“আমি আমার জীবনকে উৎসর্গ করেছি বাংলার মানুষের জন্য”

তালতলীর বিশাল জনসভায় প্রধানমন্ত্রী
“আমি আমার জীবনকে উৎসর্গ করেছি বাংলার মানুষের জন্য”
মো. মিজানুর রহমান নাদিম, তালতলী প্রতিনিধি : আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসলে উন্নয়ন হয়। নৌকায় ভোট দিয়ে দেশের মানুষ কথা বলার অধিকার পেয়েছে। আওয়ামীলীগ যখনই ক্ষমতায় এসেছে তখনই দেশের মান উন্নয়ন হয়েছে। আওয়ামীলীগ মাদক,সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ মুক্ত দেশ গড়তে চায়। সারা দেশে মাদক বিরোধী অভিযান চলছে। আমি আমার জীবনকে উৎসর্গ করেছি বাংলার মানুষের জন্য।
 শনিবার বিকেলে বরগুনার তালতলী মডেল সরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত এক বিশাল জনসভায় প্রধান অতিথির ভাষণে এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন তালতলী আমতলীর একটি ইউনিয়ন ছিল সেটিকে আমি উপজেলায় উন্নীত করেছি, আমরা সরকারে আসার ফলে মোবাইল ফোন উন্মুক্ত করে  দিয়েছি। অমরা উচ্চ শিক্ষা পর্যন্ত উপবৃত্তির ব্যবস্থা করে দিয়েছি।
জনসভায় লোকজনের নিকট নৌকায় ভোট দেয়ার ওয়াদা নিয়ে তিনি বলেন, নৌকা জয়লাভ করলে মানুষ সুখী সমৃদ্ধশালী হয়ে বিশে^র বুকে মাথা উচু করে দাড়াতে পারে। আমরা দেশের উন্নয়ন করেছি। আমারতো জীবনের চাওয়া পাওয়া নেই। বাংলাদেশের রাষ্টপতি আমার পিতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান, আমার মা বেগম ফজিলাতুনন্নেছা ,আমার ভাই শেখ জামাল, শেখ কামাল ও ছোট্ট শিশু রাসেলকেসহ আমার পরিবারের সকলকে হত্যা করেছে। আমার আত্মীয় স্বজনকে হত্যা করেছে। আমি বিদেশে ছিলাম বিধায় বেঁচে গেছি। সব হারিয়েছি। স্বজন হারিয়ে ছয় বছর দেশের বাহিরে ছিলাম। দেশে এসে সারা দেশে ঘুরেছি দেখেছি মানুষের দুঃখ দূর্দশা। বাংলার মানুষের পেটে খাবার ছিল না। পরনে ছিল ছেড়া কাপড়। মাথা গোজার ঠাই ছিল না। ঘরের চালা দিয়ে পানি পরতো। রাস্তার পাশে পরে থাকতো। আপনাদের মাঝেই খুজে পাই আমার হারানো স্বজনদের। প্রধানমন্ত্রী  আরো বলেন, যখনই আপনারা নৌকায় ভোট দিয়েছেন তখনই দেশ উন্নত হয়েছে। যখনই ক্ষমতায় এসেছি। তখনই বাংলার মানুষের দুঃখ দুর্দশা লাগবে কাজ করেছি। আমার বাবা এ দেশ স্বাধীন করেছে। তিনি মানুষের দূঃখ দুর্দশা লাগবে কাজ করেছেন। আমার বাবা চেয়েছেন এ দেশের মানুষ সুখে শান্তিতে থাকুক। আমিও বাবার সেই স্বপ্ন বাস্তায়নে কাজ করছি।মানুষ সুন্দর থাকবে যেটা ছিল আমার বাবার আকাঙ্খা। সেই আঙ্খকা বাস্তবায়নে কাজ করছি।
 শেখ হাসিনা বলেন এ সরকারের দক্ষিনাঞ্চলে আরেকটি পাওয়ার প্লান্ট করার চিন্তা-ভাবনা আছে। তিনি বলেন আমরা দক্ষিনাঞ্চলে একদিকে নদীগুলির ভাঙ্গন রোধের ব্যবস্থা অন্যদিকে নদী ড্রেজিং করে নৌপথে ব্যবসা বানিজ্যের প্রসারের ব্যবস্থা করে দেব। আমরা বাংলাদেশকে ক্ষুধামুক্ত দারিদ্র মুক্ত সোনার বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তোলব। প্রতিটি গ্রামকে শহর লেভেলে উন্নীত করে দেব যাতে করে সকল নাগরিক সমান সুযোগ সুবিধা পায়।
