এ যেন এক অভিবাবকহীন বরুড়া

উত্তর বরুড়ার প্রতিটা সড়ক চলাচলের জন্য অনুপোযোগী
এ যেন এক অভিবাবকহীন বরুড়া
সাকিব আল হেলাল(বরুড়া) ;; কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার উত্তর অংশের প্রায় প্রতিটা সড়ক মানুষ চলাচলের জন্য অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে।দীর্ঘদিন রাস্তাগুলো পুনঃসংস্কার না করার কারনে রাস্তাগুলোর এখন বেহাল দশা ।গুরুত্বপূর্ন সড়কের মধ্য কালিরবাজার-বাতাইছড়ি সড়ক,আদমপুর-রামমোহন সড়ক,বরুড়া-নিমসার সড়ক।এই তিনটি গুরুত্বপূর্ন সড়কের বেহাল দশা সীমা ছাড়িয়ে গেছে।এ সকল সড়কগুলোতে যানবাহন তো দূরের কথা হেঁটে চলাচল করতেও অনেক কষ্ট হয় বিশেষ করে যখন বৃষ্টি হয়।পাঁকা সড়ক কাঁদা সড়কে পরিনত হয়।এই তিন সড়কের মধ্য সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থায় আছে কালির বাজার-বাতাইছড়ি সড়ক।এই সড়কের পুরো অংশটাই ভেঙ্গে খনাখন্দকে পরিনত হয়েছে।সড়কের বিভিন্ন অংশে ছোট ছোট গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।সামান্য বৃষ্টি হলে গর্তগুলো পানি ভর্তি হয়ে যান-বাহন চলাচলসহ মানুষ চলাচলে বিঘœ ঘটাচ্ছে।সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,কালিরবাজার-বাতাইছড়ি সড়কটি পাঁকা সড়ক হলেও পাঁকার কোন অস্তিত্ব খোঁজে পাওয়া মুশকিল।তবে গত দুদিন ধরে অন্য এলাকার পুরোনো রাস্তা উঠানো ভাঙ্গা পিচের অংশ এনে উক্ত সড়কের বিভিন্ন গর্ত ভরাট করতে দেখা গেছে।
আদমপুর-রামমোহন সড়কের বিভিন্ন অংশের চিত্র আরো ভয়াবহ। এই সড়কের বিভিন্ন অংশ ভেঙ্গে পুকুরে পরে গেছে ।সড়কে বিভিন্ন জায়গায় ছোট ছোট গর্ত আর খনা খন্দকে ভরপুর।বিশেষ করে রামমোহন বাজারের ঐতিহ্যবাহী রামমোহন তমিজিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনের অবস্থা চিত্র ভয়াবহ।বিদ্যালয়টির সামনে সামান্য বৃষ্টি হলে সড়কটিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়ে।রামমোহন তমিজিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থীদের সাথে কথা হলে তারা বলেন,সামান্য বৃষ্টি হলে আমরা সাইকেল থাকুক দূরের কথা হেঁটে বিদ্যালয়ের গেট দিয়ে ঢুকতে পারি না।বিদ্যালয়ের সামনে বৃষ্টির পানিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়”।
বরুড়া-নিমসার সড়কের অবস্থা আরো ভয়াবহ।এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার যাত্রী চলাচল করে।বিশেষ করে নিমসার দেশের সর্ববৃহৎ সবজি বাজার হওয়াতে এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন এই এলাকার মানুষ সবজি নিয়ে নিমসার সবজি বাজারে যায় কিন্তু সড়কের বেহাল দশার কারনে যানবাহন ও মানুষ চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।তাছাড়া নিমসার ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়ক হওয়ায় এ সড়ক দিয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যাতায়াত করতে হয় কিন্তু সড়কটি চলাচলে অনুপুযোগী হওয়ায় মানুষের চলাচলে ভোগান্তীর শেষ নেই।এ সড়ক প্রসঙ্গে কয়েকজন পথচারীর সাথে কথা হলে তারা বলেন,আমরা উত্তর বরুড়াবাসী খুবই অবহেলিত আমাদের সড়কের উন্নয়নের কথা কেউ ভাবে না।আমাদের উত্তর বরুড়া কোন অভিভাবক নাই।গত প্রায় ১০ বছর ধরে আমাদের বরুড়া-নিমসার সড়কে কোন প্রকার কাজ করা হয়নি।আমাদের চলাচলের অনেক কষ্ট হচ্ছে”।
এ প্রসঙ্গে কুমিল্লা-৮(বরুড়া) সংসদ সদস্য অধ্যাপক নুরুল ইসলাম মিলন জানান,জুন জুলাই মাসে উক্ত সড়কটির কাজ শুরু হবে কিন্তু জুন জুলাই চলে গেলেও কাজ করার কোন লক্ষন দেখা যাচ্ছে না তবে কি এসব এলাকার এলাকাবাসীর কষ্টের লাঘব কখনোই হবে না ?? এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সাধারন জনগনের মনে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*