সীতাকুন্ড মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ দেলোয়ার হোসেনের মহানুভবতা

সীতাকুন্ড মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ দেলোয়ার হোসেনের মহানুভবতা

মোহরম আলী সুজন,সিটিজ  পোষ্ট,চট্টগ্রামঃ সীতাকুন্ডের অফিসার ইনচার্জ মো,দেলোয়ার হোসেন একজন মানবতাবাধি পুলিশ অফিসার।কঠোর আইনি পদক্ষেপ ছাড়াও সুন্দর মনের একজন মানূষ। গত সোমবার সকালে সীতাকুণ্ড বালিকা স্কুল এন্ড কলেজে চলাকালীন সময় উত্যক্তকারীকে সীতাকুন্ড থানা পুলিশ আটক করে নিজামপুর কলেজের একাদশ বর্ষের ছাত্র মাহিনকে।চলাফেরা, বচনভঙ্গি চুলের কাটিং দেখে যে কেউ মাহিনকে খারাপ হিসেবে ধারণা করবে। আটকের পর অন্যত্র বিয়ে করা পিতার পুত্র মাহিনকে ছাড়াতে থানায় আসেন মা রোকছানা বেগম। এরপর ওসি স্বয়ং সব বিষয়াদি জেনে মাহিনের সাথে কথা বলে সিদ্ধান্ত নেন মাহিনের পড়া লেখার খরচ বহন করার। মাহিনকে তার মায়ের জিম্মায় দিয়ে বলেন, চুল কেটে রাতে অফিসে আসার জন্য, রাতে আসার পর মাহিনকে যখন তার পড়ালেখার বই পত্র ওসি তুলে দেন, তখন মাহিনের মায়ের চোখে পানি জল জল করছিল। মাহিন বলেন, ‘আমার পিতা থেকেও নাই, আজ প্রায় ১২ বছর আমাদের খবর নেয় না, অন্যত্র বিয়ে করেছে। আমি কলেজে ভর্তি হলেও বই-খাতা না থাকায় কলেজে যেতাম না, আজ ওসি স্যার আমার বই-খাতা কিনে দিয়ে আমাকে পড়ালেখার সুযোগ করে দিল, আজ থেকে আমি নতুন জীবন পেলাম। তবে এই বিষয়ে জানতে চাইলে ওসি মোহাম্মদ দেলওয়ার হোসেন বলেন, ‘আমাদের যার যার যতটুকু সামার্থ্য আছে,ততটুকু এগিয়ে আসা, মাহিন ভাল হয়ে যাবে বলে আমাকে কথা দিয়েছে,ভালো ভাবে চলবে আমি তাকে পড়ালেখার সুযোগ করে দিয়েছি।’ওসি মো,দেলোয়ার হোসেন বলেন,আরো বলেন-আমরা পুলিশ হলেও রক্তে মাংসে গড়া মানুষ।আমাদেরও মা বাবা,ছেলে মেয়ে,আত্মীয় স্বজন বন্ধু বান্ধব রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*