উখিয়া-টেকনাফে আওয়ামীলীগের প্রার্থী  জট:অস্তিত্ব সংকটে জামায়াত!

উখিয়া-টেকনাফে আওয়ামীলীগের প্রার্থী  জট:অস্তিত্ব সংকটে জামায়াত!
শ.ম.গফুর,উখিয়া(কক্সবাজার)প্রতিনিধি :: কক্সবাজার-৪ উখিয়া-টেকনাফ উপজেলা নিয়ে গঠিত সংসদীয় আসন। এ আসনে আওয়ামী লীগের চলছে প্রার্থীজট। আবার সদ্য নিবন্ধন বাতিল হওয়া জামায়াত রয়েছে অস্তিত্ব সংকটে।একসময় বিএনপির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত এই আসনটি ২০০৮ সালের নির্বাচনে দখলে নেয় আওয়ামী লীগ। এখন পুনরায় দখলে নেওয়ার চেষ্টা করছে বিএনপি। আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সরব প্রচারণা থাকলেও নীরবে সক্রিয় হওয়ার চেষ্টা করছেন বিএনপির একক প্রার্থী আলহাজ্ব শাহজাহান চৌধুরী। তবে এই আসনটিতে এক সময়ে পতাকা উড়ানো সেই জামায়াতে ইসলামীর অস্তিত্ব এখন আর নেই। মাঠে কোনো সভা-সমাবেশ করতে দেখা যায় না তাদের। সঠিক ও সাহসী নেতৃত্বের অভাবে ঝিমিয়ে পড়েছে দলটি। জামায়াতের নেতাকর্মীরা ব্যবসা বাণিজ্য নিয়ে ব্যস্ত। এবার এই আসনে জাতীয় পার্টিও প্রতিদ্বন্ধিতা করবেন বলে আভাস পাওয়া যাচ্ছে।দলের কেন্দ্রীয়য় সদস্য, উখিয়া উপজেলা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক নুরুল আমিন শিকদার ভুট্রো প্রার্থী হবেন। নির্বাচন সামনে রেখে পুরনো নেতাদের পাশাপাশি নতুন জনপ্রিয় নেতারাও মনোনয়নের প্রত্যাশা করছেন। মনোনয়ন প্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ ও তদ্বির শুরু করেছেন কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে। তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে শোভনীয় আচরণ ও সুবিধা দেখিয়ে জনসমর্থন আদায়ের জন্য কেউ কেউ সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন। অনেকে ছুটে যাচ্ছেন অবহেলিত মানুষের কাছে, দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি। পাশাপাশি শুভেচ্ছা বিনমিয় করছেন সাধারণ ভোটারদের সঙ্গে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন দিবস ও অনুষ্ঠানের পোষ্টার-সাইনবোর্ড, ফেস্টুন, ব্যানারে ছেয়ে গেছে, নির্বাচনী এলাকা। এই আসনে মাঠে নেমেছেন বর্তমান এমপিসহ ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের ডজনখানেক মনোনয়নপ্রত্যাশী। বর্তমান এমপি স্থানীয় রাজনীতিতে দলীয় নেতাকর্মীদের নিকট নানা কারণে বিরাগভাজন অবস্থায় থাকলেও সাধারণ জনগণের আস্থাভাজন হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছেন। গরীবের পরম বন্ধু, অসহায় মানুষের একান্ত কাছের মানুষ হিসেবে পরিচিত হলেও তার বিরুদ্ধে একাট্রা হয়েছেন দল ও এর সহযোগী সংগঠনের শীর্ষস্থানীয় নেতারা। এদিকে তার ব্যক্তিগত সমালোচনার সুযোগ নিতে চাচ্ছেন অন্যান্য প্রার্থীরা। তবে সাধারণ ভোটাররা মনে করছেন বর্তমান সাংসদ আব্দুর রহমান বদি ছাড়া অন্য কাউকে নৌকার প্রার্থী ঘোষণা করলে বিএনপি প্রার্থীর সহজ জয় হবে। কারণ হিসেবে একাধিক ভোটাররা জানান, ক্ষুধার্থ মানুষের ঘরে চাউলের বস্তা পাঠিয়েছেন এমপি বদি। তাছাড়া অনেক বাবা-মা জটিল রোগে আক্রান্ত সন্তানের সেবার জন্যে আর্থিক সহযোগীতা পেয়েছেন এমপির কাছ থেকে। বিগত কোনো এমপি সাধারণ খেটে-খাওয়া মানুষের এমন করে খবরা খবর রাখেননি। তাই উখিয়া-টেকনাফের গরীব ভোটাররা এমপি বদি ছাড়া অন্য কাউকে ভাবতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন। সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে কক্সবাজার জেলা যুব লীগের সভাপতি সোহেল আহমদ বাহাদুর জানান, এবার উখিয়া-টেকনাফে আওয়ামী লীগের প্রার্থীতায় পরিবর্তন আসবে। আওয়ামী লীগের সাবেক সাংসদ অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী,জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি শাহ আলম চৌধুরী রাজা, তাঁতী লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাধনা দাশ গুপ্তা, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ও রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী, ও মন্ত্রী পরিষদ সচিবের ছোট ভাই হলদিয়া পালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ শাহ আলমসহ ডজনখানেক প্রার্থী আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন। অন্যদিকে বিএনপির একক প্রার্থী হিসেবে কক্সবাজার জেলা বিএনপির সভাপতি ও চারবারের নির্বাচিত সাবেক সংসদ সদস্য  ক্লিন ইমেজের নেতা শাহজাহান চৌধুরী রয়েছেন সুবিধা জনক অবস্থানে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*