গোয়াইনঘাটে কৃষকের ছন্দবেশে অস্ত্র ব্যবসা ;রিভলবারসহ আটক ১

গোয়াইনঘাটে কৃষকের ছন্দবেশে অস্ত্র ব্যবসা ;রিভলবারসহ আটক ১

গোয়াইনঘাট প্রতিনিধি : সিলেটের গোয়াইনঘাট। ভারতীয় সীমান্ত এলাকার একদম কাছের উপজেলা। ওই উপজেলায় সপ্তাহে একদিন বসে ‘সীমান্ত হাট’। সেই হাটকেই অবৈধ অস্ত্রের নিরাপদ আস্তানা বানিয়েছিল অস্ত্র ব্যবসায়ীরা। ফলে প্রতিনিয়ত অস্ত্র ব্যবসায়ীরা অবৈধ অস্ত্র ক্রয় বিক্রয় করে নিরাপদ রুট হিসেবে ব্যবহার করে আসছিল সিলেট সীমান্তের বিভিন্ন রুট। তাই সহজেই পৌছে যেত এসকল অবৈধ অস্ত্র সন্ত্রসীদের হাতে। যা দিয়ে সিলেটসহ সারাদেশে অপরাধমূলক কর্মকান্ড চালিয়েছে সন্ত্রাসীরা।

সীমান্ত দিয়ে অস্ত্রের চালান এনে ব্যবসা করতেন আরব আলী। সেই আরব আলীকে দুটি রিভলবার সহ গ্রেফতার করেছে গোয়াইনঘাট থানা পুলিশ। এর আগে আরব আলীর দুই সহযোগী গ্রেফতার হয় ঢাকায়। গ্রেফতারের সময় তাদের কাছ থেকেও অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। আর তাদের ভাষ্য অনুযায়ি অস্ত্র চালানের মূল হোতা হিসেবে নাম উঠে আসে আরব আলীর।

আরব আলীর বিষয়ে এলাকায় জানতে গিয়ে পাওয়া গেল অস্ত্র ব্যবসার অজানা অনেক তথ্য। যা সংবাদটি পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

একজন পেশাদার অস্ত্র ব্যবসায়ী হয়েও লোকচক্ষুর আড়ালে থেকে অনেকটা সাদামাটা জীবন ধারণ করতেন আরব আলী। নিজ এলাকায় কৃষক হিসেবে পরিচিত আরব আলীর চলাফেরায় কখনো কারও বিন্দুমাত্র সন্দেহ জাগেনি তার প্রতি। যে কারণে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারিরও বাইরে ছিলেন তিনি।

অথচ অবৈধ পথে বিছনাকান্দি সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে অস্ত্র সংগ্রহ করে তা দেশের অভ্যন্তের সন্ত্রাসীদের কাছে পৌঁছে দেয়ার নেপথ্যে নায়ক ছিলেন এই আরব আলী।

গত ৫ সেপ্টেম্বর সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার বিছনাকান্দি সীমান্তের এই রুটের অস্ত্র কারবারিদের মধ্যে তিনজনকে যাত্রাবাড়ী থেকে গ্রেফতার করে কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট (সিটিটিসি)।

আটককৃতরা হলেন, আব্দুল শহীদ, দোলন মিয়া ও আনছার মিয়া। এ সময় তাদের কাছ থেকে তিনটি অত্যাধুনিক রিভলবার উদ্ধার করা হয়। এর মধ্যে দুটি অস্ত্র পয়েন্ট ২২ ও একটি পয়েন্ট ৩১ বোরের। গ্রেফতারের পর তাদের তিনজনকে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার পর বেরিয়ে আসে অস্ত্র সরবরাহকারীদের মূল হোতা আরব আলী জড়িত থাকার পেছনের নেপথ্য কাহিনী!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*