ছেলে-পুত্রবধূর অত্যাচার- নির্যাতনের প্রতি এক বৃদ্ধ মায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে রাউজানে

ছেলে-পুত্রবধূর অত্যাচার- নির্যাতনের প্রতি এক বৃদ্ধ মায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে রাউজানে

শাহাদাত হোসেন , রাউজান প্রতিনিধি : রাউজান পৌর এলাকায় অবহেলিত ৭০ বৎসর বয়সের এক বৃদ্ধ মায়ের প্রতি ছেলে ও পুত্রবধূ , নাতি, ছেলের শ্যালকের অত্যাচার- নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে । অবহেলিত সে বৃদ্ধ মায়ের অভিযোগ তার বড় পুত্র বিপ্লব দে তাকে খোরপোষ না দিয়ে বউয়ের কথা ধরে অত্যাচার- নির্যাতন করেন । নির্যাতনের শিকার বৃদ্ধা গীতা দে” এখন বাধ্যকজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে স্বামীর ঘরে মানবতার জীবন যাপন করছেন ।
বৃদ্ধা গীতা দে (৭০) রাউজান পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডের সুলতানপুর কালিকুমার সওদাগরের বাড়ীর মৃত হরিলাল দে”র স্ত্রী । গীতা দে” জানান, তার দু” ছেলে ও দু” কন্যা সন্তান রয়েছে। দু “ছেলে মধ্যে বিপ্লব দে ও বিকাশ দে। দু” কন্যা সন্তানদের বিবাহ দিয়ে তার দু”ছেলের জন্য ঘরে বউ নিয়ে আসেন । দু”ছেলে সন্তান বিয়ে করে আলাদা হয়ে সংসার করছে । বৃদ্ধা গীতা দে তার স্বামীর ঘরে ছোট ছেলে বিকাশ দে”র সঙ্গে থাকেন ।
বড় ছেলে বিপ্লব দে ও তার স্ত্রী চুমকি দে, নাতি ঋতিক দে এবং বিপ্লব দে”র শ্যালক পল্লব চৌধুরী একজোট হয়ে ৭০ বৎসরের বৃদ্ধ মা গীতা দে”কে মারধর করে শারিরিক ও মানসিক ভাবে অত্যাচার – নির্যাতন করে আসছে। কোন ভরণপোষণও দেয়না তার আপন পুত্র বিপ্লব দে। ভরণপোষণ দাবী করলে তার পুত্র বিপ্লব দে ও তার স্ত্রী, নাতি, বিপ্লবের শ্যালকসহ নির্যাতন করে বলে অভিযোগ করে বৃদ্ধা গীতা দে । এসব নির্যাতনের শিকার থেকে রক্ষা ও বিল্পব দে”র কাছে থেকে খোরপোষ পাওয়ার জন্য স্থানীয় কাউন্সিলর শওকত হাসান ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের বিচার প্রার্থনা করে । তারা সালিশ বিচার ও বৈঠক করে বৃদ্ধা গীতা দে” র সঙ্গে কোন ধরণের খারাপ আচরণ ও নির্যাতন করিবেনা। প্রতিমাসে বৃদ্ধা মা গীতা দে”কে ১হাজার ৫শত টাকা খোরপোষ বাবদ বিপ্লব দে প্রদান করিবে বলে অঙ্গিকার করেন। সালিশ বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেন তারা। সিদ্ধান্ত মেনে বিপ্লব দে তার মাতা বৃদ্ধা গীতা দে”কে খোরপোষ টাকা দেয়নি বলে জানান তিনি। সালিশ – বৈঠকের রায় দেয়া খোরপোষ টাকা চাইলে বিপ্লব দে ও তার স্ত্রী খোরপোষের টাকা না দিয়ে সবাই মিলে নির্যাতন করে আসছেন বলে ৭০ বৎসর বয়সের বৃদ্বা গীতা দে অভিযোগ করেন ।
এসব নির্যাতন সহ্য না পেরে শেষে বয়সের বৃদ্ধা গীতা দে গত ১২ জানুয়ারী বিপ্লব দে ও তার স্ত্রী চুমকি দে, নাতি ঋতিক দে, বিপ্লবের শ্যালক পল্লব চৌধুরীকে বিবাদী করে রাউজান থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেন । অভিযোগ দেয়া পর রাউজান থানার ওসি কেপায়েত উল্লাহ বিপ্লব দে ও তার স্ত্রী চুমকি দে, নাতি ঋতিক দে, বিপ্লবের শ্যালক পল্লব চৌধুরীকে ডেকে নিয়ে এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে সালিশি বৈঠক করে।
সালিশি বৈঠকে পুনারায় সিদ্ধতা নেন, বিপ্লব দে তার মাতা বৃদ্ধা গীতা দে”র ভরনপোষন বাবদ প্রতি মাসে ১ হাজার ৫শত টাকা প্রদান করিবে ও তার সাথে কোন খারাপ আচরণ করিবেনা মর্মে অঙ্গিকার নামা প্রদান করে । গীতা দে” মাসিক খোরপোষের টাকা বিপ্লব দে”র কাছে চাইলে প্রতিনিয়ত শারিরিক মানসিক নির্যাতন করে বলে জানান বৃদ্ধা গীতা দে।
বৃদ্ধা গীতা দে”র ছোট সন্তান বিকাশ দে জানান , আমার বড় ভাই বিপ্লব দে”র কাছে টাকা থাকার পরও মায়ের ভরণ পোষনের খখরচ দেয়না । মাকে প্রতিনিয়ত বিপ্লব দে ও তার স্ত্রী চুমকিদে সহ সবাই মিলে শারিরিক ও মানসিক ভাবে নির্যাতন করছে ।
বিকাশ দে ক্ষোভের সাথে বলেন আমার সামনে আমার গভধারিনি মাতা গীতা দে”কে আমার বড় ভাইয়ের স্ত্রী চুমকি চুলে ধরে মারধর করলে ও আমি চুমকি দে”কে কিছু করতে বাধা দিতে পারিনা। আমি আমার মাতাকে মারধর করার সময়ে বাধা দিতে গেলে আমি বৌদি চুমকি দে”কে মারধর ও শ্লীলতাহানি করেছি বলে মিথ্যা অভিযোগ এনে আমার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নিয়ার্তন আইনে মামলা করার ভয় দেখায় । বর্তামান বৃদ্ধা গীতা দে তার ছোট ছেলে বিকাশ দে”র সাথে থাকেন। বিকাশ দে, চট্টগ্রাম রাঙামাটি সড়কের পাশে রাউজান কুণ্ডেশ্বরী যাত্রী ছাউনিস্থ বিকাশ ষ্টোর নামে একটি কুলিং কর্ণারের দোকান করে। দোকানের যে টাকা আয় হয় ,তা দিয়ে তার সংসার চলে। এরমধ্যে তার বৃদ্ধ মাতা গীতা দে”কে লালন পালন করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*