ফান্ডের অর্থ আত্মসাৎ হারবাং হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও করনিক কারাগারে

ফান্ডের অর্থ আত্মসাৎ হারবাং হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও করনিক কারাগারে

চকরিয়া প্রতিনিধিঃ চকরিয়া উপজেলার হারবাং ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের বরখাস্তকৃত প্রধান শিক্ষক তপন কুমার ধর ও করনিক কাম শিক্ষক মনজুর আলমকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। স্কুল ফান্ডের ১১ লক্ষাধীক টাকা ভুঁয়া বিল-ভাওচার বানিয়ে আত্মসাৎ করেন ওই ২ শিক্ষক। স্কুল ম্যানেজিং কমিটির এমন অভিযোগে দায়েরকৃত মামলা প্রাথমিকভাবে প্রমানিত হলে গত ১৩ অক্টোবর শিক্ষকদ্বয়কে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন চকরিয়ার সিনিয়র জুড়িশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত। হারবাং ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি ও শিক্ষক সুত্র জানায়, চকরিয়া উপজেলার হারবাং ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তপন কুমার ধর (৫৪) ও করনিক কাম শিক্ষক মনজুর আলম (৪৫) পরস্পর যোগসাজসে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির অগোচরে ভুঁয়া বিল ভাওচার বানিয়ে বিদ্যালয় ফান্ডের ১১ লক্ষ ৯ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেন। বিষয়টি অডিটকালে কমিটির নজরে আসে। এ টাকা একাধিকবার ফেরত চাওয়ার পরও ফেরত দেননি ওই দুই আত্মসাৎ কারী। ফলে কমিটির সিদ্ধান্তক্রমে ম্যানেজিং কমিটি যথা নিয়মে তাঁদের বরখাস্ত করেন। পরে কমিটির সিদ্ধান্তক্রমে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কামাল হোছাইন বাদী হয়ে চকরিয়া উপজেলা সিনিয়র জুড়িশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে সিআর ১০২৭/১৮ নং মামলা দায়ের করেন। আদালত আত্মসাৎকারী প্রধান শিক্ষক তপন কুমার ধর (৫৪) ও করনিক কাম শিক্ষক মনজুর আলম (৪৫) এর বিরোদ্ধে সমন জারি করেন। পরে আত্মসাৎকৃত টাকা ফেরত দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে জামিনে আসেন ওই দুই শিক্ষক। কথামত প্রায় ৪ লক্ষ টাকা পরিশোধ ও করেন। কিন্তু নির্ধারিত সময়ে সম্পুর্ণ টাকা পরিশোধ না করে রোহীঙ্গা শরনার্থী শিবিরে চাকুরী নিয়ে গা ঢাকা দিয়ে গড়িমসি করতে থাকেন। বিষয়টি আদালতের দৃষ্টিগোচর হলে গত ১৩ অক্টোবর মামলার ধার্য দিনে হাজিরার দিন হাজিরা দিতে উপস্থিত হলে আদালত প্রধান শিক্ষক তপন কুমার ধর ও করনিক কাম শিক্ষক মনজুর আলমের জামিন বাতিল করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এ ব্যাপারে বাদী ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কামাল হোছাইনের সাথে আলাপ করলে তিনি জানান, হারবাং ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তপন কুমার ধর ও করনিক কাম শিক্ষক মনজুর আলম পরস্পর যোগসাজসে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির অগোচরে ভুঁয়া বিল ভাওচার বানিয়ে বিদ্যালয় ফান্ডের ১১ লক্ষ ৯ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেছেন। অডিটে প্রমান হয়ে দুই জনকেই বরখাস্ত করেছেন স্কুলের ম্যানিজিং কমিটি সহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসন। প্রায় ৪ লক্ষ টাকা পরিশোধ করে দুই জনই গা ঢাকা দিয়েছিলেন। তা জেনেই প্রধান শিক্ষক তপন কুমার ধর ও করনিক কাম শিক্ষক মনজুর আলমের বেইল বাতিল করে হাজতে পাঠিয়েছেন আদালত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*