সকাল ১০ টায় শার্শা উপজেলায় এসে পৌছান দুর্ণীতি দমন কমিশন(দুদক) যশোর জেলা সমন্বয়কারী উপ-পরিচালক নাজমুচ্ছায়াদাত এবং তার সাথে ছিলেন জেলা উপ-পরিদর্শক মনিরুল ইসলাম।জেলা সমন্বয়কারী কর্মকর্তা শার্শা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা পুলক কুমার মন্ডল কে সাথে করে নাভারন বুরুজবাগান পাইলট বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কর্মসুচীতে অংশ নেন। সেখানে তারা ঐ স্কুলের প্রধান শিক্ষক মমিনুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে দুদক সম্পর্কিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন। পরে শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিতর্ক,রচনা ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগীতা উপভোগ করেন। বিতকের মুল বিষয় নির্ধারন করা হয় “দুর্ণীতি উন্নয়নের একমাত্র অন্তরায়”। এতে পক্ষে বক্তব্য উপস্থাপন করে নিবেদিতা পাল তুলি(দলনায়ক),সুমাইয়া খাতুন এবং সুমাইয়া আক্তার মীম।এর বিপক্ষে বক্তব্য দেয় অমি রহমান স্মৃতি(দলনায়ক), প্রমী এবং নাজনীন।এরা সকলই ঐ স্কুলের ৮ম এবং১০ম শ্রেনীর শিক্ষার্থী। প্রতিপাদ্যের পক্ষে থাকা দলীয়দেরকে বিজীত বলে ঘোষনা দেন বিচারক মন্ডলী। পরে প্রতিযোগীদের মধ্যে পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। (উল্লেখ্য, পুরস্কার সামগ্রী এবং অনুষ্ঠান পরিচালনার ব্যায়ভারের অর্থ দুর্ণীতি দমন কমিশন ইতোপূর্বে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্য ভ্যাটসহ সর্বমোট ৪১০০(চার হাজার একশত) টাকা করে নগদ অর্থ নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে ঐ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষকের নিকট প্রদান করে)। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব আজগার আলী এবং ঐ স্কুলের শিক্ষক -শিক্ষিকাবৃন্দ,দুর্ণীতি প্রতিরোধ কমিটি,শার্শা উপজেলার সাধারন সম্পাদক আক্তারুজ্জামান লিটু এবং সীমান্ত প্রেসক্লাব বেনাপোলের সভাপতি মোঃ সাহিদুল ইসলাম শাহীন,সাধারন সম্পাদক আয়ুব হোসেন পক্ষী,প্রচার সম্পাদক রাসেল ইসলাম,দপ্তর সম্পাদক আরিফুল ইসলাম,সহ-দপ্তর সম্পাদক লোকমান হোসেন রাসেল,সদস্য সবুজ মাহমুদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*