সুপ্রিম কোর্টের ঐতিহাসিক রায় ।। ভারতে অবিবাহিত মায়েরা পাচ্ছেন সন্তানের অধিকার

image_242014.indian suprim courtআন্তর্জাতিক ডেস্ক :: এক ঐতিহাসিক রায় দিয়েছেন ভারতের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট। রায়ে বলা হয়েছে, ভারতে অবিবাহিত মায়েরাও এখন নিজের সন্তানের অভিভাবকত্বের পুরো অধিকার পাবেন। আইনিভাবে সন্তানের বাবার অনুমতি না নিয়েই এমন অধিকার পাবেন অবিবাহিত মায়েরা। এ ক্ষেত্রে বাবার সম্মতির আর কোনো দরকার হবে না।

আজ সোমবার সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি বিক্রমজিৎ সেনের বেঞ্চ এ যুগান্তকারী রায় ঘোষণা করেন। রায়ে বলা হয়েছে, এ ক্ষেত্রে মা চাইলে সন্তানের পিতৃ পরিচয়ও প্রকাশ্যে নাও আনতে পারেন। সম্প্রতি এক অবিবাহিত মা সুপ্রিম কোর্টে তাঁর সন্তানের অধিকার ফিরে পাওয়ার জন্য আবেদন করেন। ওই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতেই ভারতের সুপ্রিম কোর্ট আজ এ রায় ঘোষণা করলেন।

ভারতের হিন্দু মাইনরিটি অ্যান্ড গার্ডিয়ানশিপ অ্যাক্ট অনুযায়ী, এতদিন সন্তানের অভিভাবকত্ব পেতে বাবাদের নোটিশ দিতে হতো। তবে এখন থেকে আর সেই নোটিশ দেওয়ার প্রয়োজন পড়বে না। বিশেষত, যেসব ক্ষেত্রে অবিবাহিত মায়েরা সন্তানের বাবার পরিচয় জানাতে পারেন না, অথবা মায়েরা বাবার পরিচয় জানাতে চান না, সে ক্ষেত্রে এসব মামলা কার্যকর হবে।

উল্লেখ্য, এর আগে এক নারী সন্তানের অভিভাবকত্ব চেয়ে দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন। কিন্তু বাবার সম্মতি ছাড়া সন্তানের অভিভাবকত্ব পাওয়া সম্ভব নয় বলে ওই নারীর আবেদন খারিজ করে দেন দিল্লি হাইকোর্ট। পরে ২০১১ সালে শিশুর অভিভাবকত্বের আইনি লড়াইয়ে সংবিধিবদ্ধ পিতৃ পরিচয়ের আবশ্যকতাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন ওই নারী।

ওই নারীর আইনজীবী শীর্ষ আদালতের কাছে প্রশ্ন তোলেন, পাসপোর্টের ক্ষেত্রে পিতৃ পরিচয় জরুরি নয়, তাহলে সন্তানের অভিভাবকত্বে মায়ের অধিকার কেন স্বীকৃতি পাবে না? সুপ্রিম কোর্টে ওই নারী তাঁর আবেদনে উল্লেখ করেন, তাঁর সন্তানের বাবা এই সন্তানের কথা জানেই না। এ ক্ষেত্রে পিতৃ পরিচয় এলে উভয় পক্ষই সমস্যায় পড়বে।

ওই নারীর দাবি ছিল, শিশুটির বড় হয়ে ওঠা ও দেখভালের ক্ষেত্রে বাবা কোনো ভূমিকাই পালন করেননি। তাই বাবার পরিচয় প্রকাশ্যে না আনা তাঁর অধিকারের মধ্যেই পড়ে। এরপরই আজ সোমবার ভারতের সুপ্রিম কোর্ট এই মামলায় দিল্লি হাইকোর্টের রায়কে খারিজ করে দিয়ে এবার থেকে পিতৃ পরিচয় ছাড়া অবিবাহিত মায়েরাও সন্তানের অভিভাবক হতে পারবেন বলে যুগান্তকারী রায় ঘোষণা করলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*