কক্সবাজার সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শুভ জন্মাষ্টমী পালন

কক্সবাজার সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শুভ জন্মাষ্টমী পালন
মোঃ নাজমুল সাঈদ সোহেল , কক্সবাজার প্রতিনিধি :  শুভ জন্মাষ্টমী। শ্রীকৃষ্ণের জন্মতিথি। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস, পৃথিবী থেকে দুরাচার, দুষ্টদের দমন আর সজ্জনদের রক্ষার জন্যই মহাবতার ভগবান শ্রীকৃষ্ণ এই দিনে স্বর্গ থেকে পৃথিবীতে আবির্ভূত হয়েছিলেন। সনাতন ধর্মাবলম্বীরা দিনটি ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যপূর্ণ আনন্দ-উচ্ছ্বাসের মাধ্যমে পালন করে থাকে।  দিবসটি পালনে অন্যবারের মতো এবারও সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে নানা আয়োজন করা হয়েছে। দিনটি উপলক্ষে কক্সবাজার জেলা আওয়ামিলীগের সাঃ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যান বলেন সম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও মৈত্রীর বন্ধনকে আরো দৃঢ় করে অগ্রগতি এবং সমৃদ্ধি অর্জনে তা কাজে লাগাতে জেলাবাসীর  প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি শ্রীকৃষ্ণের জন্ম দিবস ‘শুভ জন্মাষ্টমী’ উপলক্ষে তিনি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।  তিনি আরো বলেন রাষ্ট্র, সমাজ থেকে অন্যায়-অত্যাচার, নিপীড়ন ও হানাহানি দূর করে মানুষে মানুষে অকৃত্রিম ভালোবাসা ও সম্প্রীতির বন্ধন গড়ে তোলাই ছিল শ্রীকৃষ্ণের মূল দর্শন। যেখানে অন্যায়-অবিচার ধরাধামকে গ্রাস করেছে, সেখানেই শ্রীকৃষ্ণ আবির্ভূত হয়েছেন আপন মহিমায়। জেলা পূজা কমিটির সভাপতি রণজিত শর্মা বলেন, জন্মাষ্টমী উপলক্ষে দেশের সব নাগরিকের সুখ, শান্তি ও কল্যাণ কামনা করেন, শ্রীকৃষ্ণ তাঁর জীবনাচরণ এবং কর্মের মধ্য দিয়ে মানুষের আরাধনা করেছেন। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ বলে উল্লেখ করেন তিনি।
চকরিয়া পূঁজা কমিটির সাঃ সম্পাদক বাব বাবলা দেবনাথ বলেন, ‘এ দেশে সব ধর্ম ও বর্ণের মানুষ যুগ যুগ ধরে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করে আসছে। আমাদের সংবিধানে সব ধর্ম ও বর্ণের মানুষের সমানাধিকার নিশ্চিত করা হয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি, ধর্ম যার যার, উৎসব সবার। ’ বর্তমান সরকারও দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা করতে বদ্ধপরিকর উল্লেখ করেন তিনি। ‘শ্রীকৃষ্ণের আদর্শ ও শিক্ষা বাঙালির হাজার বছরের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি, সৌহার্দ্য ও ভ্রাতৃত্বের বন্ধনকে আরো সুদৃঢ় করবে বলে আমার বিশ্বাস। ’ জন্মাষ্টমী উপলক্ষে প্রধান শোভাযাত্রা কক্সবাজার কেন্দ্রীয় হরিমন্দির থেকে শুরু হয়ে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে  শেষ হয়। কক্সবাজার সর্বজনীন পূজা কমিটির আয়োজনে এ শোভাযাত্রা সকাল ৮টায় শুরু হয়। এ ছাড়া দিনটি উপলক্ষে জেলা শহরের পাশাপাশি জেলার বিভিন্ন উপজেলাসমুহে গী স্তাযজ্ঞ, কৃষ্ণপূজা, শোভাযাত্রা, আলোচনাসভা, কীর্তন, আরতি, প্রসাদ বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*