 তালতলী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি রেজবিউল কবির জোমাদ্দারের সভাপতিত্বে ও বরগুনা জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম সরোয়ার টুকুর সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য রাখেন, আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, শিল্প মন্ত্রী আমির হোসেন আমু,বানিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, কৃষি মন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ এম পি, ও বরগুনা ১ আসনের এমপি এ্যাডভোকেট ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু,
প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের চিত্র তুলে ধরে বলেন, আমরা বাংলাদেশকে খাদ্যে সয়ংসম্পূর্ণ করেছি, বিনা পয়সায় প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক পর্যন্ত বই দিয়েছি। আমরা একেবারে উচ্চ শিক্ষা পর্যন্ত যাতে ছেলে মেয়েরা লেখা পড়া করতে পারে তার ব্যবস্থা নিয়েছি। ২কোটি ৪ লক্ষ শিক্ষার্থীকে  উপবৃত্তি প্রদান করেছি। আমরা কওমী মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের সনদের ব্যবস্থা করেছি। প্রধানমন্ত্রী বলেন আপনাদের এখানে আসার আগে প্রায় ১৩শ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেনদ্র উদ্ভোধন করে আসছি।সেখানে ১৩০ জন ক্ষতিগ্রস্থদেও পূনর্বাসনের ব্যবস্থা করেছি।
জনসভার আগে প্রধানমন্ত্রী বরগুনা সদর হাসপাতালকে ২৫০ শয্যায় উন্নীত করন, বামনা উপজেলা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন, বেতাগী উপজেলা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন,  বরগুনা সদরে গনগ্রন্থগার, বরগুনা জেলা পুলিশ লাইনে মহিলা ব্যারাক নির্মান, দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিশুদের জন্য হোস্টেল নির্মান,  আমতলী থানা ভবন, বরগুনা সদর ইউনিয়ন ভ‚মি অফিস, ডৌয়াতলা ইউনিয়ন ভ‚মি অফিস,  হোসনাবাদ ইউনিয়ন ভ‚মি অফিস, ঘূর্ণিঝড় সিডর ও আইলায় ক্ষতিগ্রস্থ উপক‚লীয় বাঁধ পুনর্বাসন, বরগুনা এম বালিয়াতলী ডিএন কলেজের ৪তলা একাডেমিক ভবন কাম ঘুর্নিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র, পাথরঘাটা সৈয়দ ফজলুল হক ডিগ্রি কলেজের ৪তলা একাডেমিক ভবন কাম ঘুর্নিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র, আমতলী ইউনুস আলী খান ডিগ্রি কলেজের ৪তলা একাডেমিক ভবন কাম ঘুর্নিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র, তালতলী উপজেলা প্রাণীসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্র, ২১. বাকেরগঞ্জ-পাদ্রীশিবপুর-কাঠালতলী-সুবিদখালী-বরগুনা সড়ক প্রশস্ত ও মজবুতিকরন,  বুড়িরচর ইউনিয়ন পরিষদ-হাজারবিঘা-কামড়াবাদ-পুরাকাটা ফেরিঘাট সড়কের ৫৩২০মিটার চেইনেজে ৫৪ মিটার আরসিসি গার্ডার ব্রীজ, গৌরীচন্না ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবন, বেতাগী উপজেলাধীন বদনীখালী খালের উপর ২০মিটার চেইনেজে ১২০ মিটার আরসিসি গার্ডার ব্রীজ, বামনা উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স ভবন সম্প্রসারন,  তালতলী উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স ভবন, বামনা একটি বাড়ী একটি খামার ও পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক ভবন,  তালতলীতে একটি বাড়ী একটি খামার ও পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক ভবন সহ মোট ২১ টি প্রকল্পের শুভ উদ্বোধন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*