আসাননগর কাদেরিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসায় সময়মত আসেন না শিক্ষকরা

আসাননগর কাদেরিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসায় সময়মত আসেন না শিক্ষকরা
মোঃ দুলাল হক, রুহিয়া থানা প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ১৪ নং রাজাগাঁও ইউনিয়নের আসাননগর কাদেরিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষকদের অনুপস্থিতির  ছবি স্যোসাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। গত ১৭ অক্টোবর (বুধবার) দুপুর ১টা৪০ ও ২ টা ১৪ মিনিটে রুহিয়া থানা প্রেসক্লাবের কয়েকজন সাংবাদিক,আজকের  র্পোট,আজকেরডাক, সিটিজি পোস্ট, ও আলোপথ সহ বিভিন্ন অনলাইন ও ফেসবুকে ( আসান নগর কাদেরিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসায় সময়মত আসেননা শিক্ষকরা) শিরোনামে কয়েকটি ছবি পোস্ট করেন। ছবিতে দেখাযায় আসান নগর,কাদেরিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্ররাসার,এতেদায়ী প্রধান শিক্ষক মোঃ মঈনুল হক, এবতেদায়ী সহকারি শিক্ষক মোঃ আমিনুল ইসলাম, এবতেদায়ী মৌলভী শিক্ষক মোঃ আব্দুর রহমান খাঁন, এবতেদায়ী ক্বারী শিক্ষক আব্দুল খালেক মাদ্রাসায় শিক্ষকদের রুমে সাড়ে ১২ টার সময় ও মাদ্রাসায় আসেননি। শিক্ষক কর্মচারীদের ৯ টা থেকে ৯ টা ত্রিশ মিনিটের মধ্যে অফিসে প্রবেশের নির্দেশ থাকলে ও তারা নিয়ম নীতিকে বৃদ্ধাংগুলি প্রদর্শন করে যা ইচ্ছে তাই করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। দীর্ঘদিন ধরেই মাদ্রাসাটিতে নানা অনিয়ম চলে আসছে। গত ১৭ অক্টোবর সাড়ে ১২ টায় ১৭ জন শিক্ষক এর মধ্যে অভিযুক্ত ৪/৫ জন শিক্ষকই তখনও মাদ্রাসায় উপস্থিত হননি। পাশের শিক্ষক মিলনায়তনে বসে ছিলেন, সুপার মোঃ এনামুল হক , সহঃ সুপার মোঃ ইসমাইল হোসেন,সহঃ শিঃ শরীর চর্চা মোঃ দবিরুল ইসলাম সহ মোট ১৩ জন শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন। এমন উপস্থিতির চিত্র জানতে চাইলে ওই প্রতিষ্ঠানের বিদ্যুৎসায়ী মোঃ শহিদুল ইসলাম জানান,এ চিত্র প্রায় নিত্যদিনের। সুপার সহ ১২/১৩ জন উপস্থিত ছাড়া বাকি ৪/৫ নিয়মিত মাদ্রাসায় আসতে দেখছিনা। আমার থেকে হয়তো উনি (সুপার) বেশী ভালো বলতে পারবেন। এ ব্যাপারে আরো জানান বাংলাদেশ আওয়ামী ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা দেলদার হোসেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ২ নং ওয়ার্ডের সাধারন সম্পাদক লুৎফর রহমান, আকবর হোসেন শিক্ষক,কর্মকর্তা কর্মচারদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যাবস্থা গ্রহন করা উচিত বলে আমরা মনে করি,যেহেতু উনারা সরকারি বেতন
ভাতা সহ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা গ্রহন করেন। এ ব্যাপারে কয়েক জন অভিভাবক সাংবাদিদের জাানন, ক্লাস রুটিনের অজুহাত দেখিয়ে কেউকেউ দেরিতে আসলেও, সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রীরা সুমি, শারমিন, শাহনাজ এই শিক্ষার্থীদের ভাষ্য হলো এই প্রতিষ্ঠানে প্রথম ও পঞ্চম শ্রেণীর কোন ছাত্রছাত্রী মাদ্রাসায় নাই, তাই যথা সময়ে ৪/৫ জন স্যার মাদ্রসায় আসেন না। আসলে ও খাতায় সই করে বাসায় চলে যান। এ ব্যাপারে মাদ্রাসার সুপারের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান অভিযুক্তরা আমার সাথে অসদাচরন করেন আমাকে মানে না। এ ব্যাপারে আসান নগর ইসলামিয়য়া কাদেরিয়া দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি ও ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার বাংলাদেশ আওয়ামীগের সাধারন সম্পাদক, ১৪ নং রাজাগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব, মোঃ মোশারুল ইসলাম সরকার বলেন আমি অভিযুক্ত শিক্ষকদের বিরুদ্ধে মাদ্রাসার প্রচলিত নিয়মে ব্যাবস্থা গ্রহন করবো বলে সংবাদ কর্মীদের জানান তিনি ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*