বেনাপোল পৌর সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুলফিকার আলী মন্টুর উপর বোমা হামলা : মেয়রের আর্শিবাদপুষ্ট আকূলের বাসভবন থেকে বিপুল পরিমাণ ম্যাগজিন গুলি বোমাসহ দেশীয় অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার

বেনাপোল পৌর সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুলফিকার আলী মন্টুর উপর বোমা হামলা : মেয়রের আর্শিবাদপুষ্ট আকূলের বাসভবন থেকে বিপুল পরিমাণ ম্যাগজিন গুলি বোমাসহ দেশীয় অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার

মোঃ আয়ুব হোসেন পক্ষী,বেনাপোল(যশোর)প্রতিনিধি: বেনাপোল পৌর মেয়রের আর্শিবাদপুষ্ট ছাত্রলীগ নেতা আকূলের বাসভবন থেকে বিপুল পরিমাণ ম্যাগজিন গুলি বোমাসহ দেশীয় অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার করেছেন পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাত ১টা হতে ৩টা পর্যন্ত টানা ২ঘন্টার অভিযানে বেনাপোল পৌরসভার পাশে অবস্থিত মরহুম মোমিন মাসষ্টারের (আকূলের দখলকৃত বাসভবন) বাড়ি থেকে এসকল অস্ত্র সামগ্রী ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানালেন শার্শার নাভারন সার্কেলের এএসপি জুয়েল ইমরান। পুলিশ জানায়, শার্শার নাভারন সার্কেল এএসপি জুয়েল ইমরানের নেতৃত্বে পোর্ট থানা পুলিশ বেনাপোলের বাহাদুরপুর রোডস্থ্য পৌর ভবনের পাশে মরহুম মোমিন মাষ্টারের বাড়ি (যেটি বর্তমানে আকূলের বাসভবন) থেকে ১২টি ম্যাগজিন, ৩রাউন্ড গুলি, ১টি তাজা বোমা, ৬টি হেসো দা, ১টি ভোজালী, ১টি চাপাতি, ১টি করাত, ৩টি হাতুড়ি, ১টি কার্টার প্লাস, ১টি স্ক্রু ড্রাইভার, ১টি ক্রিকেট স্ট্যাম্প, ২৪পিছ জর্দার কৌটা, ২টি গ্যাস লাইট, ২পুরিয়া গাজা, ৩২পিছ ফেন্সিডিল, ১টি চায়না লাইট, টন ও মদের কার্টুন উদ্ধার করা হয়েছে। এই উদ্ধার অভিযানে উপস্থিত ছিলেন বেনাপোল পোর্ট থানার অফিসার ইনচার্য(ওসি) শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম, (তদন্ত) আলমগীর হোসেন, এস আই পিন্টু দাস, এহসান প্রমুখ। আরো জানাযায়, বৃহস্পতিবার রাত প্রায় ১২টার দিকে একদল মুখোশধারী সন্ত্রাসী বেনাপোল পৌর সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুলফিকার আলী মন্টুকে হত্যার চেষ্টায় তাকে লক্ষ্য করে বোমা নিক্ষেপ করে। এসময় বোমাটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে মন্টুকে সামান্যতম আঘাত করলেও ক্ষত-বিক্ষত করে পাশে থাকা সুমন নামে আরেক যুবককে। পরে স্থানীয়রা মন্টুকে তার নিজ বাড়িতে প্রাথমিক চিকিৎসায় রেখে সুমনকে দ্রুত শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। বিষয়টি জানতে পেরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে বিষ্ফোরিত বোমার খোসা সামগ্রী উদ্ধার করেন। পরে সন্দেহের তীর ধরে বেনাপোল পৌর মেয়রের আস্থাভাজন পৌষ্য শার্শা উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আকুলের বাহাদুরপুর রোডস্থ্য বাসভবনে অভিযান চালায়। রাত ১টা হতে ৩টা পর্যন্ত টানা ২ঘন্টার অভিযানে বিপুল পরিমাণ ম্যাগজিন, গুলি, বোমাসহ এসকল দেশীয় তৈরি