সেনবাগে সদ্য বিবাহিত নারীকে যৌন নিপীড়নের দায়ে এ্যাডভোকেট লিটনের বিরুদ্ধে মামলাঃ

সেনবাগে সদ্য বিবাহিত নারীকে যৌন নিপীড়নের দায়ে এ্যাডভোকেট লিটনের বিরুদ্ধে মামলাঃ

রফিকুল ইসলাম সুমন (সেনবাগ) ;; নোয়াখালীর সেনবাগে ৩নং ডমুরুয়া ইউনিয়নের বাবুপুর-শ্রীপুর গ্রামের ব্যাপারী বাড়ীতে সদ্য বিবাহিত নারী মাকছুদা অাক্তার(১৮)কে একই বাড়ির এ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন লিটন কর্তৃক যৌন নিপীড়নের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার বিবরণে জানা যায়,গত ২২ অাগস্ট পবিত্র ঈদুল অাযহার দিন সকাল ১১ টায় মাকছুদাকে ঘরে একা রেখে অন্যরা সবাই পার্শ্ববর্তী বাড়ীতে মাংস কাটতে যায়।এ সুযোগে এ্যাডভোকেট লিটন ভিকটিমের ঘরে গিয়ে রান্না ঘরে মাকছুদাকে একা পেয়ে পিছন দিক দিয়ে জড়িয়ে ধরে স্পর্শকাতর স্হানে হাত দিয়ে শোবার ঘরে নেয়ার চেষ্টা করে জোরপূর্বক যৌন নিপীড়ন চালায়।এসময় মাকছুদার চিৎকারে লম্পট এ্যাডভোকেট লিটন দৌড়ে পালিয়ে যায়।এর অাগে গত ১৮ অাগস্ট বিকাল ৩ টায় সবাই যখন ঘুমন্ত অবস্হায় তখন এ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন লিটন মাকছুদার ঘরে গিয়ে তার বুকে হাত দিলে সে চিৎকার করে উঠলে এ্যাডভোকেট লিটন চলে যায়।পরে মাকছুদা তার মাকে ঘটনা জানালে মানসম্মানের ভয়ে তা অার বাহিরে প্রকাশ করা হয় নাই।উল্লেখ্য মাকছুদার বয়স কম হওয়ায় গত ৬ মাস পূর্বে নোয়াখালীতে কোর্ট এভিডেভিট করে এ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন লিটন এর মাধ্যমে মাকছুদার বিয়ে অন্যত্র সম্পন্ন হয়।বিয়ের সময় মাকছুদার জন্মনিবন্ধন কার্ড ও নিকাহনামা এ্যাডভোকেট লিটন রেখে দেয়।এরপর কয়েকবার জন্মনিবন্ধন কার্ড ও নিকাহনামা দেয়ার জন্য এ্যাডভোকেট লিটনকে বলা হলেও সে চলচাতুরির অাশ্রয় নিয়ে এগুলো অানার জন্য মাকছুদাকে একা নোয়াখালীতে তার চেম্বারে যেতে বলে ভাড়া দেয়ার চেষ্টা করে।এমনকি বাড়ীতে একা তার কাচারি ঘরেও যেতে বলে লিটন।এ ঘটনায় মাকছুদার মা বিবি ছকিনা বাদী হয়ে সেনবাগ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিলে ওসি(তদন্ত)অাব্দুল অালী ঘটনা তদন্ত করে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন অাইন সংশোধিত ২০০৩ এর ১০ ধারা তৎসহ ৫০৬ কিসি অাকারে মামলা লিপিবদ্ধ করেন।মামলা নং-২২,তাং-২৭/০৮/২০১৮ইং।মাকছুদার পিতা মো: অালাউদ্দিন বলেন,অামার মেয়ের উপর অমানসিক যৌন নিপীড়নের জন্য অামি লম্পট এ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন লিটনের উপযুক্ত বিচার চাই। ওসি(তদন্ত)অাব্দুল অালী এ প্রতিনিধিকে বলেন,ভিকটিমের জবানবন্দি রেকর্ড করার জন্য কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে।এরপরই প্রয়োজনীয় ব্যবস্হা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*