আবারো মিথ্যা মামলা দিয়ে সাংবাদিক মাসুদকে হয়রানির অভিযোগ

আবারো মিথ্যা মামলা দিয়ে সাংবাদিক মাসুদকে হয়রানির অভিযোগ
সরিষাবাড়ী প্রতিনিধি– জাতির দর্পন সাংবাদিকরা নানাভাবে নির্যাতিত হচ্ছে, সাংবাদিকরা ন্যায্য অধিকার পাচ্ছে না। সাংবাদিকদের হত্যার হুমকি এবং নানা ধরনের চক্রান্তে ও মিথ্যা মামলায় শিকার হতে হচ্ছে । একের পর এক মিথ্যা মামলায় হয়রানির শিকার হচ্ছে দৈনিক আলোচিত জামালপুর পত্রিকার সরিষাবাড়ী প্রতিনিধি, মুভি বাংলা টিভির সরিষাবাড়ী প্রতিনিধি, অনলাইন সংবাদ প্রতিক্ষন এর জামালপুর জেলা প্রতিনিধি, সিটিজি পোস্ট ডট কমের স্টাফ রিপোর্টার সাংবাদিক মাসুদুর রহমান । তার বিরুদ্ধে গত ১৯ অক্টোবর সরিষাবাড়ী থানায় একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে পুলিশ সদস্য জাহিদুল ইসলাম । তিনি একজন সাহসী সাংবাদিক । সব সময় সত্য সংবাদ ও অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে ভালবাসতেন ।
জানা যায়, সরিষাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মাজেদুর রহমান থানায় যোগদানের পর থেকেই সরিষাবাড়ী থানায় আসামী গ্রেফতার করে রাতের আধারে ছেড়ে দেয় অর্থের বিনিময়ে । এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৪ সেপ্টেম্বর সোমবার কয়েকটি অনলাইন পত্রিকা ও তার ব্যবহৃত ফেসবুক আইডি থেকে “সরিষাবাড়ীতে লক্ষাধিক টাকায় থানা থেকে মুক্তি পেল সড়ক দুর্ঘটনায় আটককৃত ৪ জন” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করেছে। সংবাদে বলা হয়েছিল মাদারগঞ্জ উপজেলার পাঠাদহগ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে মামুন মিয়া, রফিকুল ইসলামের ছেলে মেহেদী, সুরুজ মিয়ার ছেলে মারুফ, কয়ড়া বাজার এলাকার মোয়াজ্জেম হোসেনের ছেলে রাজ্জাককে আটক করে ১ লক্ষ ৭০ হাজার টাকায় গভীর রাতে গোপনে আপোষ মিমাংসা হয়ে উৎকোচ গ্রহণ করে ছেড়ে দেয় সরিষাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মাজেদুর রহমান। যার প্রমাণ রেকডিং হিসেবে সাংবাদিক মাসুদের কাছে রয়েছে। সংবাদ প্রকাশের পর গত ২৬ সেপ্টেম্বর রাতে তাকে এএসআই আনসার আলী মুঠোফোনে ধানাটা ব্রীজে আসতে বলে। তিনি তার কথামত সেখানে আসলে এসআই ইমান আলী, এসআই আরিফুল ইসলাম, এসআই সাইফুল ইসলাম, এএসআই শাহাদৎ, এএসআই ফরহাদ সহ প্রায় ২০ পুলিশ সদস্য তাকে ওসি সাহেব ডেকেছে বলে থানায় নিয়ে আসে। তারপর তাকে থানা থেকে রাত প্রায় ১ টার দিকে হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভুয়া একটি চিকিৎসা সনদপত্র সংগ্রহ করে তার বিরুদ্ধে চোলাই মদ পান করেছে বলে এসআই ঈমান আলী বাদী হয়ে মিথ্যা মামলা দায়ের করে। বাড়াবাড়ি করলে ওসি তাকে বিভিন্ন মামলায় ফাঁসিয়ে দিয়ে জেল হাজত বাস করাবে বলে ২৫ সেপ্টেম্বর আদালতে প্রেরণের সময় হুমকি দেয়। দীর্ঘ ১৪ দিন কারাবাস করে তিনি গত ১০ অক্টোবর বুধবার জামালপুর বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে জামিনে মুক্তিলাভ করে। সারা বাংলাদেশের ন্যায় সরিষাবাড়ী অনুষ্ঠিত দুর্গা পুজার তথ্য সংগ্রহ করতে বিভিন্ন মন্দিরের মন্ডপে যায় মাসুদুর রহমান । আরামনগর বাজার এলাকার বীর ধানাটা বি।জে।সি দুর্গা মন্দিরে ১৮ অক্টোবর পেশাগত দায়িত্ব পালনে গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করে তিনি । তথ্য সংগ্রহ শেষ করে তিনি বাড়ীতে চলে যায় । রাতে তার বাসায় গিয়ে পুলিশ মাসুদের বাবা মাকে ঘুম থেকে ঢেকে তুলে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে বলে বাসায় বলে আসে । পরে থানায় তার বাবা খোজ নিয়ে জানতে পারে মাসুদের বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়েছে । পুলিশ সদস্য জাহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে । মামলা নং- ১৬ , ধারা-১৪৩/৩০৭/৩৩২/৩৫৩/ ১৮৬/ ১১৪/ ৩৪ ,তারিখ- ১৯-১০-২০১৮ । বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় ফাসিয়ে তার পারিবারিক, সামাজিক ভাবমূর্তি ও ব্যাপক সম্মানহানি ঘটেছে। সরিষাবাড়ী কর্মরত সাংবাদিকবৃন্দসহ এলাকার জনগণ সাংবাদিক মাসুদ রহমান মাসুদের ওপর এ ন্যাক্কারজনক ষড়যন্ত্রের তীব্র নিন্দা জানান।
মাসুদুর রহমান অভিযোগ করে বলেন , একটি রাজনৈতিক মহল ও ঘুষ খোর পুলিশ অফিসার মাজেদূর রহমান তাকে ধ্বংস করার লক্ষ্যে মরিয়া হয়ে উঠেছে। সরিষাবাড়ী থানা ঘুষের রাজ্য হিসেবে পরিচিত । তার স্বভাব চরিত্র ভাল না । তার বিরুদ্ধে অনেক প্রমান আমার কাছে রয়েছে ।
এ বিষয়ে সরিষাবাড়ী থানার ওসি মাজেদুর রহমানের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*