১৫১ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ রেখে বাতিল বৈধ ১৩

sharif-2-768x525সিটিজি পোস্ট ডেস্ক :: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) নির্বাচনে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের প্রথম পর্যায়ে এক মেয়র প্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

বুধবার নগরীর মুসলিম ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত মেয়র, সংরক্ষিত ছয় ও সাধারণ ১৮ ওয়ার্ডের ১৬৪ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে ১৫১ জনের প্রার্থিতা বৈধ ঘোষণা করা হয়।

মেয়র পদে মোহাম্মদ ফোরকান চৌধুরীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবদুল বাতেন বলেন, আয়কর রিটার্নের কাগজ জমা না দেয়ায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়। তিনি বলেন, এক মেয়র প্রার্থীসহ সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে চার ও সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে আটজনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

রিটার্নিং কর্মকর্তা আরও বলেন, প্রার্থিতা বাতিলের বিরুদ্ধে আগামী ৩ থেকে ৬ এপ্রিলের মধ্যে বিভাগীয় কমিশনারের কাছে আপিল আবেদন করতে পারবেন তারা। ৮ এপ্রিলের মধ্যে এই আপিল নিষ্পত্তি হবে। ১০ এপ্রিল প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ হবে।

মেয়র পদে বৈধ প্রার্থীরা হলেন : বিএনপি সমর্থিত চট্টগ্রাম উন্নয়ন আন্দোলনের প্রার্থী এম মনজুর আলম, আওয়ামী লীগ সমর্থিত নাগরিক কমিটির প্রার্থী আ জ ম নাছির উদ্দিন, জাতীয় পার্টির সোলায়মান আলম শেঠ, বিএনএফের আরিফ মঈনুদ্দিন, ইসলামী ফ্রন্টের এম এ মতিন, গাজী মোহাম্মদ আলাউদ্দিন, ইসলামিক ফ্রন্টের হোসাইন মোহাম্মদ মুজিবুল হক, মো. ওয়ায়েজ হোসেন ভূঁইয়া, সৈয়দ সাজ্জাদ জোহা, সাইফুদ্দিন আহমেদ রবি, আবুল কালাম আজাদ ও শফিউল আলম। মেয়র পদে ১৮জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেও জমা দেন ১৩ জন। এরমধ্যে একজনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়। বর্তমানে মেয়র পদে রয়েছেন ১২ জন প্রার্থী।

মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে মেয়র পদে সকালে আটজনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। বাকি পাঁচজনের মনোনয়নপত্রে টুকিটাকি ত্র“টি থাকায় বিকেলের মধ্যে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র আনতে বলা হয়। এরপর চারজন কাগজপত্র জমা দেয়ার পর তাদের মনোনয়নপত্রও বৈধ বলে ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবদুল বাতেন।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, মনোনয়নপত্রে ছোট-খাটো ভুলের জন্য সময় দেয়ার বিধান ও নির্দেশনা রয়েছে। কাগজপত্র জমা দেয়ার পর তাদের বৈধ বলে গণ্য করা হয়েছে।

কাউন্সিলর পদে ১২ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এ বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবদুল বাতেন বলেন, যথাযথভাবে পূরণ না করা, আয়কর রিটার্ন দাখিল না করা এবং ঋণ খেলাপি হওয়ায় ১২ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। যাদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে, তারা আমাদের কাছ থেকে সনদ নিয়ে বিভাগীয় কমিশনার বরাবরে আপিল করতে পারবেন।

সংরক্ষিত ৫নং জাহানারা বেগম রুনার নিজের, প্রস্তাবক ও সমর্থককারীর স্বাক্ষর না করায় মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। এ ওয়ার্ডে বর্তমানে প্রার্থী রয়েছেন, নাছরীন আক্তার, মনোয়ারা বেগম মনি, সৈয়দা শাহানা আরা বেগম। সংরক্ষিত ৯ নং ওয়ার্ডের খালেদা বোরহানের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। বর্তমানে বৈধ প্রার্থীরা হলেন, ফারহানা জাবেদ, মানছুরা খাতুন, রেহানা বেগম রানু। ১৩ নং একই নামের মনোয়ারা বেগম ও মনোয়ারা বেগম নামের দুই প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। আয়কর রিটার্ন ও প্রয়োজনীয় কাগজ জমা না দেয়ার দুইজনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এ ওয়ার্ডে প্রার্থী রয়েছেন, কাওছার পারভীন, রাবেয়া বশরি বকুল, লুৎফুন্নেছা দোভাষ (বেবী), হাজি জোছনা বেগম।

