মিনার উদ্দেশ্যে হাজ্বীরা তাবুক যাত্রা বিশ্বের ১২০-টি দেশের প্রায় ১৭ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসলির অংশগ্রহণে হজ্বের অানুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু আজ

মিনার উদ্দেশ্যে হাজ্বীরা তাবুক যাত্রা বিশ্বের ১২০-টি দেশের প্রায় ১৭ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসলির অংশগ্রহণে হজ্বের অানুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু আজ

খলিল চৌধুরী, সৌদিআরব চলিত বছরে মুসলিম বিশ্বের ১২০-টি দেশের প্রায় ১৭ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসলির অংশগ্রহণে হজ্বের মূল আআনুষ্টানিক কার্যক্রম শুরু হচ্ছে আজ। হজ্বযাত্রী পবিত্র হজ পালন করতে সৌদি আরবের পবিত্র মক্কা থেকে মিনার উদ্দেশে রওনা হচ্ছেন। এবার হজ পালন করতে মক্কায় পৌঁছেছেন সারা বিশ্বের ১২০-টি দেশ থেকে আসা ১৭ লাখ হাজি। সৌদি আরবের সরকারি প্রেস এজেন্সি গত মঙ্গলবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। মক্কার মসজিদুল হারাম থেকে প্রায় নয় কিলোমিটার দূরে মিনা। মিনায় কেউ যাবেন গাড়িতে, কেউবা হেঁটে। প্রত্যেক হজযাত্রীকে নিজ নিজ মোয়াল্লেম কার্যালয় থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, কখন মিনার উদ্দেশে রওনা দেওয়া হবে। একই সঙ্গে দেওয়া হয়েছে মিনার তাঁবু নম্বরসংবলিত কার্ড। ওই কার্ড সব সময় গলায় ঝুলিয়ে রাখতে হয়। একইভাবে মিনা, মুজদালিফা, আরাফাত কীভাবে কখন রওনা হবেন, তা-ও জানিয়ে দেওয়া হয় আগেভাগে। মক্কার আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, হজের সময় মক্কার তাপমাত্রা ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াস হতে পারে। আর্দ্রতা থাকবে ৮৫ শতাংশ। আকাশ আংশিক মেঘলা থাকতে পারে। হজের সময় মিনার সব রাস্তায় যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় জামারাত থেকে দূরে তাঁবু পাওয়া হাজিরা, বিশেষ করে যাঁরা বৃদ্ধ ও শারীরিকভাবে দুর্বল, তাঁরা অসুবিধায় পড়েন। কারণ, তাঁদের দীর্ঘ পথ হাঁটতে হয়। হাঁটার সময় কেউ কেউ পথও হারিয়ে ফেলেন। এ ছাড়া তাঁবুগুলো দেখতে এক রকম হওয়ায় এবং এগুলোয় আরবিতে নম্বর যুক্ত থাকায় অনেকে নিজ তাঁবু চিনতে সমস্যায় পড়েন। তবে মিনার মানচিত্র সঙ্গে থাকলে হারানোর ভয় নেই। হাজিরা ৮ জিলহজ (শুক্রবার) মিনায় সারা দিন থাকবেন। ৯ জিলহজ (শনিবার) ফজরের নামাজ আদায় করে প্রায় ১৪ কিলোমিটার দূরে আরাফাতের ময়দানে সূর্যাস্ত পর্যন্ত অবস্থান করবেন। আরাফাত থেকে প্রায় আট কিলোমিটার দূরে মুজদালিফায় রাতযাপন ও পাথর সংগ্রহ করবেন হাজিরা। ১০ জিলহজ (রোববার) ফজরের নামাজ আদায় করে মুজদালিফা থেকে আবার মিনায় ফিরে আসবেন তারা। মিনায় এসে বড় জামারাকে কঙ্কর নিক্ষেপ, কোরবানি ও মাথা মুণ্ডন বা চুল ছেঁটে স্বাভাবিক পোশাকে মক্কায় কাবা শরিফ তাওয়াফ করবেন। তাওয়াফ, সাই শেষে মিনায় ফিরে গিয়ে ১১ (সোমবার) ও ১২ জিলহজ (মঙ্গলবার) অবস্থান ও প্রতিদিন তিনটি শয়তানকে পাথর নিক্ষেপ করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*