তানোরে সামাজিক নিরাপত্তা খাতে অতিরিক্ত বরাদ্দ ৮৮ কোটি ৫৫ লাখ টাকা

তানোরে সামাজিক নিরাপত্তা খাতে অতিরিক্ত বরাদ্দ ৮৮ কোটি ৫৫ লাখ টাকা
সারোয়ার হোসেন,তানোর : রাজশাহীর তানোরে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাংসদ ওমর ফারুক চৌধূরী এমপির প্রচেষ্টায় আওয়ামী লীগ সরকারের ১০ বছরে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের থেকে শুধুমাত্র সামাজিক নিরাপত্তা বেস্টনী খাতে অতিরিক্ত প্রায় ৮৮ কোটি ৫৫ লাখ টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। অথচ এই টাকা সামাজিক নিরাপত্তা বেস্টনী কর্মসূচিতে বরাদ্দ করা না হলে এই টাকায় তানোরে প্রায় ১৭০ কিলোমিটার নতুন রাস্তা নির্মাণ করা সম্ভব ছিল। তবে সামাজিক নিরাপত্তা বেস্টনী কর্মসূচিতে এসব অর্থ বরাদ্দ করায় সমাজের পিছিয়ে জনগোষ্ঠির বিপুল সংখ্যক মানুষের জীবনযাত্রার মান বৃদ্ধি পেয়েছে হয়ে উঠেছে স্বালম্বী। সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠিকে স্বাবলম্বী করতে সামাজিক নিরাপত্তা বেস্টনী কর্মসূচি ভিজিডি, প্রতিবন্ধী, মুক্তিযোদ্ধা, বয়স্ক, বিধবা,মাতৃত্বকালীন ভাতা, কর্মজীবী লাকটেটিং মাদার সহায়তা, নারী প্রশিক্ষণ এবং ক্ষুদ্র ঋণ ইত্যাদি প্রতিটি ক্ষেত্রে করাদ্দ ও পরিধি বৃদ্ধি করা হয়েছে।
জানা গেছে, তানোরে বিগত ২০০৩-০৭ অর্থবছরে ভিজিডি কার্ডধারী উপকারভোগীর সংথ্যা ছিল ২ হাজার ৯৬৩ জন বারাদ্দ ছিল মাকে ৫০০ টাকা করে মোট ৩৩ লাখ টাকা প্রদান করা হয়েছে। আবার ২০০৬-০৭ অর্থবছরে মহিলা প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (ডাব্লিউটিসি) কর্মসূচিতে ৩০ জনের মধ্যে ৩২ হাজার ৪০০ টাকা প্রদান করা হয়েছে। অথচ আওয়ামী লীগের ৯ বছরে ৪২০ জনের মধ্যে ২২ লাখ ২৪ হাজার ৮০০ টাকা প্রদান করা হয়েছে। এছাড়াও আওয়ামী লীগের ৯ বছরে মহিলাদের আতœকর্মসংস্থানের জন্য ক্ষুদ্র ঋণ কর্মসূচিতে ২৮২ জন মহিলার মধ্যে ২৩ লাখ ২৬ হাজার টাকা ঋণ প্রদান করা হে ্যাকটেটিং মাদার সহায়তা তহবিল কর্মসূচিতে ৫৬০ জন কর্মজীবী হয়েছে। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময়ে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণের জন্য কোনো অর্থ বরাদ্দ ছিলনা তবে, আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে এই খাতে অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে এবং মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণের দরপত্র পক্রিয়াধীন রয়েছে। উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন পরিষদে আর্থিক অনুদান ও কর্মসূচির মাধ্যমে মহিলা নিয়োগের সুযোগ ছিল না, তবে আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে ৭টি ইউনিয়নে দুই ধাপে ৭০ জন করে মোট ১৪০ জন মহিলা নিয়োগ দেয়া হয়েছে এবং এই কর্মসূচির মাধ্যমে ২ কোটি ৩৮ লাখ ২৮ হাজার টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।
সচেতন মহলের অভিমত, আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে প্রতিটি ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। এখন প্রশ্ন হলো যারা উপকারীর উপকার শিকার বা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে না তারা অকৃতজ্ঞ আর অকৃজ্ঞকে স্বয়ং সৃষ্টি কর্তায় পচ্ছন্দ করেন না তাদের ধ্বংস অনিবার্য। এসব বিবেচনায় আওয়ামী লীগ সরকারের এতো উপকারের পরেও যদি উপকারভোগী মানুষ আওয়ামী লীগ সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ স্বরুপ আওয়ামী লীগকে তাদের য়েছে। অন্যদিকে স্বেচ্ছাসেবী মহিলা সংগঠন রয়েছে ১৫০টি এর মধ্যে সক্রিয় রয়েছে ১৮টি। সচেতন মহলের অভিমত, আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে প্রতিটি ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন সাধিত মাথা পিছু ৩০ কেজি করে আটা মোট বরাদ্দের পরিমাণ প্রায় ৫৪ লাখ টাকা। অথচ আওয়ামী লীগের ৯ বছরে প্রায় সাড়ে ১৭ হাজার করা হয়েছে। এছাড়াও কর্মজীবী লভাট না দেন তাহলে সেটা হবে আওয়ামী লীগের প্রতি অকৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা যেটা সমাজের কোনো সুস্থ স্বাভাবিক মানুষ করতে পারে না। বিশিষ্ট জনদের অভিমত, এসব বিবেচনায় আওয়ামী লীগকে আবারো রাস্ট্রিয় ক্ষমতায় নিয়ে আশা ও ওমর ফারুক চৌধূরীকে এমপি নির্বাচিত করা এই অঞ্চলের মানুষের নৈতিক দায়িত্ব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*