শার্শা উপজেলায় উৎসব মুখর পরিবেশে জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা শুরু

শার্শা উপজেলায় উৎসব মুখর পরিবেশে জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা শুরু

মোঃ আয়ুব হোসেন পক্ষী, বেনাপোল প্রতিনিধিঃআজ ১ নভেম্বর (বৃহস্পতিবার) সারাদেশের ন্যায় শার্শা উপজেলায় একযোগে শুরু হয়েছে অষ্টম শ্রেণির ‘জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট’ (জেএসসি) ও মাদরাসা শিক্ষার্থীদের ‘জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট’ (জেডিসি) পরীক্ষা। ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত জেএসসি ও ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত জেডিসি পরীক্ষা চলবে। নকলমুক্ত পরীক্ষা অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে গত রোববার থেকে দেশের সব কোচিং সেন্টার বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকেও বেশ কিছু নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। পরীক্ষা ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রেও নতুন কয়েকটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে এবার। শার্শা উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ সাখাওয়াত বলেন এ বছর শার্শা উপজেলায় জেসিসি পাঁচটি কেন্দ্রের মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা চার হাজার নয়শত তিনজন।জেডিসি কেন্দ্র দুইটা, পরীক্ষার্থীর্ সংখ্যা এক হাজার একশত তিরাশি জন। ভোকেশনাল পরীক্ষার্থী মোট দুইশত ত্রিশ জন। ২০১৮ খ্রিস্টাব্দের নিম্ন মাধ্যমিক পর্যায়ের জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষায় ২৬ লাখ ৭০ হাজার ৩৩৩ জন শিক্ষার্থী অংশে নেবে। দেশের ২৯ হাজার ৬৭৭টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা আগামী ১ থেকে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত দুই হাজার ৯০৩টি কেন্দ্রে জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষায় অংশ নেবে।এবার জেএসসি-জেডিসির ২৬ লাখ ৭০ হাজার ৩৩৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৪ লাখ ৪৬ হাজার ৬০১ জন ছাত্রী এবং ১২ লাখ ২৩ হাজার ৭৩২ জন ছাত্র। ছাত্রদের থেকে এবার ২ লাখ ২২ হাজার ৮৬৯ জন ছাত্রী বেশি।আট বোর্ডের অধীনে এবার জেএসসিতে ২২ লাখ ৬৭ হাজার ৩৪৩ জন এবং মাদরাসা বোর্ডের অধীনে জেডিসিতে ৪ লাখ ২ হাজার ৯৯০ জন পরীক্ষা দেবে।গত বছর এই পরীক্ষায় ২৪ লাখ ৬৮ হাজার ৮২০ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছিল। এবার এই পরীক্ষায় পরীক্ষার্থী বেড়েছে ২ লাখ ১ হাজার ৫১৩ জন। এবার জেএসসিতে ২ লাখ ৪৬ হাজার ৩৫৩ জন এবং জেডিসিতে ৩৪ হাজার ২৫১ জন অনিয়মিত পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় বসবে বলেও জানা গেছে।এক থেকে তিন বিষয়ে যারা অকৃতকার্য হয়েছিল তারাও এবার ওইসব বিষয়ে পরীক্ষা দেবে, এই সংখ্যা জেএসসিতে ২ লাখ ৩০ হাজার ৭৮৫ জন এবং জেডিসিতে ৩০ হাজার ৫৪৮ জন। বিদেশের নয়টি কেন্দ্রে এবার ৫৭৮ জন জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নেবে।জেএসসি জেডিসি পরীক্ষায় সকল পরীক্ষার্থীকে নির্ধারিত সময়ের ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষা কেন্দ্র প্রবেশ করতে হবে। এবারও বাংলা দ্বিতীয় পত্র, ইংরেজি প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র ছাড়া অন্য বিষয়ের পরীক্ষা সৃজনশীল প্রশ্নে হবে বলে জানা গেছে। পরীক্ষা চলাকালে পরীক্ষা কেন্দ্রের ২০০ মিটারের মধ্যে শিক্ষক, ছাত্র, কর্মচারীরা মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন না।শ্রবণ প্রতিবন্ধীসহ অন্য প্রতিবন্ধী পরীক্ষার্থীরা এবারও অতিরিক্ত ২০ মিনিট সময় পাবে। এছাড়া দৃষ্টি প্রতিবন্ধী, সেরিব্রাল পালসিজনিত প্রতিবন্ধী এবং যাদের হাত নেই তারা শ্রুতি লেখক সঙ্গে নিয়ে পরীক্ষা দিতে পারবেন। এছাড়া অটিস্টিক, ডাউন সিনড্রোম এবং সেরিব্রাল পলসিজনিত প্রতিবন্ধী পরীক্ষার্থীদের অতিরিক্ত ৩০ মিনিট সময় বৃদ্ধিসহ শিক্ষক, অভিভাবক বা সাহায্যকারীর বিশেষ সহায়তায় পরীক্ষা দেওয়া সুযোগ দেওয়া হবে বলেও জানা গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*