বিনিয়োগ বৃদ্ধি ও দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কোন্নয়নে দু’দেশের ব্যবসায়ীদের মাঝে সরাসরি যোগাযোগ গুরুত্বপূর্ণঃ

বিনিয়োগ বৃদ্ধি ও দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কোন্নয়নে দু’দেশের ব্যবসায়ীদের মাঝে সরাসরি যোগাযোগ গুরুত্বপূর্ণঃ চিটাগাং চেম্বারে মতবিনিময়কালে কানাডা হাইকমিশনের কমার্শিয়াল কাউন্সেলর ও সিনিয়র ট্রেড কমিশনার

নিজস্ব প্রতিনিধি: বাংলাদেশে নিযুক্ত কানাডা হাইকমিশনের কাউন্সেলর (কমার্শিয়াল অ্যাফেয়ার্স) এন্ড সিনিয়র ট্রেড কমিশনার করিন পেটরিসর (Ms. Corinne Petrisor) ০৬ নভেম্বর দুপুরে দি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র সভাপতি মাহবুবুল আলমের সাথে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারস্থ চেম্বার কার্যালয়ে এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। এ সময় চেম্বার সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ, হাইকমিশনের ট্রেড কমিশনার কাজী গোলাম ফরহাদ এবং চেম্বার কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম কানাডা বাংলাদেশের তৈরীপোশাক খাতের অন্যতম প্রধান আমদানিকারক দেশ উল্লেখ করে এ দেশের রপ্তানি বহুমূখীকরণের উপর গুরুত্বারোপ করেন এবং ফার্মাসিউটিক্যালস, সিরামিক্স, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, পাট ও পাটজাত পণ্য, হিমায়িত মৎস্য, হস্তশিল্প, প্লাষ্টিক ও ফার্নিচার ইত্যাদি পণ্যের আমদানি বৃদ্ধিতে কাউন্সেলরের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। পাশাপাশি প্রতি বছর কানাডা থেকে গম ও ডালসহ বিপুল পরিমাণে খাদ্যশস্য বাংলাদেশে আমদানি করা হয়। দু’দেশের মাঝে চলমান এ বাণিজ্য তৃতীয় পক্ষ ব্যতিরেকে সরাসরি পরিচালিত হলে অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় রোধের সাথে সাথে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরো দৃঢ় হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এছাড়া দু’দেশের মধ্যে চমৎকার বাণিজ্যিক সম্পর্ক বিদ্যমান থাকলেও বাংলাদেশে কানাডার বিনিয়োগ তেমন উল্লেখযোগ্য নয়। তাই চেম্বার সভাপতি বৈদেশিক বিনিয়োগে বর্তমান সরকার কর্তৃক প্রদত্ত সুবিধাসমূহ কাজে লাগিয়ে দেশের নির্মিতব্য অর্থনৈতিক অঞ্চল বিশেষ করে মিরসরাই ও আনোয়ারায় শিল্প স্থাপনের আহবান জানান। মাহবুবুল আলম বাংলাদেশের বিশাল মানবসম্পদকে দক্ষ করে তুলতে কানাডা সরকারের প্রযুক্তিগত সহায়তা কামনা করেন। এছাড়া উভয়দেশের ব্যবসায়ীদের মাঝে কাংখিত সম্পর্ক স্থাপন করতে ব্যবসায়ী প্রতিনিধি বিনিময়ের উদ্যোগ কামনা করেন।

কাউন্সেলর (কমার্শিয়াল অ্যাফেয়ার্স) এন্ড সিনিয়র ট্রেড কমিশনার করিন পেটরিসর বাংলাদেশের সাম্প্রতিক উন্নয়ন বেশ লক্ষ্যণীয় এবং দু’দেশের মাঝে ব্যবসায়িক সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচন ও বাণিজ্য সম্পর্ককে আরো দৃঢ়করণের লক্ষ্যে কাজ করছেন বলে অবহিত করেন। কানাডার বিনিয়োগকারী ও ব্যবসায়ীরা যে কোন দেশের ব্যবসায়ী সমাজের মতামতকে গুরুত্ব প্রদান করে থাকেন। তাই বাংলাদেশের ব্যবসা ও বিনিয়োগ সংক্রান্ত যে কোন বার্তা পৌঁছে দেয়ার জন্য বিজনেস টু বিজনেস সম্পর্ক বিশেষ জরুরী বলে মন্তব্য করেন। এছাড়া বাংলাদেশে কানাডার বিনিয়োগ অত্যন্ত কম স্বীকার করে বিভিন্ন সম্ভাবনাময় বিনিয়োগের খাত সম্পর্কে অবহিত হতে করিন পেটরিসর আগ্রহ প্রকাশ করেন। তিনি উভয়দেশের মাঝে ব্যবসায়ী প্রতিনিধি বিনিময়ের ক্ষেত্রে চেম্বার সভাপতির সাথে একমত পোষণ করে উদ্যোগ গ্রহণে আশ্বস্ত করেন।

চেম্বার সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ বলেন বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন খাতে কানাডায় কর্মী নিয়োগে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কাউন্সেলরের উদ্যোগ কামনা করেন এবং আগামী ফেব্রুয়ারী-২০১৯ এ অনুষ্ঠেয় ২৭তম চট্টগ্রাম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা পরিদর্শনের আমন্ত্রণ জানান। কমার্শিয়াল কাউন্সেলর মতবিনিময় শেষে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে পারমানেন্ট এক্সিভিশন হল পরিদর্শন করেন। মতবিনিময়ের পূর্বে করিন পেটরিসর চট্টগ্রাম বন্দর পরিদর্শন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*