বড় অসময়ে কাঁদিয়ে চলে গেলেন আইয়ুর বাচ্চু

বড় অসময়ে কাঁদিয়ে চলে গেলেন আইয়ুর বাচ্চু
আশিক বন্ধু ;; সেই রুপালী ফেলে, একদিন চলে যাবো দূরে, বহুদূরে- গানটির কথার মতো বড় অসময়ে চলে গেলেন প্রিয় শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু। গানটির মতো এমন করে কাঁদিয়ে চলে গেলেন না ফেরার দেশে। কিসের তাড়া ছিল প্রিয় এবি? কি এমন কষ্ট ছিল মনের ভেতর? আমি কষ্ট পেতে ভালোবাসি গানটি এখন আরো বেশি মনে পড়ছে আমাদের। কেন কষ্ট লুকাতেন, কেন গিটারে এতো সুর তুলতেন? আপনি কতো বড় মাপের শিল্পী, নিজেও হয়তো ভাবতেননা। সেই তুমি কেন এতো অচেনা হলে, সেই তুমি আমাকে এতো দুঃখ দিলে- গানটির গেয়ে হয়তো অনেক দুঃখ লুকাতেন ভাইয়া, আজ এমনটাই ভেবে কাঁদছি আমরা। পুরো বাংলাদেশ থেকে দেশ বিদেশের কোটি ভক্ত আপনার জন্য কাঁদছেন, আপনাকে মিস করছেন। আপনি চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা, তারপর সারা বাংলাদেশ থেকে বিশ^ জয় করেছেন গান দিয়ে, গিটার বাজিয়ে। এমন বড় উদাহরণ, প্রমাণ আজ আপনার মৃত্যুতে আমরা দেখছি। শহীদ মিনার, জাতীয় ইদগাও ময়দানে, চট্টগ্রামে, টেলিভিশনে, সংবাদপএে, ফেসবুকে , ইউটিউবে আপনার জন্য কিয়ে শূন্যতা ও হাকাকার চলছে-তা আপনার জন্য। আপনার গানগুলোর মাঝে আপনাকে খুঁজে বেড়াচ্ছে আপনার ভক্তরা। আজ আপনি নেই। আর কখনো আসবেননা স্টেজে। আর কোনদিন শুনবোনা আপনার কন্ঠে নতুন গান। গিটারও যেন নিরবে থেমে গেল। আপনার কন্ঠে মানুষের জন্য প্রেম, প্রীতি, ভালবাসার সাড়া আর পাবোনা আমরা। শেষ এক সপ্তাহ আগে রংপুরে লাখো ভক্তদের সামনে স্টেজে কনসার্টে গান কওে দারুণ সাড়া ফেলেছেন। এটাই কনসার্টেও শেষ স্মৃতি। এমন স্মৃতি রেখে গেলেন, তা কিভাবে আগলে রাখবো। বড় কষ্ট হবে আপনাকে ছাড়া । ব্যান্ড সংগীতে আপনার যে অবদান , তা অতুলনীয়। সারাজীবন যে গান , সুর দিয়ে গেলেন, তা বেঁচে থাকবে আজীবন। গানের জন্য ঢাকা শহরে কতো য্দ্দু করেছেন, অভাব কষ্ট মাথা পেতে নিয়েছেন। আপনি তার প্রতিদানে বিশাল উচ্চতায়, সম্মানে চলে গিয়েছেন। যার দৃষ্টান্ত আজ আমরা দেখছি। আপনি পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেছেন, কিন্তু আপনার রেখে যাওয়া গিটার, গান সুর, ভালবাসা এদেশ কখনো ভুৃলবেনা। সারাজীবন ভক্তরা আপনাকে যতেœ ,লালন করবেন বুকের ভেতরে। আমিও নিজে আপনার ভক্ত, ছোট ভাই হয়ে মানতে পারছিনা আজ আর আপনি আমাদের মাঝে বেঁচে নেই। সব এলোমেলো লাগছে। অনেক স্মৃতিরা কাঁদছে। আমাকে তুই করে যে বলতেন, সেই তুই করে আর আপনি ডাকবেননা। চিটাগং এর কি খবর বলবেননা। স্টৃডিওতে আর ডাকবেননা। আপনার মোবাইল নাম্বারটিও রয়ে যাবে, শুধুই আপনি দূরে চলে গেলেন। এমন তাড়াহূড়া করে চলে যাওয়ার কি ছিল ভাইয়া? অনেক তো কথা ছিল। আরো কতো গানও হতো। সব ছেড়ে , সব ফেলে, সব রেখে অকালে কেন ঘুমিয়ে পড়লেন? কিসের ক্লান্তি ছিল ভাইয়া? আমি সত্যি কাঁদছি ভাইয়া, এতোটা কষ্ট গানের জীবনেও পাইনি, যেটা আপনাকে হারিয়ে বুঝছি আপনি কি ছিলেন। আমাকে তুই করে আর ডাকবেননা। চট্টগ্রাম এর কি খবর আর বলবেননা? স্টুডওিতে আর যাওয়া হবেনা। আমার লেখা আপনার সুরে গানও অসর্ম্পূণ থেকে গেল। এমনতো কথা ছিলনা ভাইয়া। আপনাকে নিয়ে আমার লেখা অনেকগুলো নিউজ যতেœ রেখে দেবো ভাইয়া। আজ সব স্মৃতিময়। আপনার এবি কিচেন স্ট্রডিও, এলআরবি ব্যান্ড খুব কাঁদবে। ভাবতে পারবেননা আপনি পৃথিবীতে নেই। এমন চিরতরে ঘুমানোর কি কারণ ভাইয়া? তবু দোয়া বরি আপনার জন্য। আপনি চট্টগ্রামে চৈতন্য গলিতে আপনার মায়ের কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত হয়েছেন। আল্লাহ পাক আপনাকে বেহেস্ত দান করবেন। আমিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*