জননেতা এম. সাদেক চৌধুরী আমৃত্যু গণমানুষের জন্য রাজনীতি করেছেন

উত্তর জেলা আ:লীগের স্মরণ সভায় নেতৃবৃন্দ 
জননেতা এম. সাদেক চৌধুরী আমৃত্যু
গণমানুষের জন্য রাজনীতি করেছেন
নিজস্ব প্রতিনিধি:  চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সংগঠনের সাবেক সহ-সভাপতি, ’৭৫ এ বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ড পরবর্তী দু:সময়ে উত্তর জেলা ছাত্রলীগের তৎকালীন সভাপতি, রাঙ্গুনীয়া আসনে দু’বার আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী, জননেতা এম. সাদেক চৌধুরীর ১৩তম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণ সভা আজ ২০ জানুয়ারী রবিবার বিকেলে দোস্ত বিল্ডিংস্থ দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সহসভাপতি নুরুল বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক মো: মঈনুদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সাংগঠনিক সম্পাদক পৌরমেয়র দেবাশীষ পালিতের সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশ নেন সংগঠনের সহসভাপতি সিরাজউদ্দৌলাহ চৌধুরী, উপদেষ্টা এড. এম.এ নাসের চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক মো: জসিম উদ্দিন শাহ, শিক্ষা ও মানবসম্পদ সম্পাদক বেদারুল আলম চৌধুরী বেদার, উপদপ্তর সম্পাদক আলাউদ্দিন সাবেরী, কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম তালুকদার, অধ্যাপক মোহাম্মদ হোসেন, উত্তর জেলা কৃষকলীগ সহসভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হান্নান, সাধারণ সম্পাদক মো: শফিকুল ইসলাম, যুবমহিলা লীগের আহবায়ক রওশন আরা রতœা, সাবেক ছাত্রনেতা মুজিবুল হক হিরু, বখতেয়ার সাঈদ ইরান, উত্তর জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক মো: রেজাউল করিম ও মরহুম নেতার ছোট ভাই আওয়ামী লীগ নেতা ওসমান গনি চৌধুরী প্রমুখ। সভায় বক্তারা বলেন, ছাত্র জীবন থেকে শুরু করে আমৃত্যু গণমানুষের জন্য রাজনীতি করেছেন জননেতা সাদেক চৌধুরী। ’৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ড পরবর্তী দু:সময়ে ছাত্রলীগের রাজনীতিকে এগিয়ে নেয়ার জন্য সাহসিকতার সাথে সংগঠনকে শক্তিশালী করতে তাঁর যে ভূমিকা ছিল তা অবিস্মরণীয় হয়ে থাকবে। বিত্তশালী না হয়েও সততা ও নিষ্ঠার সাথে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতিকে ধারণ করে তিনি মানুষের হৃদয় জয় করেছিলেন। তিনি দু’দুবার রাঙ্গুনিয়া আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে দোর্দন্ড প্রতাপশালী কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী সাকা চৌধুরীর বিরুদ্ধে নির্বাচন করে বহুমুখি ষড়যন্ত্রের কারণে স্বল্পভোটের ব্যবধানে হেরেছিলেন। তবুও তিনি রাঙ্গুনিয়ার মাঠি ও মানুষের কল্যাণ ও সার্বিক উন্নয়নে আমৃত্যু কাজ করেছিলেন। দেশ ও জনগণের কল্যাণে কাজ করাই ছিল তাঁর রাজনীতির ব্রত। তাঁর মত দেশপ্রেমিক, সৎ ও নিবেদিত প্রাণ বিরল রাজনীতিকের মৃত্যুতে দেশ ও সংগঠনের যে ক্ষতি সাধিত হয়েছে তা সহজে পুরণ হবার নয়। তিনি আদর্শিক রাজনৈতিক কর্মীদের প্রেরণার উৎস হয়ে থাকবেন অনন্তকাল। সভার শুরুতে মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*