শিশু কিশোরদের মাঝে দেশপ্রেমের আদর্শ ছড়িয়ে দিতে হবে

পল্লীকবি জসিম উদ্দীন স্মৃতি গোল্ড মেডেল পরীক্ষার পুরষ্কার বিতরণে বক্তারা
শিশু কিশোরদের মাঝে দেশপ্রেমের আদর্শ ছড়িয়ে দিতে হবে
কুতুব উদ্দিন রাজু,চট্টগ্রাম : বিদ্যানিকেতন ইনস্টিটিউট ও সাহিত্য পরিষদের উদ্যোগে পল্লীকবি জসিম উদ্দীন স্মৃতি গোল্ড মেডেল পরীক্ষার পুরষ্কার বিতরণ, আলোচনা সভা ও স্মরণিকার প্রকাশনা অনুষ্ঠান গত ২৩ আগষ্ট দিনব্যাপী নগরীর সুপ্রভাত স্টুডিও হলে সংগঠনের সভাপতি অধ্যক্ষ রতন দাশগুপ্তের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সকালের পর্বের উদ্বোধন করেন কবি ও সাংস্কৃতিক সংগঠক সজল দাশ। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বঙ্গবন্ধু সাহিত্য একাডেমীর পরিচালক মোঃ জসিম উদ্দীন চৌধুরী। প্রধান বক্তা ছিলেন সাবেক ছাত্রনেতা সুভাষ চৌধুরী টাংকু। পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠানের সমন্বয়কারী আশীষ কুমার নাথের পরিচালনায় এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান, চট্টগ্রাম সাহিত্য পাঠচক্রের সাধারণ সম্পাদক আসিফ ইকবাল, অধ্যাপক মোঃ আলমগীর, সমাজসেবক মোঃ মোজাম্মেল হক সুজন, মোঃ মাসুদুর রহমান, মোঃ ইমরান সোহেল। অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষিকা আমেনা বেগম, রুমা বড়ুয়া, নিলুফার ইয়াসমিন, নুরুন নেছা আহমদ মুক্তা নাহিদা পারভিন ডেইজি, সুজন বড়ুয়া, রঞ্জনা পাল, সাথী দাশ, মোম হারুন, মোঃ জাবেদ আফসারী প্রমুখ। কোরআন তেলওয়াত করেন রাইসা মেহে তাসনিম, গীতা পাঠ করেন মৌনতা মিত্র চৌধুরী, ত্রিপিটক পাঠ করেন প্রজ্ঞা বড়ুয়া।
অনুষ্ঠানে ২য় পর্বের পুরষ্কার বিতরণে সভাপতিত্ব করেন অধ্যক্ষ স্কলারশীপ বোর্ডের উপদেষ্ঠা অধ্যক্ষ সুজন ভট্টাচার্য। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক সিনিয়র জজ এডভোকেট মনজুর মাহমুদ খান। উদ্বোধক ছিলেন কধুরখীল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বাবুল কান্তি দাশ। প্রধান বক্তা ছিলেন লেখক ও সমাজসেবক এম.এ.সবুর। আশীষ কুমার নাথ ও রুমা বড়ুয়ার পরিচালনায় এতে বিশেষ অতিথি ছিলেনলেখক স.ম.জিয়াউর রহমান, ছড়াকার সৈয়দ শিবলী সাদিক কফিল, সঙ্গীতশিল্পী কাজল দত্ত, নারায়ন দাশ, হানিফুল ইসলাম চৌধুরী, কামাল হোসেন। অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মিতালী সেন, রতন ঘোষ, দিলীপ সেন গুপ্ত, সুমন চৌধুরী, মঞ্জুরি গাঙ্গুলী, রাজীব দাশ, জুয়েল দাশ প্রমুখ।
অনুষ্ঠানের শুরুতে সমবেতকন্ঠে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। সভায় বঙ্গবন্ধুর ৪৪তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস স্মরণে বঙ্গবন্ধু এবং ১৫ আগষ্টে নিহতদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। সভায় প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন শিশু কিশোরদের প্রতিভা বিকাশে প্রতিযোগিতার কোন বিকল্প নেই। শিক্ষার পাশাপাশি সহ শিক্ষাকার্যক্রম শিক্ষার্থীকে পরিপূর্ণ মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সহায়তা করে। তিনি বলেন পল্লীকবি জসিম উদ্দীন তার লেখনিতে পল্লীর মানুষের জীবনের নানান চিত্র নিপুণভাবে তুলে ধরেছেন। তিনি বলেন জসিম উদ্দীনের কবিতায় পল্লীর সহজ সরল মানুষের জীবন, জীবিকা, আবেগ, অনুভুতি আর পল্লীর সৌন্দর্যের কথা চমৎকারভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন। তিনি এ প্রজন্মের শিক্ষার্থীকে পল্লী তথা গ্রামের সাথে পরিচিত হওয়ার আহবান জানান।
বক্তারা বলেন মানুষের জীবনের মুল শেকড় পল্লীর জীবনে আমাদের প্রায় মানুষের বেড়ে উঠা। তাই নিভৃত পল্লীকে সকলের ভালোবাসা নৈতিক দায়িত্ব। বক্তারা বলেন আজকের নব প্রজন্মের মাঝেই আমাদের আগামীর নেতৃত্ব লুকিয়ে আছে। তাদের প্রতিভা বিকাশে আমাদেরকে সুযোগ করে দিতে হবে। সভা শেষে ২ পর্বে ৩২৯ জন শিক্ষার্থীর মাঝে ক্রেস্ট, সনদ ও পুরষ্কার তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*