লক্ষ লক্ষ টাকার বিনিয়মে চলমান ৩০ ধারার রেকর্ড বাতিল 

লক্ষ লক্ষ টাকার বিনিয়মে চলমান ৩০ ধারার রেকর্ড বাতিল 
বগুড়া প্রতিনিধি : বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলায় সেটেলমেন্ট অফিসের চলমান ৩১ ধারায় নানা অনিয়ম চলছে। লক্ষ লক্ষ টাকার বিনিময়ে ৩০ ধারার রায়কে বাতিল করে ভিত্তিহীনভাবে রেকর্ড বাতিল করে দেয়া হচ্ছে।
এমনি একজন ভুক্তভোগী উওর শাহাপাড়া নিবাসী মো: সালাহ্উদ্দিন জুয়েল। ওয়ারিশসুত্রে প্রাপ্ত সম্পত্তি জে, এল নং ১০৯ মোজা: শেরপুর, সাবেক দাগ নম্বর ৯৮৯ ও ৯৯১ দুইদাগে আলাদাভাবে জমির পরিমান ১২০০ সহং ও ১৮৫০ সহং) হাল দাগ (দুই দাগ একীভূত করে ১৯৬৮ দাগে মোট জমি ৩০৫০ সহং।
উভয় দাগের সমুদয় সম্পত্তি আ: সাত্তার ও তার স্ত্রী সাহারা বানু ধীরেন্দ্রনাথের নিকট হতে ক্রয় করেন। এবং খারিজ করিয়া খাজনা প্রদান করেন এবং তথায় দ্বিতল বিল্ডিং নির্মাণ করেন। কিন্তু বিক্রেতা ধীরেন্দ্রনাথ ও তার এক সন্তান এবং ক্রেতা আ: সাত্তার মারা যাবার পর ধীরেন্দ্রনাথের উত্তরাধিকারীগন উপজেলা সেটেলমেন্ট অফিসে ৩০ ধারায় আ: সাত্তারের সম্পত্তির মাঠ রেকর্ড বাতিল চেয়ে দুইটি আপত্তি আনয়ন করে। অপর দিকে সেই সম্পত্তি অর্পিত তালিকার “খ’ তপসিলে থাকায় সরকারের পক্ষেও দুইটি আপত্তি আনয়ন করে।কিন্তু ৩০ ধারায় ধীরেন্দ্রনাথের উত্তরাধিকারী ও ভুমি অফিসের আপত্তি খারিজ হয়ে যায়।
এতে ধীরেন্দ্রনাথের উত্তরাধকারীরা মরিয়া হয়ে উঠে উপজেলা সেটেলমেন্ট অফিসে ৩১ ধারায় আপত্তি যথাক্রমে ৮২৭৭/২০১২ ও ৯৬০১/২০১৮ করে এবং শেরপুর উপজেলা সহকারী জজ আদালতে মামলা  ৬২/২০১২ (অন্য) আনয়ন করে।
চলমান ৩১ ধারায় আ: সাত্তারের ছেলে সালাহ্উদ্দিন জুয়েল নির্ধারিত ৩০/১০/২০১৮ ইং তারিখে যথারীতি সেটেলমেন্ট অফিসে হাজিরা প্রদান করেন।
হাজিরায় সেটেলমেন্ট অফিসার ও আপিল অফিসার মো: মনতাজ আলী সালাহ্উদ্দিনের নিকট কিছু মুল দলিল পত্র দেখতে চান। তখন সালাহ্উদ্দিন তাকে জানান যে কিছু মুল দলিল আদালতে মামলা নম্বর ৬২/১২ (অন্য) তে জমা আছে। তখন সেটেলমেন্ট অফিসার মনতাজ আলী সালাহ্উদ্দিনকে পরে অফিসে কাগজ পত্র জমা দিতে বলেন।
এমতাবস্থায় সেটেলমেন্ট অফিসের কর্মচারী মনসুর এবং মহুরী মামুন সালাহ্উদ্দিনের সাথে আলাদা আলাদাভাবে যোগাযোগ করে সেটেলমেন্ট অফিসার মনতাজ আলীর জন্য ২০০০০০ টাকা দাবী করে। অন্যথায় বাদী পক্ষ ১০০০০০ টাকা দিতে রাজি আছেন বলে তাকে জানিয়ে দেন। কিন্তু সালাহ্উদ্দিন ওয়ারিশসুত্রে প্রাপ্ত সম্পত্তির জন্য অন্যায়ভাবে টাকা ঘুষ দিতে অস্বীকৃতি জানায়। এতে অফিসার মনতাজ কর্মচারী মনসুরের সহায়তায় লক্ষাধিক টাকার বিনিময়ে এবং শুনানীর অন্য কোন দিন ধার্য্য না করিয়াই এবং উচ্চ আদালতে মামলা ৬২/১২ (অন্য) এর তোয়াক্কা না করিয়াই ধীরেন্দ্রনাথের উত্তরাধিকারীদের অনুকুলে রায় দেয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*