সাধারণ কাউন্সিলর পদে আট প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। প্রার্থীদের মধ্যে ১২ নং ওয়ার্ডের সাবের আহমেদ তথ্যগোপন করা বাতিল করা হয়েছে। এ ওয়ার্ডে বর্তমানে প্রার্থী রয়েছেন, মো. আফসারুল আমিন, মো. খায়রুল আলম, মো. বাবুল হক, শামসুল আলম।

১৬ নং ওয়ার্ডের সাহেদুল আলম রিটার্ন দাখিল না করায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। বর্তমানে প্রার্থী রয়েছেন আশুতোষ দত্ত, কায়সার আহমদ, দিল মোহাম্মদ, মো. আবদুর রউফ, মো. জহির উদ্দিন, মোহাম্মদ নুরুল হুদা, মোহাম্মদ সেলিম রহমান, সাইয়েদ গোলাম হায়দার মিন্টু।

২৪ নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর মো. সিরাজুল ইসলাম ঋণখেলাপি হওয়ার কারণে মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এ ওয়ার্ডে বৈধ প্রার্থী রয়েছেন : আবদুল মালেক, নাজমুল হক, বেলায়েত হোসেন, মো. আবদুর রাজ্জাক, মো. জাবেদ নজরুল ইসলাম, মো. রকিব উল আমীন।

২৭ নং ওয়ার্ডে হেলাল উদ্দিন ও নুর আহমেদ মিঠু দুই প্রার্থী ঋণখেলাপি ও আয়কর রিটার্ন জমা না দেয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। বর্তমানে এ ওয়ার্ডে প্রার্থী রয়েছেন : এ বি এম মাছুম আহম্মদ, এইচ এম সোহেল, এসএম জাকির হোসেন, মো. মহিউদ্দিন, মোহাম্মদ সেকান্দর।

৩২নং ওয়ার্ডে মো. আসলাম প্রস্তাবককারী ও সমর্থনকারীর স্বাক্ষর না দেয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এ ওয়ার্ডে প্রার্থী রয়েছেন, জহরলাল হাজারী, আশীষ ভট্টাচার্য্য, মো. শহিদ হোসেন, মো. হেলাল উদ্দিন।

৩৯ নং ওয়ার্ডে সরফরাজ কাদের ঋণখেলাপির কারণে মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এ ওয়ার্ডে বৈধ প্রার্থী রয়েছেন : জিয়াউল হক সুমন, আবদুল মান্নান, মো. আসলাম, বেলাল মৃধা, মো. আমির হোসেন, মিজানুর রহমান।

৪১ নং ওয়ার্ডে মো. তাজউদ্দিনের টিআইএন (কর শনাক্তকরণ নং) জমা না দেয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এ ওয়ার্ডে বর্তমানে প্রার্থী রয়েছেন : আবদুল গফুর, ছালেহ আহম্মদ চৌধুরী, জাহিদা আকতার, মু. আবদুর রহিম, মো. আলী, মো. নুরুল আবছার, মো. নুরুল হুদা, মো. ফজল করিম, মো. ইসমাইল হোসেন, মোহাম্মদ নুরুল আনোয়ার।

উল্লেখ্য, সিটি করপোরেশন নির্বাচনে লড়তে এবার মেয়র পদে ১৩ জন, সাধারণ কাউন্সিল পদে ২৮৮ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৭১ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। গতকাল সংরক্ষিত কাউন্সিলর ওয়ার্ডের ৫,৭, ৯, ১২, ১৩ ও ১৪ নং ছয়টি ওয়ার্ডের প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১২, ১৪, ১৫, ১৬, ২০, ২১, ২৩, ২৪, ২৭, ৩২, ৩৩, ৩৪, ৩৫, ৩৭, ৩৮, ৩৯, ৪০ ও ৪১ নং ১৮ ওয়ার্ডের প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই কার্যক্রম করা হয়। অন্য ওয়ার্ডের প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই কার্যক্রম আজ বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*