অস্ত্র সামগ্রী ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার করেন। সন্ত্রাসীয় হামলাসহ অস্ত্র ও মাদক উদ্ধারের বিষয়ে শার্শার নাভারন সার্কেল এএসপি জুয়েল ইমরান জানান, বৃহস্পতিবার রাতে তাদের কাছে খবর আসে বেনাপোলের বাহাদুরপুর রোডস্থ্য মরহুম মোমিন মাষ্টারের বাড়িতে (যেটি বর্তমানে আকূলের বাসভবন) একদল সন্ত্রাসী অস্ত্রের ভান্ডার মজুদ করছে। পরে সেখানে অভিযান চালিয়ে ঘটনাস্থল থেকে ১২টি ম্যাগজিন, ৩রাউন্ড গুলি, ৬টি হেসো দা, ১টি ভোজালী, ১টি চাপাতি, ১টি করাত, ৩টি হাতুড়ি, ১টি কার্টার প্লাস, ১টি স্ক্রু ড্রাইভার, ১টি ক্রিকেট স্ট্যাম্প, ২৪পিছ জর্দার কৌটা, ২টি গ্যাস লাইট, ২পুরিয়া গাজা, ৩২পিছ ফেন্সিডিল, ১টি চায়না লাইট, টন ও মদের কার্টুন উদ্ধার করা হয়। পরে ঘটনাস্থল থেকে আরো ১টি তাজা বোমা উদ্ধার করা হয়েছে। তবে, এ পর্যন্ত কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি বলেও জানান তিনি। এসময় বেনাপোল পৌর সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুলফিকার আলী মন্টুর উপর বোমা হামলার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি সংবাদ কর্মীদের কাছে সত্যতা সিকার করেছেন। বলেন, এ ঘটনায় মন্টু সামান্যতম আঘাত প্রাপ্ত হলেও পাশে থাকা সুমন নামে আরেক যুবক মারাত্বকভাবে জখম হয়েছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছি এবং সেখান থেকে বোমার আলামত উদ্ধার করা হয়েছে। তবে কে বা কাহারা ঘটনাটি ঘটিয়েছে তা এখনো নিশ্চিত হতে পারিনি। এ ব্যাপারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত থাকবে। অপরাধী যেই হোক না কেনো তাকে সনাক্ত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। শুক্রবার সকালে সন্ত্রাসীদের বোমার আঘাতে আহত বেনাপোল পৌর সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুলফিকার আলী মন্টু ও সুমন নামের যুবকটির বাড়ি পরিদর্শণ ও পরিবারের সদস্যদের প্রতি শান্তনা দিতে আসেন ৮৫ যশোর-১(শার্শা)’র সাংসদ আলহাজ¦ শেখ আফিল উদ্দিন। বলেন, সন্ত্রাসীরা কখনো আওয়ামীলীগের লোক হতে পারে না। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ দলের মধ্যে কখনো সন্ত্রাসীদের প্রশ্যয় দেয়নি এবং ভবিষ্যতেও দেবে না। তাই, অপরাধীরা যতো বড়ো ক্ষমতার অধিকারি হোক না কেনো তার স্থান কেবল শার্শা উপজেলাতে নয়, সমগ্র বাংলাদেশেও হবে না। তাকে অবশ্যই আইনের আদালতে দাড়াতে হবে এবং জাতির কাছে ক্ষমা ভিক্ষা চাইতে হবে। পরে তিনি বেনাপোল পোর্ট থানায় গিয়ে অফিসার ইনচার্য(ওসি) শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিমের সাথে কথা বলেন। বলেন, অপরাধী যে দলেরই পরিচয় দিক না কেনো বা যতো শক্তিই ব্যবহার করার চেষ্টা করুক না কেনো তাকে কোনোভাবেই তাকে ছাড় দেওয়ার চেষ্টা করবেন না। এদেরকে আটক পূর্বক আইনের আদালতে না আনলে এসকল অপশক্তিরা একদিন মাথা চাড়া দিয়ে উঠবে এবং দেশের চরম অবনতি ডেকে আনবে। উল্লেখ্য, এসংবাদ লেখা পর্যন্ত মামলার প্রস্তুতি চলছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*