শিবপুরে নির্বাহী কর্মকর্তা’র হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে বন্ধ ও ভূয়া কাজী আটক

শিবপুরে নির্বাহী কর্মকর্তা’র হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে বন্ধ ও ভূয়া কাজী আটক

শেখ মানিক, শিবপুর (নরসিংদী) প্রতিনিধি ॥ নরসিংদী জেলার শিবপুর উপজেলার সু-যোগ্য নির্বাহী কর্মকর্তা শীলু রায় এর হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে বন্ধ করে এক ভুয়া কাজী আটক করেছেন । গত ৭ ই সেপ্টেম্বর শুক্রবার বিকালে উপজেলা চক্রধা ইউনিয়নের বৈলাব গ্রামের আলাল উদ্দিনের মেয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী পিংকির সঙ্গে মাছিমপুর ইউনিয়নের খড়িয়া গ্রামের আবুল হাসিমের ছেলে ছাদ্দামের সাথে বাল্যবিয়ের সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বিয়ে বন্ধ করেন এবং ভূয়া কাজী নরসিংদী থেকে আটক করেন।
ভূয়া কাজী আবদুল বাতেন (৫৫) একই উপজেলার বাঘাব ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামের পিতা মৃত আবুল হাসিমের ছেলে। ইতি পূর্বে আ: বাতেন কাজীর বিভিন্ন অনিয়মের কারণে তার লাইসেন্স আইন মন্ত্রণালয় বাতিল করেছে। তার লাইসেন্স বাতিল করার কারণে কোর্টে একটি রীট ও করেন তিনি। কিন্তু সেখানেও তার বিপক্ষে রায় হয়। পরে আইন মন্ত্রণালয় নতুন কাজী নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করেন এবং বর্তমানে যোশর ইউনিয়নের কাজী বাঘাব ইউনিয়নের অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন । তার লাইসেন্স বাতিল হওয়ার পরও সে বাঘাব ইউনিয়নের কাজীর পরিচয় দিয়ে নরসিংদী জেলার বিভিন্ন উপজেলায় মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে বাল্যবিবাহ ও আইন বহির্ভূত বিয়ের নিবন্ধন করে থাকেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার জানান বাল্যবিয়ের সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে মেয়ের বাবা জানান তার মেয়ের বিয়ে ৩ মাস আগে হয়ে গেছে আজ শ^শুর বাড়ীর তে তুলে দিবে মেয়ের কোন জন্ম নিবন্ধন সনদ না থাকায় নোটারী পাবলিক এর মাধ্যমে কাবিননামায় বিয়ের নিবন্ধন করা হয়েছে। এতে দেখা যায় যে, বাঘাব ইউনিয়নের নিকাহ্নামা রেজিস্ট্রার আবদুল বাতেন কাজী সে এই বিয়ের নিবন্ধন করে। তার বিরুদ্ধে আগেও আমার কাছে অভিযোগ ছিল যে ছেলে জেলেখানায় থাকার পরও সেই বিয়ের নিবন্ধন করেন সেই থেকে তাকে আটক করার চেষ্ঠা করেও ধরতে না পেরে গতকাল কাজী বাতেনকে ধরার জন্য ফাদ পাতা হয়। গোপন সূত্রে বাতেনের মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে তার এলাকার তার কাছের লোকের মাধ্যমে বাবা মায়ের অসম্মতিতে অপ্রাপ্ত বয়স্ক এক জুটির বিবাহ দেয়ার জন্য দশ হাজার টাকা চুক্তি করে তার কথা মতে নরসিংদী সদরে গিয়ে চারজন নিজস্ব লোক নিয়ে বাতেন কাজীকে হাতে নাতে আটক করি। পরে শিবপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা’র নিকট ভূয়া কাজী আ: বাতেন কে সোপর্দ করা হয়।
শিবপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান তার বিরুদ্ধে প্রতারনা,জালিয়াতিসহ বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে মামলা হয়েছে মামলা নং ১৬তাং ৮/০৯/২০১৮ইং

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*