দীপাবলিতে প্রদীপ কেন জ্বালাতে হয়?

দীপাবলিতে প্রদীপ কেন জ্বালাতে হয়?
উজ্জ্বল শিকদার, স্টাফ রিপোর্টারঃ দীপাবলি মানেই আলোর উৎসব। গোটা শহর, গোটা দেশ আলোয় সেজে ওঠে এই উৎসবে৷ প্রত্যেকটি ঘর সেজে ওঠে প্রদীপের আলোয়৷ আকাশে ওড়ে ফানুস, জ্বলে আকাশ প্রদীপ৷ দীপাবলিতে, প্রতিটি বাড়ি তেল বা ঘি-এর প্রদীপ, মোমবাতি ও ইলেক্ট্রিক লাইট দিতে সাজানো হয়। প্রথা গতভাবে, মাটির প্রদীপে তুলোর তৈরী সলতে দিয়ে বেশিরভাগ বাড়ি-ঘর আলোকিত করা হয়ে থাকে। যদিও এই পরিবর্তনশীল আধুনিক সময়ে অনেক ঘরেই মোমবাতি মাটির প্রদীপের জায়গা নিয়ে নিয়েছে তা সত্ত্বেও, এই আলোর উৎসবের ধারনা অপরিবর্তিত রয়ে গেছে। রামায়ণ অনুযায়ী, যখন ১৪ বছর বনবাসের পর রাম, সীতা ও লক্ষণকে সঙ্গে নিয়ে অযোধ্যা ফিরে এসেছিলেন। মানুষ প্রদীপ জ্বালানোর মাধ্যমে তাদের রাজার প্রত্যাবর্তন উদযাপন করেছিলেন। এইভাবেই, দীপাবলিতে প্রদীপ জ্বালানোর ঐতিহ্য প্রচলিত হয়ে আসছে। সনাতন ধর্মে আলো তাৎপর্যপূর্ণ, কারণ আলো পবিত্রতা, সদগুণ, সৌভাগ্য এবং পরাক্রমকে সূচিত করে। আলোর উপস্থিতি অর্থাৎ অন্ধকার এবং অপশক্তির অনুপস্থিতি। যেহেতু, দীপাবলি অমাবস্যার রাতে পালন করা হয় তাই চারদিকে নিকষ অন্ধকার থাকে আর এই অন্ধকার থেকে মুক্তি পেতে মানুষ সর্বত্র লক্ষ লক্ষ প্রদীপ জ্বালিয়ে আলোকিত করে রাখে। বিশ্বাস করা
হয়, নিকষ অন্ধকারেই অশুভ আত্মা ও অশুভ শক্তি সক্রিয় হয়ে ওঠে। তাই এই অশুভ শক্তিকে দুর্বল করতে ঘরের প্রতিটি কোনায় কোনায় বাতি বা প্রদীপ জ্বালানো হয়ে থাকে। দীপাবলিতে প্রতিটি দরজার বাইরে প্রজ্বলিত
আলো এটিই নিদর্শিত করে যে আমাদের মনের আভ্যন্তরিন আধ্যাত্মিক আলোকেও একইভাবে আমাদের বাইরে অবশ্যই প্রতিফলিত করতে হবে। এছাড়াও, এটি ঐক্যের একটি গ্রুরুত্বপূর্ণ বার্তা বহন করে। একটি প্রদীপ নিজের আলোকে প্রভাবিত না করেও একাধিক প্রদীপকে প্রজ্বলিত করতে পারে। অত:পর, দীপাবলির সময় প্রদীপ প্রজ্বলিত করা, একইসাথে আধ্যাত্মিকভাবে ও সামাজিকভাবে সমগ্র মানবজাতীর জন্যই গুরুত্বপূর্ণ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*