কুমিল্লা-১১ (চৌদ্দগ্রাম) আসনে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা আবুল কালাম মজুমদার ব্যাপক আলোচনায় !

কুমিল্লা-১১ (চৌদ্দগ্রাম) আসনে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা আবুল কালাম মজুমদার ব্যাপক আলোচনায় !
স্টাফ রিপোর্টার: আগামী জাতীয় সংসদ (একাদশ) নির্বাচনে কুমিল্লা-১১ (চৌদ্দগ্রাম) আসনে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন পেতে ব্যাপক ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন, জাতীয় পার্টির (এরশাদ) কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও কুমিল্লা-১১ আসনে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশী, সমাজ সেবক, শিক্ষানুরাগী, লক্ষ জনতার নয়নের মনি, কর্মী বান্ধব, দুঃখী মানুষের আশ্রয় স্থল, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, জাতীয় পার্টির নিবেদিত প্রাণ ও রাজপথের সাহসী নেতা আবুল কালাম মজুমদার। তিনিই এখন ব্যাপক আলোচনায়। তিনি সম্প্রতি কুমিল্লা-১১ আসনের বিভিন্ন এলাকায় লাঙ্গলের পক্ষে গণসংযোগ সহ নানান কর্মসূচী পালন করছেন।
দলীয় ও স্থানীয় সূত্রমতে, কুমিল্লা-১১ (চৌদ্দগ্রাম) আসনে এবার পরিবর্তনের হাওয়া বইছে। আর জনমুখী নানা ইতিবাচক কর্মকান্ড আর সুখে-দুঃখে সাধারণ মানুষের পাশে থাকা জাতীয় পার্টির (এরশাদ) কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আবুল কালাম মজুমদার দলীয় মনোনয়নের বিষয়ে এবার বিভিন্ন ভাবে এগিয়ে আছেন। এই আসনে তিনি লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে লড়তে চান। তাই সুখে-দুখে জনতার পাশে থাকা দলীয় কর্মকান্ড ও আন্দোলনে অন্যতম সাহসী ভূমিকা পালনকারী, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ.এম এরশাদের আস্থাভাজন আবুল কালাম মজুমদার’কে নিয়ে কুমিল্লা-১১ আসনের দলীয় নেতাকর্মীরা স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছেন। বিভিন্ন ইতিবাচক কর্ম আর বিচক্ষণ নেতৃত্বগুণে ইতিমধ্যে এই আসন বাসীর আস্থা ও ভালোবাসা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন তিনি। তাই তারা তাকে’ই এমপি হিসেবে পেতে চায়। তিনি এলাকায় নানান কর্মকান্ডে আত্মনিয়োগ করছেন। দলীয় কর্মসূচির পাশা-পাশি সামাজিক ও সেবামূলক কর্মকান্ডে তিনি সক্রিয়ভাবে যোগ দিচ্ছেন। এছাড়া তিনি দলীয় নেতাকর্মী সহ এলাকার সাধারণ মানুষের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন।
এ ব্যাপারে কুমিল্লা-১১ আসনের অনেকেই বলেন, আবুল কালাম মজুমদার এ আসনের জনসাধারণকে যেভাবে কাছে নিয়ে নিজের মনে গ্রহণ করে, তাদের সুখে-দুঃখে পাশে থাকেন, তা সত্যি অভূতপূর্ব। এছাড়া সে হাসি মুখে অনেকেরই মন জয় করে নিয়েছেন। আর এলাকার জনগণও তাঁকে সাদরে গ্রহণ করছেন। তাই আমরা তাকেই এমপি হিসেবে পেতে চাই। তিনিই এখন ব্যাপক আলোচনায়।
তারা আরও বলেন, আবুল কালাম মজুমদার চৌদ্দগ্রামের বেকার সমস্যার ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ বিষয়ে বিশেষ ভাবে কাজ করছেন। আর “চৌদ্দগ্রাম শিল্পাঞ্চল বাস্তবায়ন কমিটি” নামে একটি সামাজিক সংগঠনের সমন্বয়ক হিসাবে কাজ করছেন তিনি।
এ ব্যাপারে আবুল কালাম মজুমদার বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ এলাকার মানুষের পাশে থেকে তাদের আশা-আকাঙ্খার কথা জেনেছি। স্বাধ্যমত তাদের সেবা করেছি। এবার দল যদি আমাকে মনোনয়ন দেয় তাহলে বিজয়ের ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী। তবে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ.এম এরশাদের নির্দেশ পেলেই আমি নির্বাচনে অংশ নিতে আগ্রহী। আর দলীয় কর্মকান্ড ও আন্দোলনে সাহসী ভূমিকা পালন করেছি। তাই দল আমাকে মূল্যায়ন করবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস। তিনি আরও বলেন, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ ২৮ বছর ধরে প্রত্যেক নেতাকর্মীদের সন্তানের মতো আগলে রেখেছেন। আর জাতীয় পার্টির শাসন আমল ছিল দেশের স্বর্ণ যুগ, তাই জাতীয় পার্টিকে আবারও ক্ষমতায় আনতে হবে। আর আমি সারা জীবন মানুষের কল্যাণে ও এলাকার উন্নয়নে কাজ করতে চাই। এ জন্য সকলের দোয়া ও আর্শিবাদ কামনা করছি।
অন্যদিকে, আবুল কালাম মজুমদার এবার দলীয় মনোনয়ন পাবেন বলে দৃঢ় আশাবাদী তার সমর্থকরা। তারা বলেন, তিনি এলাকায় নিয়মিত দলীয় কর্মসূচি সহ পথসভা, মতবিনিময় ও গণসংযোগ এবং সামাজিক অনুষ্ঠানেও যোগ দিচ্ছেন। এছাড়া তার নেতৃত্বে দলীয় বিভিন্ন কর্মকান্ড চলছে। আর তিনিই দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় সাধারণ মানুষের পাশে রয়েছেন। বিভিন্ন দূর্ঘটনায় কবলিতদের নিয়মিত খোঁজখবর রাখেন। তাই তিনিই এবার মনোনয়নের দাবিদার। এছাড়া বিগতদিনে দলের জন্য তার অনেক ত্যাগ রয়েছে। তার ত্যাগ ও ব্যক্তিগত ক্লিন ইমেজের কারণে তিনি মনোনয়ন পেলেই এমপি নির্বাচিত হবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*