সবার প্রিয় শফিকুলের প্রত্যাবর্তনে যুবলীগে প্রাণচাঞ্চল্য

সবার প্রিয় শফিকুলের প্রত্যাবর্তনে যুবলীগে প্রাণচাঞ্চল্য
আলিফ হোসেন, তানোর ;; রাজশাহীর গোদাগাড়ী আওয়ামী যুবলীগের (সাবেক) সভাপতি, বজ্রকন্ঠের অধিকারী বর্ষিয়ান যুবলীগ নেতা, রাজশাহী অঞ্চলের শ্রেষ্ঠ বক্তা ও সবার প্রিয় শফিকুল সরকার দীর্ঘদিন পরে আবারো রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ায় যুবলীগের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে রীতিমতো বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ ফিরে এসেছে প্রাণচাঞ্চল্য। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময়ে তাকে নানা প্রলোভন দিয়েও তারা দলে ভেড়াতে ব্যর্থ হয়ে ত্যাগী ও নিবেদিতপ্রাণ এই যুকলীগ নেতার জেল-জুলুস-মামলা-হামলাসহ নানা নির্যাতন করেছেন। কিšত্ত বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত এই নেতা কখনই আদর্শচ্যুত হয়নি, ছেড়ে যায়নি আওয়ামী লীগ। তবে তিনি ব্যক্তিগত কারণে দীর্ঘদিন রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন না। কিšত্ত আগামি জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে ও আওয়ামী লীগ দলীয় সাংসদ ওমর ফারুক চৌধূরীকে আবারো বিজয়ী করার লক্ষ্য নিয়ে রাজনীতিতে সক্রিয় হয়েছেন। এদিকে রাজনীতিতে তিনি সক্রিয় হওয়ায় যুবলীগের রাজনীতিতে ফের প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে। বজ্রকন্ঠের অধিকারী শফিকুল সরকারের বক্তব্য শোনার জন্য এখানো তাঁর ভক্ত-অনুরাগি ও হাজারো মানুষ অপেক্ষায় খাকে। এখানো তাঁর বক্তব্য শুনলে মনে পড়ে যায় ৫২-এর ভাষা আন্দোলন, ৭১-এর মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধুর সেই বিখ্যাত ২৭শে মার্চের ভাষণ ও ৯০-এর গণঅভূখ্যানের কথা। এখানোর তাঁর বক্তব্য শুনে অনেক আওয়ামী লীগবিরোধী আওয়ামী লীগের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হয়। এই অঞ্চলের হাজারো মানুষ আগামি দিনে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন কর্মসূচিতে তাঁর বক্তব্য শোনার জন্য অধির অপেক্ষায় রয়েছে।
শফিকুল সরকার বলেন, রাজনীতিতে তরুণ প্রজন্মের মেধা কিভাবে কাজে লাগানো যায় আমরা সেই চেষ্টা করছি। বর্তমানে তরুণ প্রজন্ম রাজনীতির প্রতি চরম অনিহা দেখাচ্ছেন। আমরা চেষ্টা করছি কিভাবে তরুণ প্রজন্মকে আধূনিক তথ্যসমৃদ্ধ করে রাজনীতির প্রতি পজেটিভ ধারণা দেয়া যায়। সে লক্ষ্যে পূরুণের জন্য সেই পথ ধরেই এগুচ্ছি আমরা। সম্প্রতি কলমা ইউপি কার্যালয়ে এই প্রতিবেদকের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় এসব কথা বলেন শফিকুল সরকার। তিনি বলেন, এক সময় বিশেষ করে যুবলীগের নেতাকর্মীদের প্রতি এলাকার সাধারণ মানুষের নেতিবাচক ধারণা ছিল। স্থানীয় সাংসদ ও সাবেক শিল্প প্রতিমন্ত্রী ওমর ফারুক চৌধূরীর নেতৃত্বে ও দিক নির্দেশনায় আমরা চেষ্টা করছি সেই ধারণা পাল্টে দিতে, ইতিমধ্যে আমরা অনেকটা সফলও হয়েছি। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে দলীয় কর্মকান্ড কিভাবে ডিজিটালাইজড ও এই প্রজন্মের নতুন ভোটারদের আওয়ামী লীগের পক্ষে নিয়ে আশা ায় সে চিন্তা মাথায় নিয়ে গবেষণা করে যাচ্ছি। রাজনীতিতে কিভাবে পরিবর্তন আনা যায়, মেধাভিত্তিক রাজনীতি প্রচলন কিভাবে পুনরায় করা যায়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অস্ত্রের ঝনঝনানি কিভাবে বন্ধ করা যায় এবং শিক্ষাঙ্গনের অস্থিরতা কিভাবে দুর করা যায় এসব নানা বিষয়ে আমরা নতুন কিছু আবিস্কারের চেষ্টা করছি। তিনি বলেন, স্থানীয় সাংসদ ও সাবেক শিল্প প্রতিমন্ত্রী ওমর ফারুক চৌধূরী রাজনৈতিক দূরদর্শি সম্পন্ন সৃষ্টিশীল মানুষ। তিনি রাজনীতিকে অর্থের কাছে নয় বরং মেধার কাছে জিম্মি রাখতে চান। তাঁর দিক নির্দেশনায় আমরা যুবলীগের নেতাকর্মীদের সেইভাবে গড়ে তোলার কাজ করছি। শফিকুল সরকারছোটবেলা থেকেই পরিবারের সবার মূখে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু, গণতন্ত্রের মানসকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা ও মুক্তিযুদ্ধ এসব শব্দ শুনতে শুনতে বুঝতে শেখার পরপরই এ সংগঠনের প্রতি দুর্বল হয়ে পড়েন। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রানিত হয়ে তিনি আওয়ামী যুবলীগের লীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হয়ে পড়েন। তিনি বলেন, ছাত্র জীবনে ছাত্রলীগের মিছিল দেখলে নিজেকে ঠিক রাখতে পারতাম না। তিনি বলেন, সাধারণ মানুষের কল্যাণে আজীবন কাজ করে যেতে চাই। আওয়ামী লীগ সম্পর্কে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, সরকারে থাকলে সেই দলের যে পরিস্থিতি হয় আওয়ামী লীগেরও তাই হয়েছে। তবে এটা ভাবার কোনো অবকাশ নেই যে আওয়ামী লীগ সাংগঠনিকভাবে আগের চেয়ে দুর্বল বরং যে কোন সময়ের চেয়ে এখানে আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক ভাবে আরো বেশী সক্রিয় ও শক্তিশালী। বর্তমান সরকারের প্রচুর সাফল্য আছে উল্লেখ করে সেগুলো সঠিকভাবে তুলে ধরতে পারলে আওয়ামী লীগ আবারো রাষ্ট্রিয় ক্ষমতায় আসবে বলে তিনি দাবী করেন। তিনি বলেন, দেশ, দেশের মানুষ, নেতা ও দলের কাছে থেকে কি পেলামা বা কি পেলাম না সেটা না ভেবে বরং আমি বা আমরা দেশ, দেশের মানুষ, নেতা ও দলের প্রতি কি অবদান রাখতে পেরেছি বা পারিনি কোনো পারিনি সেটা অন্তরে রেখে কাজ করতে। তিনি তৃণমূলের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, দল, নেতা ও নেতৃত্বের প্রতি অবিচল আস্থা রেখে কাজ করে যেতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*